রবিবার, ২৭ নভেম্বর ২০২২, ১২:১৫ পূর্বাহ্ন
ব্রেকিং নিউজ :
জনগণের কাছে বিএনপি’র ক্ষমা প্রার্থনা করা উচিত-গোপাল এমপি দিনাজপুরে বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে জেলা পরিষদের নবনির্বাচিত সদস্যদের শ্রদ্ধা দিনাজপুর জেলা আ: লীগের ত্রি-বার্ষিক সম্মেলন ২০২২ সফল করতে প্রস্তুতি সভা পার্বতীপুরে এড.মোস্তাফিজুর রহমান এম পি গোল্ডকাপ ফুটবল টুর্নামেন্টের উদ্বোধন গাইবান্ধায় ৮৩ হাজার ৫৭০ জন পাবেন বিনামূল্যে বীজ নেচে-গেয়ে দর্শক মাতালো সাঁওতাল তরুণীরা সাফল্য সাহত্যি সংস্কৃতি পরিবার বাংলাদশে এর লেখক পাঠক মলিনমলো গাইবান্ধা সদরে আশ্রয়ণের ঘর পেয়েও থাকেন ভাড়া বাসায় রংপুরে লেখক পাঠক মিলন মেলা ২০২২ সাদুল্লাপুরে আলু চাষের লক্ষ্যমাত্রা ১২ হাজার ৪০ হেক্টর

উত্তরবঙ্গের বৃহত্তম পাঁচবিবির গরুর হাটে নেই কোন সমাজিক দূরত্বের বালাই

রিপোটারের নাম
  • আপডেট সময় : মঙ্গলবার, ২১ জুলাই, ২০২০
  • ১৫০ বার পঠিত

মোঃ আসাদুজ্জামান, পাঁচবিবি (প্রতিনিধি), জয়পুরহাট।- উত্তর বঙ্গের সবচেয়ে বৃহত্তম পাঁচবিবি গরুর হাট। পাঁচবিবি ভাইরাস সংক্রমণের বড় ঝুঁকি তৈরী করছে গরুর হাটে। পাঁচবিবিতে দিন দিন করোনা ভাইরাসের সংক্রমণ বেড়েই চলছে। ক্রেতা- বিক্রেতা উভয়েই  সমাজিক দূরত্ব মানছেন না,  অনেক গরু ক্রেতা ও বিক্রেতা   ঠিকমত মাস্কও ব্যবহার করছে না। করোনা ভাইরাসের সংক্রমণ মোকাবিলায় দেশ জুড়ে গত ২৬ মার্চ থেকে ৩০ মে পর্যন্ত ৬৬ দিনের সাধারণ ছুটির মধ্যে পাঁচবিবি উপজেলার হাট-বাজার গুলিতে সামাজিক দূরত্ব রক্ষায় মোটামুটি তৎপর ছিল উপজেলা প্রশাসন। কিন্তুু ছুটি শেষে  গরুর হাট সহ অন্যান্য হাট-বাজার গুলোতে সামাজিক দূরত্ব রক্ষায় উপজেলা প্রশাসনের তদারকিও থেমে গেছে। আবার হাট-বাজার গুলোতে ক্রেতা ও বিক্রেতারা মাস্ক পড়ার ক্ষেত্রে অনেকটাই উদাসীন। আজ ২১ জুলাই পাঁচবিবি হাট ঘুরে দেখা গেছে গরুর হাটে, সবজি বাজার সহ বিভিন্ন দোকানে অনেক ক্রেতা ও বিক্রেতার মুখে মাস্ক নেই অথচ সরকারের নির্দেশনা অনুযায়ী বাইরে চলাচল করার সময় মাস্কের ব্যবহার বাধ্যতামূলক। গরুর হাটে লোকে-লোকারণ্য দুই এক জন বাদে অনেকেরই মুখে মাস্ক দেখা যায়নি। যদিও হাট ইজারাদার মাইকিং এর মাধ্যমে সামাজিক দূরত্ব ও স্বাস্থ্যবিধি মেনে হাট বসার কথা বলছে কিন্তু ইজারাদার মোটেই গরু হাটে কোন রকম সামাজিক দূরত্ব ও স্বাস্থ্য বিধি মানার ব্যবস্থা করেন নাই। শুধু মাইকিং এ সীমাবদ্ধতা কিন্তু বাস্তবে দেখা যায়নি ।

