বুধবার, ১৭ জুলাই ২০২৪, ০৩:০৩ পূর্বাহ্ন
ব্রেকিং নিউজ :
কোটা বিরোধী আন্দোলনে নিহত শিক্ষার্থী সাঈদের বাড়ীতে শোকের মাতম নেটওয়ার্কের সক্ষমতা বাড়াতে এআই যুক্ত করার ঘোষণা হুয়াওয়ের রংপুরে কোটা বিরোধী আন্দোলন এক শিক্ষার্থী নিহত তৃণমূল পর্যায়ে চিকিৎসার মান উন্নত করলে বেসরকারি হাসপাতাল ও ক্লিনিক রোগী শুন্য হবে-স্বাস্থ্যমন্ত্রী   পার্বতীপুর প্রেসক্লাবের উদ্যোগে নবনির্বাচিত উপজেলা চেয়ারম্যান ও ভাইসচেয়ারম্যানদের সংবর্ধনা বন্যার পানিতে সাঁতরে বন্যার্তদের ত্রাণ সংগ্রহ পার্বতীপুর পৌরসভায় মৌসুমি ফল উৎসব বড় পুকুরিয়া কয়লা খনির কারণে ক্ষতিগ্রস্তদের মানববন্ধন পার্বতীপুর পৌরসভায়  ড্রেন নির্মান কাজের উদ্বোধন দিনাজপুর-বিরামপুর -ঘোড়াঘাট সড়কে প্রতিনিয়ত দুর্ঘটনা ঘটছে

এখন কিছু চাইলেই সরকার পাশে এসে দাড়ায়-  সুলতান আহমেদ সোনা

রিপোটারের নাম
  • আপডেট সময় : সোমবার, ২১ জুন, ২০২১
  • ১৯১ বার পঠিত

এক সময় জনগণ থেকে রাষ্ট্র ও সরকার ছিল অনেকটা দুরে। জনগণ চিৎকার করলেও সরকারের কানে কোন আওয়াজ পৌছতো না। রাষ্ট্রও সাধারণ মানুষের দাবীকে উপেক্ষা করতো। কিন্তু বর্তমানে সেই অবস্থার পরিবর্তন ঘটেছে। এখন রাষ্টের সাথে সাধারণ মানুষের সম্পর্ক নিবিড়। সরকার ও জনগণের সম্পর্ক খুবই ঘনিষ্ট।এখন সরকার সাধারণ মানুষের ডাকে সাড়া দেয়। কিছু চাইলেই পাশে এসে দাড়ায় সরকার ও রাষ্ট্র।

এক সময় মঙ্গার দেশ হিসেবে পরিচিতি পেয়েছিল আমাদের জন্মভুমি।! সাধারণ মানুষ তিন বেলা ভাত খেতে পারেনি, সারা বছর অভাব লেগেই থাকতো। পর্যাপ্ত তরিতরকারীরও পাওয়া যেত না।

আধিকাংশ মানুষের জামা কাপড় ছিল না। গ্রামের ছেলেরা ল্যাংটা থাকতো, কেউ কেউ পড়ত ল্যাংটি। থাকার ভালো বাড়ি ছিল না। খড়ের ছাওনী বেড়া ঘেরার ঘরে বাস করতো মানুষ। অনেকে খোলা আকাশের নিচে ঘুমাতো। চিকিৎসার অর্থ ছিল না বলে ঝাড়-ফুক, তাবিজ-কবজ, পানি পড়া, তেল পড়া, কবিরাজি ও হোমিও চিকিৎসার উপর নির্ভর করতো গরিবরা। লেখাপাড়ার সুযোগ তেমন একটা পায়নি গরিব ঘরের সন্তানরা। অধিকাংশ মানুষ পঞ্চম শ্রেণীর গন্ডি পেরুতে পারে নাই। বিনোদন বলতে ছিল সন্তান উৎপাদন। পায়ে জুতা পর্যন্ত ছিল না! কাঠের খড়ম পড়তো কিছু মানুষ। মানুষ মল মুত্র ত্যাগ করতো যেখানে সেখানে। চলাচলের জন্য পাকা রাস্তা ঘাটও তেমন একটা ছিল না। ঘরের অন্ধকার দুর করতে কুপি জ্বালানো হতো। শহর আর গ্রামের দুরুত্ব ছিল বিস্তর!

