1. admin@bwazarakatha.com : bwazarakatha com : bwazarakatha com
মঙ্গলবার, ১২ জানুয়ারী ২০২১, ০৫:৫১ অপরাহ্ন
ব্রেকিং নিউজ :
বীরগঞ্জে শিশু বিকাশ কেন্দ্রের দক্ষতা বৃদ্ধিমূলক প্রশিক্ষণ দিনাজপুরে যুবলীগ সভাপতির  উপর হামলার প্রতিবাদে মিছিল কাহারোলে স্কাই আবাসিক হোটেল ও রেস্টুরেন্টের উদ্বোধন ফল চাষে পীরগঞ্জে কৃষকদের আগ্রহ বাড়ছে প্রধানমন্ত্রীর বড় ‘জা’ রওশন আরা ওয়া‌হে‌দের দাফন সম্পন্ন ওএমএসের চাল কালোবাজারে বিক্রির মামলায় ভেন্ডাবাড়িতে আওয়ামী লীগ নেতা গ্রেফতার আজ যারা দরিদ্র অভাবী তারা একদিন অনেক বড় হবে: র‌্যাব-১৩ প্রধান রওশন আরা ওয়াহেদ রানীর মৃত্যুতে স্পীকারের শোক প্রকাশ নির্বাচন কমিশনের পদত্যাগের দাবিতে রংপুরে বিএনপির মানববন্ধন বিলুপ্তির পথে কিশোরগঞ্জের অর্ধশত প্রজাতির দেশি মাছ

