1. admin@bwazarakatha.com : bwazarakatha com : bwazarakatha com
সোমবার, ২৬ জুলাই ২০২১, ১০:৪২ অপরাহ্ন

উপকূলের তিন জেলা ভাসছে জোয়ারের পানিতে

  • আপডেট সময় : শুক্রবার, ৭ আগস্ট, ২০২০
  • ৭৪ বার পঠিত

বজ্রকথা প্রতিবেদক ।- পূর্ণিমা ও বঙ্গোপসাগরে সৃষ্ট লঘুচাপের প্রভাবে উপকূলীয় নদ নদীতে অস্বাভাবিক জোয়ারের সৃষ্টি হয়েছে। এতে বরিশালের হিজলা ও মেহেন্দীগঞ্জ, পটুয়াখালী ও লক্ষ্মীপুরের কমলনগর এবং রামগতি উপজেলা চার থেকে পাঁচ ফুট পানির নিচে তলিয়ে গেছে। নদীতে জোয়ারের পানির এমন উচ্চতা আগে কখনও দেখেননি উপকূলের মানুষ। ফলে লাখো মানুষ পানিবন্দি হয়ে পড়েছেন। ভেসে গেছে হাজারো পুকুর ও খামারের মাছ। ভেঙে গেছে রাস্তাঘাট ও অসংখ্য কাঁচা ঘরবাড়ি। এদিকে নতুন করে বন্যা কবলিত হয়েছে ঢাকার কেরানীগঞ্জ ও গোপালগঞ্জের কয়েকটি উপজেলা। ফরিদপুরের আলফাডাঙ্গায় নদীভাঙনের তীব্রতা বেড়েছে। অন্যদিকে বন্যা পরিস্থিতির উন্নতি হয়েছে গাইবান্ধা ও রাজবাড়ীতে। প্রতিনিধিদের পাঠানো খবর-
বরিশাল :মেঘনা নদীর অতি জোয়ারে বরিশালের দুই উপজেলা হিজলা ও মেহেন্দীগঞ্জের বেশিরভাগ এলাকা তিন-চার ফুট পানির নিচে তলিয়ে গেছে। গত বুধবার বিকেলে এ দুই উপজেলা মেঘনার পানিতে প্লাবিত হয়। মেঘনার সঙ্গে সংযুক্ত বরিশাল ও ভোলা জেলার সবগুলো নদনদীর পানির প্রবাহ বিপৎসীমার ওপর দিয়ে যাচ্ছে। ফলে কীর্তনখোলার পানি বৃদ্ধি পেয়ে বরিশাল নগরীর নিচু এলাকাও প্লাবিত হয়েছে। বুধবার বিকেল ৩টার পর থেকে রাত ৯টা পর্যন্ত পানির নিচে ছিল হিজলা ও মেহেন্দীগঞ্জ উপজেলা। ভাটা শুরু হলে গভীর রাতে পানি নেমে যায়। তবে রয়ে গেছে ক্ষত চিহ্ন। ভেসে গেছে মাছের ঘের, ভেঙে গেছে সড়ক, ক্ষতি গ্রস্থ হয়েছে পানের বরজ। বৃহস্পতিবার দুপুর ১২টার দিকে আবারও জোয়ার শুরু হলে দুই উপজেলার বাসিন্দাদের মধ্যে নতুন করে আতঙ্ক দেখা দেয়। বরিশাল পানি উন্নয়ন বোর্ডের (পাউবো) উপসহকারী প্রকৌশলী মো. মাসুম জানান, পূর্বদিক থেকে বাতাস বেশি হওয়ায় সাগর থেকে পানির চাপ ছিল বেশি। আবার উত্তরাঞ্চলে বন্যার পানি নামতে শুরু করায় ওই পানি মেঘনা হয়ে সাগরের দিকে প্রবাহিত হচ্ছে। এ দুইয়ে মিলে মেঘনায় পানি অস্বাভাবিক বৃদ্ধি পায়।
পটুয়াখালী :দু’দিন ধরে পটুয়াখালীর উপকূল পানিতে ভাসছে। বৃহস্পতিবার দুপুরে লোহালিয়া নদীতে জোয়ারের পানি আরও বৃদ্ধি পেয়ে জেলার রাঙ্গাবালী, গলাচিপা, কলাপাড়া, দশমিনা, বাউফল, মির্জাগঞ্জ ও দুমকি উপজেলার অর্ধশত চর প্লাবিত হয়েছে। স্বাভাবিকের চেয়ে দুই থেকে তিন ফুট জোয়ারের পানি বৃদ্ধি পাওয়ায় তলিয়ে গেছে এসব চরের মানুষের বাড়িঘর ও ফসলি জমি। এদিকে পটুয়াখালীর শহর রক্ষা বাঁধের স্লুইস গেট দিয়ে জোয়ারের পানি ঢুকে তলিয়ে গেছে বিভিন্ন এলাকা।
