1. admin@bwazarakatha.com : bwazarakatha com : bwazarakatha com
শনিবার, ২৪ জুলাই ২০২১, ০৫:৫৭ অপরাহ্ন
ব্রেকিং নিউজ :
নবাবগঞ্জে অপসোনিন এর সেলসম্যানের ঔষধ চুরি ঘটনা ধরা পড়ায় অপসোনিনে ঔষধ বর্জন ঘোড়াঘাট উপজেলা চেয়ারম্যানের রোগমুক্তি কামনায়  বিশেষ দোয়া  অনুষ্ঠিত  রংপুরে ক্রিকেটার বিথীর উদ্যোগে ৭০০ পরিবারে হাসি রংপুর মেডিকেল থেকে অক্সিজেন সিলিন্ডার পাচারের চেষ্টা: তিনটি ট্রাক জব্দ আটক ৬ কটিয়াদীতে ৫৮৫ পিস ইয়াবাসহ দুই মাদক ব্যবসায়ী আটক আধুনিক যুগের নিত্য নতুন যন্ত্রপাতি আবিষ্কারের ফলে বিলুপ্ত গ্রামবাংলার ঘানি  আধুনিকতার স্পর্শে হারিয়ে যাচ্ছে গ্রামবাংলার ঐতিহ্য মাটির ঘর সাদুল্লাপুরে সাপের কামড়ে গৃহবধূর মৃত্যু সুন্দরগঞ্জে করোনায় কর্মহীন ৪০০ পরিবারের মাঝে ঈদ খাদ্য সামগ্রী বিতরণ কোলাকুলি আর করমর্দন ছাড়াই রংপুরে পালিত হলো ঈদ উল আযহা

আগমনি শীতের আমেজে শাক সবজির দাম বেশ চড়া

  • আপডেট সময় : শনিবার, ৫ সেপ্টেম্বর, ২০২০
  • ৫৫ বার পঠিত

বজ্রকথা ডেক্স।- রাজধানীর বাজারে শীতের আগাম সবজি আসতে শুরু করেছে। গ্রীষ্মকালীন সবজির সরবরাহও গত কয়েক সপ্তাহের তুলনায় বাড়ছে। তারপরেও দাম কমছে না। চড়া দামেই বিক্রি হচ্ছে বিভিন্ন ধরনের সবজি। বৃহস্পতিবার মিরপুর-১, কারওয়ান বাজার, উত্তর পীরেরবাগ ও মোহাম্মদপুর টাউন হল বাজার গিয়ে দেখা গেছে, শীতের সবজি বাঁধাকপি, ফুলকপি ও শিম অল্প পরিমাণে বাজারে এসেছে। তবে এসব সবজির দাম বেশ চড়া। মিরপুর-১ নম্বর বাজারের সবজি বিক্রেতা সজিব মিয়া বলেন, বন্যার কারণে ক্ষেত নষ্ট হওয়ায় সবজির সরবরাহ কম। এ কারণে কয়েক সপ্তাহ ধরে চড়া দামে বিক্রি হচ্ছে। তবে আগের সপ্তাহের চেয়ে এখন সবজি বেশি আসছে। কিন্তু প্রয়োজনের তুলনায় অনেক কম হওয়ায় পাইকারি বাজারে দাম কমছে না। তাছাড়া শীতের আগাম সবজি সব সময় একটু বেশি দামেই বিক্রি হয়। বাজারে নতুন সবজি শিম ১৮০ থেকে ২০০ টাকা কেজিতে বিক্রি হয়। ছোট আকারের প্রতিটি ফুলকপি ও বাঁধাকপি ৪০ থেকে ৫০ টাকায় বিক্রি হয়েছে। অন্যগুলোর দাম চড়া থাকায় নতুন এই সবজির চাহিদা ছিল বেশি। উত্তর পীরেরবাগ সবজি ব্যবসায়ী মিজানুর রহমান বলেন, গত বছর এই সময়ে কপি একই দামে বিক্রি হয়েছে। কারওয়ান বাজারের ব্যবসায়ী আঃ রহমান বলেন, গত বছর মৌসুমের শুরুতে শিম আড়াইশ’ টাকা কেজিতে বিক্রি করেছেন তিনি। এবার কেজিতে অন্তত ৫০ টাকা কমে পাচ্ছেন ক্রেতা। তবে অন্য সবজির দাম এখনও বেশ চড়া। বাজারে এখনও পাকা টমেটোর কেজি বিক্রি হচ্ছে ১২০ থেকে ১৪০ টাকায়। গাজর ৮০ থেকে ১০০, করলা ৮০ থেকে ১০০, বেগুন ও বরবটি ৭০ থেকে ৮০, পোটল ও কাঁকরোল ৫০ থেকে ৬০ এবং প্রতিটি লাউ ৫০ থেকে ৭০ টাকায় কিনতে হচ্ছে। গত সপ্তাহে কাঁচামরিচের কেজি ছিল ৩০০ টাকা। এখন তা কমে ২০০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। এছাড়া সপ্তাহের ব্যবধানে কেজিতে ৫ টাকা বেড়ে দেশি পেঁয়াজ ৪৫ থেকে ৫০ টাকা এবং আমদানি করা পেঁয়াজ ৫০ থেকে ৫৫ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। দেশি রসুন কেজিতে ১০ টাকা বেড়ে ১০০ টাকা হয়েছে। খোলা সয়াবিন তেল লিটারে দুই টাকা বেড়ে মানভেদে ৮৫ থেকে ৮৮ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। মসুর ডাল কেজিতে ৫ থেকে ১০ টাকা বেড়েছে। এখন প্রতিকেজি বড় দানা মসুর ৭০ থেকে ৭৫ টাকা, মাঝারি দানা ৯০ থেকে ১১০ টাকা ও ছোট দানা ১১০ থেকে ১১৫ টাকায় বিক্রি হচ্ছে।

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এই রকম আরো সংবাদ

© All rights reserved © 2020 Bwazarakatha.Com
Design & Development By Hostitbd.Com