ইংরেজি নববর্ষের পূর্ববৃত্তান্ত

  • আপডেট সময় : শুক্রবার, ১ জানুয়ারী, ২০২১
  • ১৮ বার পঠিত

-শেখ একেএম জাকারিয়া

সৌরমন্ডলের বাইরে কোনো নির্দিষ্ট বিন্দু থেকে দৃষ্ট পৃথিবীর সূর্য পরিক্রমণের সময় হলো বর্ষ বা বছর। পৃথিবীর প্রতিটি দেশে বছরের প্রথম দিনকে মানবজাতি মহানন্দে বরণ করে থাকে। এবারও এর ব্যতিক্রম হয়নি। বারো মাসকাল চক্রাকারে ভ্রমণ করে আমাদের মধ্যে উপস্থিত হয়েছে নতুন বর্ষ ২০২১। সমগ্র পৃথিবীর মানুষজন আড়ম্বরপূর্ণ তুবড়ি পটকা, বা আগুনের খেলা প্রভৃতি বাজির মাধ্যমে বরণ করে নেয় নতুন বছরকে। কিন্তু কীভাবে সূত্রপাত হয়েছিল এই ইংরজি নববর্ষের, আমরা অনেকেই হয়তো সে ইতিহাস জানি না। জানার প্রয়োজনও মনে করি না।
তাই আসুন, এখনই জেনে নিই ইংরেজি নববর্ষ প্রচলনের পূর্ববৃত্তান্ত। আমরা যে ইংরেজি সাল বা খ্রিস্টাব্দ অনুসরণ করি তা হচ্ছে গ্রেগরিয়ান ক্যালেন্ডার, এ সম্বন্ধে নুনাধিক সবাই অবগত। এ ক্যালেন্ডার অনুসারে ইংরেজি নববর্ষ বা নতুন বছর পালন করা হয়। এই ইংরেজি বর্ষপঞ্জি নিয়েও রয়েছে নানা বাদানুবাদ। সুদূর অতীতে সার্বজনীনভাবে জানুয়ারি মাসের প্রথম দিন বা তারিখ অর্থাৎ পহেলা জানুয়ারি নতুন বছরের প্রবর্তন ছিল না। গ্রেগরিয়ান ক্যালেন্ডার বাস্তবিকপক্ষে একটি Solar year বা সৌর বছর। আর এই সময়ে আমরা যে ক্যালেন্ডার দেখতে পাই, তাতে পৌঁছাতে আমাদের কয়েক শত বছর সময় লেগেছে। বই-পত্রাদি ঘেঁটে জানা যায়, খ্রিস্টধর্মের প্রবর্তক যিশুখ্রিস্টের জন্মের ছয়শত বছর আগে অর্থাৎ খ্রিস্টপূর্ব ৬০০ অব্দে স্থিরকরণ করা হয়েছিল নতুন বছরকে অভ্যর্থনা জানাতে পালিত হবে ২৬ মার্চ তারিখটি। অনন্তর সম্রাট নুমা পন্টিলাস যে সময়ে জানুয়ারি ও ফেব্রুয়ারি মাসকে ক্যালেন্ডারে স্থান দেন, সে সময়ে তিনি নির্ধারণ করে দেন পহেলা জানুয়ারি হবে বছরের শুরুকালীন দিন। আর ওই দিনই হবে নতুন বছরের অভ্যর্থনা। কিন্তু পরবর্তীতে সম্রাটের কথাও মানা হয়নি। রোমের অধিবাসী ভাটিক্যান পোপের অনুসারী খ্রিস্টান ধর্ম সম্প্রদায় বিশেষ পোপকে সর্বোচ্চ যাজক এবং অভ্রান্ত বলে মানে এমন খ্রিস্টান ধর্মসম্প্রদায় বিশেষ, যারা (রোমানরা) আগের মতো পহেলা মার্চে বর্ষবরণ উৎসব পালন করতে লাগল। তৎপর জুলিয়াস সিজার সে সময়ে ৩৬৫ দিনে সৌর বছরের ঘোষণা দেন, সে সময়ে তিনিও সম্রাট নুমা পন্টিলাসের মতো নির্ধারণ করেন মার্চে নয়, বছর শুরু হবে পহেলা জানুয়ারি। বর্ষবরণ পর্বও সেদিনই হবে। জুলিয়াস সিজারের ইশতাহার জারির পরপরই বর্ষবরণ অনুষ্ঠান মার্চ থেকে জানুয়ারিতে চলে আসে। সে সময়ে রোমান সাম্রাজ্যে এ দেওয়ালপঞ্জি নিয়ে প্রচুর জটিলতা দেখা দেয়। এ কারণেই মূলত কোন মাস থেকে নতুন বছর শুরু হবে, সেটা ঠিকই করা যাচ্ছিল না। একেক জায়গায় একেক সময়ে একেক দিনে বছরের প্রথম দিন হিসেবে পালিত হতে থাকে। আর এভাবেই নববর্ষ পালনের রীতি হ য ব ও ল অবস্থায় চলতে থাকে দীর্ঘ সময় ধরে।
জুলিয়াস সিজার কর্তৃক প্রচলিত ক্যালেন্ডারে বেশকিছু জটিলতা ছিল। এ জটিলতা দূর করতে চারশ বছর পূর্বে অর্থাৎ ১৫৮২ খ্রিস্টাব্দে রোমের পোপ ত্রয়োদশ গ্রেগরি জ্যোতির্বিজ্ঞানীদের উপদেশে ক্যালেন্ডারটির উৎকর্ষসাধন করেন এবং তার নামানুসারে ক্যালেন্ডারটির নাম করণ করা হয় “গ্রেগরিয়ান ক্যালেন্ডার”। ক্যালেন্ডারটি প্রকাশিত হওয়ার পর বিশেষ সুবিধার কারণে ধীরে ধীরে পৃথিবীর সব দেশের মানুষ গ্রেগরিয়ান ক্যালেন্ডার ব্যবহার শুরু করে। ইতিপূর্বে যারা নিজস্ব ক্যালেন্ডার অনুযায়ী নিজেদের পছন্দমতো বর্ষবরণ অনুষ্ঠান পালন করত, তারাও পরবর্তীতে গ্রেগরিয়ান ক্যালেন্ডার অনুযায়ী পহেলা জানুয়ারি নববর্ষ অনুষ্ঠান পালন শুরু করে। পরে ১৭৫৬ খ্রিস্টাব্দে ব্রিটেনে গ্রেগরিয়ান ক্যালেন্ডার চালু হয়। আর এই ক্যালেন্ডার ব্রিটিশ শাসনামলে ইস্ট ইন্ডিয়া কোম্পানি আমাদের ভারতীয় উপমহাদেশে নিয়ে আসে এবং আজ অবধি তা চলমান রয়েছে।তবে একই দিনে নতুন বছরকে পুরো পৃথিবীর মানুষজন অভ্যর্থনা জানালেও বিভিন্ন অঞ্চলে বা দেশে নববর্ষ পালনের রেওয়াজ ভিন্ন।অন্য দেশের সঙ্গে কিছু মিল থাকলেও নববর্ষের আনন্দানুষ্ঠানের সঙ্গে যোগ হয় দেশে প্রচলিত কৃষ্টি ও ঐতিহ্য। এখানেই শেষ করছি।
শুভ নববর্ষ।কল্যাণ হোক সবার। বছরটি সবার জন্য মঙ্গল বয়ে আনুক, করোনাভাইরাস বিদায় নিক।

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এই রকম আরো সংবাদ

© All rights reserved © 2020 Bwazarakatha.Com
Design & Development By Hostitbd.Com