গত এক মাসে দেশে যে হারে সংক্রমণ ছড়িয়েছে, তার বেশির ভাগই ঈদুল ফিতর কেন্দ্রিক মানুষের বেপরোয়া চলাচলের ফল। একইভাবে আসন্ন কোরবানির ঈদেও যদি সেই চিত্র দেখা যায়, তাহলে আগস্টের দ্বিতীয় সপ্তাহের পর সংক্রমণের আরেকটি বড় ধাক্কা আসবে; যার পরিণতিতে সংক্রমণের এখন যে ধীরগতি রয়েছে বা নিচের দিকে নামার সম্ভাবনা তৈরি হয়েছে, সেটা উল্টা চিত্র ধারণ করে তীব্র হয়ে দীর্ঘমেয়াদি হতে পারে। তাই দেরি না করে এখনই কোরবানির পশুর হাট ব্যবস্থাপনা, অফিস, গার্মেন্ট ও অন্যান্য শিল্প-কারখানায় ছুটির ক্ষেত্রে পরিকল্পনা গ্রহণ এবং তা দ্রুত বাস্তবায়ন জরুরি।

বিশেষজ্ঞদের কেউ কেউ বলছেন, কোরবানির সঙ্গে শুধু ধর্মীয় অনুভূতিই নয়, দেশে বড় একটি শিল্প ও অর্থনৈতিক খাতও যুক্ত। তাই ঈদ কেন্দ্রিক হাট বা পশু কেনাবেচা বন্ধ রাখা যাবে না। তাই পশুর হাটে কিভাবে স্বাস্থ্যবিধি কার্যকর করা যায়, সেদিকে এখনই নজর দিতে হবে।

স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের তথ্য অনুসারে, ঈদুল ফিতরের আগে ২০ মে পর্যন্ত দেশে মোট শনাক্তকৃত করোনা রোগী ছিল ২৬ হাজার ৭৩৮ জন। ঈদের পর ১০ দিন পর্যন্ত প্রতি ২৪ ঘণ্টায় শনাক্ত আড়াই হাজারের কাছাকাছি ছিল। ঈদের আগের পাঁচ দিন ও পরের পাঁচ দিনে শনাক্তসংখ্যা ২০ হাজার বেড়ে ১ জুন দাঁড়ায় ৪৭ হাজার ১৫৩। এর পর থেকে অনেকটা দ্রুত বাড়তে থাকে শনাক্তসংখ্যা। দেশে প্রথম ৫০ হাজার করোনা রোগী শনাক্ত হয় ৮৬ দিনে (৮ মার্চ থেকে ২ জুন—৫২,৪৪৫), পরের ৫০ হাজার ছাড়ায় মাত্র ১৬ দিনে (১৮ জুন—১০২,২৯২) এবং এর পরের ৫০ হাজার পার হতে সময় লেগেছে ১৪ দিন (গতকাল পর্যন্ত ১৫৩,২৭৭)। ঈদের এক সপ্তাহ পর থেকে এক মাসে শনাক্ত হয় এক লাখের বেশি। এ জন্য ঈদুল ফিতর কেন্দ্রিক অনিয়ন্ত্রিত চলাচলকেই বিশেষজ্ঞরা দায়ী করেছেন।তাই, ঈদ উল আযহার পর যেন পরিস্থিতি আরো ভয়াবহ না হয়, কর্তৃপক্ষের এখনই সেদিকে নজর দেয়া জরুরী।

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এই রকম আরো সংবাদ
© সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © 2020-2022 বজ্রকথা।
ডিজাইন ও কারিগরি সহযোগিতায়: Hostitbd.Com