বুধবার, ২৯ মে ২০২৪, ০২:৫০ পূর্বাহ্ন
ব্রেকিং নিউজ :
রংপুর বিভাগের নব নির্বাচিত উপজেলা চেয়ারম্যান- ভাইস চেয়ারম্যানের শপথগ্রহণ রংপুর সদর উপজেলা পরিষদ নির্বাচন প্রার্থী আওয়ামী লীগের একাধিক নেতা মর্যাদার লড়াই জাতীয় পার্টির বিরামপুর পুলিশ বক্স ও বিট পুলিশিং কার্যালয়ের উদ্বোধন নদীর ভাঙন প্রতিরোধে কার্যকর ব্যবস্থা গ্রহণের দাবি রাস্তা পাকাকরণ কাজে ব্যাপক অনিয়ম  দেখার কেউ নেই “স্বাধীনতা সুবর্ণ জয়ন্তী পুরস্কার ২০২৩” পেল প্রাইম ব্যাংক ইনভেস্টমেন্ট রংপুরে যুবদল নেতা নয়নের মুক্তির দাবিতে মানববন্ধন অনুষ্ঠিত রংপুর নগরীতে  বাড়িতে হামলা সরকারি জমি থেকে অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ  বিরামপুরে প্রাথমিক শিক্ষা সপ্তাহে মা দিবস অনুষ্ঠিত

আড়িয়াল খাঁয় নাব্য সংকটে পরিবেশ বিপর্যয়: কটিয়াদীতে সেতুর পরিবর্তে দুটি সড়ক বাঁধ নির্মাণ

রিপোটারের নাম
  • আপডেট সময় : শনিবার, ১৭ অক্টোবর, ২০২০
  • ৩৩৮ বার পঠিত

কটিয়াদী (কিশোরগঞ্জ) থেকে সুবল চন্দ্র দাস।- পরিবেশ ও প্রাকৃতিক ভারসাম্য রক্ষায় সরকার নদনদী সংস্কার এবং দখলমুক্ত করার অভিযান চালিয়ে গেলেও কিশোরগঞ্জের কটিয়াদী উপজেলার আড়িয়ালখাঁ নদের ভাগ্যে ঘটেছে সম্পূর্ণ বিপরীত ঘটনা। নদের বুকে দুটি বাঁধের কারণে নাব্য হারালেও দেখার যেন কেউ নেই। নেই জলাধার সংরক্ষণ আইনের প্রয়োগ ও বাস্তবায়ন। এখানে খোদ প্রশাসনের প্রচ্ছন্ন সহযোগিতায় নদীটির বুকে সেতুর পরিবর্তে দুটি সড়ক বাঁধ নির্মাণ করে বাজার বসানো হয়েছে। এমনকি নদীটিকে চারদিক থেকে আটকিয়ে ১০৫ দশমিক ৫৮ একরের বিশাল জলমহাল বানিয়ে মোটা অঙ্কের রাজস্ব আদায়ের উৎস হিসেবে ব্যবহার করা হচ্ছে। আর এ কারণে দেখা দিয়েছে ভয়াবহ পরিবেশ বিপর্যয়ের আশঙ্কা। এছাড়া এ ঘটনায় একদিকে বন্ধ হয়ে পড়েছে নৌ-যোগাযোগ ব্যবস্থা অন্যদিকে বেকার হয়ে পড়েছে এ নদীর মুক্ত জলাশয়ে মাছ ধরে জীবিকানির্বাহকারী কয়েকশ’ মৎস্যজীবী জেলে পরিবার। জানা গেছে, কটিয়াদী উপজেলার স্রোতস্বিনী নদের নাম আড়িয়ালখাঁ। এ নদটি পার্শ্ববর্তী নরসিংদী জেলার সীমান্তবর্তী এলাকা থেকে কিশোরগঞ্জ জেলার ওপর দিয়ে ১৯ কিলোমিটার দৈর্ঘ্যে বিস্তৃত ছিল। এর মধ্যে কিশোরগঞ্জে পুরাতন ব্রহ্মপুত্রের সঙ্গে সংযুক্ত হয়ে কটিয়াদী উপজেলা সদর থেকে কুলিয়ারচর উপজেলার দিকে ১২ দশমিক ২ কিলোমিটার স্থান পর্যন্ত প্রবহমান প্রমত্তা এক নদ হিসেবে বহমান ছিল এটি। একসময় উত্তরে পুরাতন ব্রহ্মপুত্র নদের পথ ধরে ময়মনসিংহ থেকে কিশোরগঞ্জের কটিয়াদী হয়ে দক্ষিণে মেঘনা ও অন্যান্য নদীপথে বন্দরনগরী ভৈরব এবং নারায়ণগঞ্জ পর্যন্ত নৌ-পথে স্বল্প খরচে যোগাযোগ এবং মালামাল পরিবহন সম্ভব হতো। এ বিস্তীর্ণ নৌ-পথের বুক চিড়ে আসা-যাওয়া করত ছোট-বড় মালবাহী ও যাত্রীবাহী শত শত নৌযান। কিন্তু আশির দশকের মাঝামাঝি সময়ে অপরিণামদর্শী লোকজন স্থানীয় প্রশাসন ও রাজনৈতিক নেতাদের প্রচ্ছন্ন সহযোগিতায় সেতু নির্মাণের কথা না ভেবে নৌ-পথে নদী পারাপার এড়ানোর উদ্যোগ নেয়। বর্তমান কটিয়াদী মডেল থানার সামনে এবং সদরের পশ্চিম প্রান্তে প্রায় এক কিলোমিটার দৈর্ঘ্য বাঁধ দিয়ে দুটি সড়কপথ তৈরি করে নদীটিকে বন্দি দশার মধ্যে ফেলে। এরই মধ্যে আড়িয়াল খাঁ নদের বুক চিড়ে তৈরি থানার সামনের সড়ক পথ বাঁধটিজুড়ে পাকা ও কাঁচা স্থাপনা বানিয়ে বিশাল বাজারেও পরিণত করা হয়। এমন পরিস্থিতিতে বন্ধ হয়ে পড়ে এ নৌ-পথে ময়মনসিংহ, ভৈরব, নারায়ণগঞ্জসহ দেশের বিভিন্ন অঞ্চলের নৌ-যোগাযোগ। এ সুযোগে কটিয়াদী মডেল থানায় সামনে থেকে দক্ষিণে কুলিয়ারচর উপজেলার আগ পর্যন্ত আড়িয়ালখাঁ নদটিকে জলমহাল হিসেবে তফসিল ভুক্ত করে নেয় উপজেলা প্রশাসন। চালু করে ইজারা প্রথা। রাতারাতি রাজনৈতিক প্রভাব খাটিয়ে এলাকার বিত্তশালী লোকজন নামসর্বস্ব মৎস্যজীবী সমবায় সমিতি গঠন করে অর্থের জোরে ইজারা গ্রহণ করে আড়িয়ালখাঁ নদ জলমহালের। ফলে প্রকৃত জেলে স¤প্রদায় তখন থেকেই উন্মুক্ত জলাশয়ে মাছ ধরার সুযোগ থেকে বঞ্চিত হন।

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই রকম আরো সংবাদ
© সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © 2020-2022 বজ্রকথা।
ডিজাইন ও কারিগরি সহযোগিতায়: Hostitbd.Com