কমলনগর (লক্ষ্মীপুর) :মেঘনা নদীর অস্বাভাবিক জোয়ারের পানিতে লক্ষ্মীপুরের কমলনগর ও রামগতি উপজেলার নিম্নাঞ্চল প্লাবিত হয়ে পড়েছে। পূর্ণিমার প্রভাবে বুধবার বিকেল থেকে মেঘনার জোয়ারে পানি স্বাভাবিকের চেয়ে পাঁচ থেকে ছয় ফুট বেড়ে যাওয়ায় এ অবস্থার সৃষ্টি হয়েছে। এতে দুই উপজেলার নিম্নাঞ্চলীয় এলাকার প্রায় অর্ধলাখ মানুষ পানিবন্দি হয়ে থাকাসহ দেড় সহ¯্রাধিক কাঁচাঘর ক্ষতি গ্রস্থ হয়েছে। জোয়ারে প্রায় ১০ হাজার হাঁস-মুরগি মারা যাওয়ার পাশাপাশি সহ¯্রাধিক পুকুর ও ঘেরের মাছ ভেসে যাওয়ার খবর পাওয়া গেছে।
গোপালগঞ্জ :গোপালগঞ্জে মধুমতি বিল রুট চ্যানেলের পানি বিপৎসীমা স্পর্শ করেছে। এতে নতুন নতুন এলাকা প্লাবিত হয়েছে। এ ছাড়া সদর উপজেলার মানিকদাহ ও জালালাবাদে মধুমতি নদীতে ভাঙন শুরু হয়েছে। স্থানীয়রা আতঙ্কের মধ্যে রয়েছেন। নদীর পানি বৃদ্ধি অব্যাহত থাকায় জেলায় প্রতিদিনই নতুন নতুন এলাকা প্লাবিত হচ্ছে। গোপালগঞ্জ সদর, কাশিয়ানী, মুকসুদপুর ও কোটালীপাড়া উপজেলার অন্তত ৩০ গ্রামের তিন হাজার পরিবার পানিবন্দি হয়ে পড়েছে। ৫০০ পরিবার শিক্ষা প্রতিষ্ঠান, ইউনিয়ন পরিষদ ও উঁচু সড়কে আশ্রয় নিয়েছে।
কেরানীগঞ্জ (ঢাকা) :বুড়িগঙ্গা, ধলেশ্বরী ও কালিগঙ্গা নদীর পানি বৃদ্ধি পেয়েছে। এতে বন্যার পানি কেরানীগঞ্জে প্রবেশ করেছে। ডুবে গেছে রাস্তাঘাট। গতকাল বৃহস্পতিবার বিকেলে দেখা গেছে, বুড়িগঙ্গা নদীর পানি শুভাঢ্যা খাল দিয়ে কেরানীগঞ্জের শুভাঢ্যা, কালিন্দী, মধ্যেরচর ও বাস্তা এলাকায় প্রবেশ করেছে। তলিয়ে গেছে অর্ধশত মাছের খামার। কালিন্দী এলাকার গদাবাগ, ভাংনা, আতাশুর ও বাস্তার কিছু অংশ তলিয়ে গেছে।
গাইবান্ধা :জেলার সব নদনদীর পানি এখন বিপৎসীমার নিচে। ফলে বন্যা পরিস্থিতির উন্নতি হচ্ছে। ঘরবাড়িতে ফিরতে শুরু করেছেন বানভাসিরা। জেলা প্রশাসক আবদুল মতিন জানিয়েছেন, বন্যার্তদের মধ্যে ত্রাণ তৎপরতা অব্যাহত রয়েছে।
রাজবাড়ী :রাজবাড়ীতে পদ্মা নদীর পানি আরও কমে যাওয়ায় বন্যা পরিস্থিতির উন্নতি হয়েছে। বাড়ি ফিরতে শুরু করেছেন বানভাসি মানুষ। এদিকে চলতি বন্যায় জেলার কয়েক হাজার বিঘা জমির ফসল তলিয়ে নষ্ট হয়ে গেছে।
আলফাডাঙ্গা (ফরিদপুর) :আলফাডাঙ্গার বিভিন্ন স্থানে মধুমতী নদীর ভাঙন তীব্র আকার ধারণ করেছে। উপজেলার বাজড়া, চরডাঙ্গা, চর আজমপুর, রায়ের পানাইল, চাপুলিয়া ও দক্ষিণ চরনারানদিয়া গ্রামের জিরো পয়েন্টে নদীভাঙনে কয়েকশ’ পরিবারের বসতঘর, পাকা সড়ক নদীতে বিলীন হয়েছে। ইতোমধ্যে মধুমতীর ভাঙনে উপজেলার সঙ্গে টগরবন্দ ইউনিয়নের পাঁচ গ্রামের যোগাযোগের সড়কটি বিচ্ছিন্ন হয়ে গেছে।
মধুপুর (টাঙ্গাইল) :মধুপুরে বন্যা ও জলাবদ্ধতায় বিএডিসির চলতি আউশ ও আমনের জমি প্লাাবিত হয়েছে। মধুপুরের কাকরাইদ এলাকায় অবস্থিত মধুপুর বীজ উৎপাদন খামারের ৩৪৫ একর আবাদি জমির মধ্যে ২৫০ একর জমি চলমান বন্যা ও জলাবদ্ধতার কারণে প্লাবিত হয়েছে।

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এই রকম আরো সংবাদ

© All rights reserved © 2020 Bwazarakatha.Com
Design & Development By Hostitbd.Com