এখন মানুষের অবস্থার পরিবর্তন হয়েছে। অন্ন, বস্ত্র,বাসস্থান, শিক্ষা, চিকিৎসা, বিনোদন এর ব্যবস্থা হয়েছে। গ্রামের রাস্তাগুলো পাকা হচ্ছে। ঘরে ঘরে বিদ্যুতের বাতি জ্বলছে। চরম গরমে মাথার উপরে ঘোরে বৈদ্যুতিক পাখা। সুইচ টিপলেই পানি উঠে মাটির গভীর থেকে। প্রায় সবার বাড়িতে স্যানিটারী পায়খানার ব্যবস্থা হয়েছে। সাধারণ মানুষ এখন আর মটির চকি বা বাঁশের টং- এ শোয় না। এখন রিকসাওয়ার ঘরেও আছে ,খাট, ট্রেসিং টেবিল, স্নো,পাউটার,সেন্ট লিপস্টিক। আছে নলকুপ, বিদ্যুৎবাতি, রংঙ্গীন টেলিভিশন, আছে ডিস লাইনের সংযোগ। হাতে হাতে শোভা পায় মোবাইল ফোন। গ্রামের মানুষের রান্নাঘরেও দেখা যায় ফ্রিজ। গ্রামের মানুষ এখন সন্ধ্যে বেলায় আড্ডাদেয় হাট বাজারের চা- এর দোকানে। সারা বিশ্বের খবর শোনে টেলিভিশনে। তারাও দেশের রাজনীতি আর বিদেশের ঘটনা নিয়ে আলোচনা সমালোচনায় মাতে। অনিয়ম-দুর্নীতি, অন্যায়- অবিচারের উঁকুন মারে।

এখন গ্রামের ছেলে – মেয়েরাও জিন্স পরে। সুন্দর সুন্দর জামা কাপড় জুতা পরে ঘুরে বেড়ায়। গ্রাম ও শহরের দুরুত্ব কমছে এখন।আজ কাল গ্রামে গ্রামে স্কুল হয়েছে। ইউনিয়ন পর্যায়ে কলেজ হয়েছে। মাটি বা চাটাইয়ের ঘর নেই বল্লেই চলে। ইট দিয়ে পাকা বাড়ি বান্নাচ্ছে গ্রামের মানুষ। ইন্টারনেট, কম্পিউটার, ফটোষ্ট্যাট মেশিন, জন্ম দিনের কেক, কফি, আইসক্রিম, চকোলেট সব পাওয়া যায়। গ্রাম আর গ্রামে নাই, শহরের সুযোগ সুবিধা এখন গ্রামের মানুষের হাতের নাগালে।আপনি চাইনীজ খেতে চাইলেও খেতে পারবেন এখন। তবে হ্যা গ্রামে এসে বার কিংবা ফাইভষ্টার হোটেল খুজবেন কিন্তু।

আজ কাল সাধারণ গ্রামের মানুষও মাঝে মধ্যে বাড়িতে পোলাও রান্না করে। তাদের ছেলে মেয়েরাও উপর ক্লাসে লেখা পরা করছে। গ্রামেও কিন্ডার গার্টেন স্কুল হয়েছে। অনেকে অনার্স ক্লাসের শিক্ষার্থী এখন। সরকার এখন উপবৃত্তি দিচ্ছে।ফোনে ফোনে টাকা পৌছে যাচ্ছে শিক্ষার্থীদের কাছে। সরকার এখন নানা রকম ভাতা দিচ্ছে মানুষকে। খাদ্য সহায়তা দিচ্ছে। পাকা ঘরও দিচ্ছে । সরকারের দেয়া এই সুযোগ সুবিধা মানুষের ভাগ্য পরিবর্তনে অসামন্য অবদান রেখেছে।

তার পরেও কেউ সংকটে পড়লে ৯৯৯ -এ কিংবা ৩৩৩ – তে কল করলেই মুহুর্তে পাশে দাড়াচ্ছে সরকারের প্রশাসন। বাহ ! কী ম্যাজিক !!

গত ২০ জুন/২১খ্রি: রবিবার দুপুরে দেখলাম, ৪৫জন মানুষ ৩৩৩ নম্বরে ফোন দিয়েছিল খাদ্য সহায়তার জন্য। দেখেছি তাদেরকে ডেকে এনে পীরগঞ্জ উপজেলা প্রশাসন আনুষ্ঠানিক ভাবে আর্থিক সহায়তা প্রদান করেছে। দেখেছি উপজেলা নির্বাহী অফিসার বিরোদা রাণী রায়,কনফারেন্স রুমে বসিয়ে সকলের সাথে হাসি মুখে কথা বললেন। তাদের খোঁজ খবর নিলেন। পিআইও মিজানুর রহমান সাহায্য প্রার্থীদের উপদেশ দিলেন। বিষয়টি ভালো লেগেছে।

সত্যি কথা বলতে কী, এমনটা আগে দেখার সুযোগ হয় নাই। সরকার ও প্রশাসনের এই উদারতায় অনেকের মত আমি মুগ্ধ হয়েছি। বিশ্বাস করি, দেশ এগুচ্ছে দেশ আরো এগুবে। বিশ্বাস করি, আমাদের স্বাধীন বাংলাদেশের চেহারা পাল্টে যাবে। বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনার নেতৃত্বে মাথা তুলে দাড়াবে দেশ,স্বনির্ভর হবে বঙ্গবন্ধুর সোনার বাংলা।

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই রকম আরো সংবাদ
© সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © 2020-2022 বজ্রকথা।
ডিজাইন ও কারিগরি সহযোগিতায়: Hostitbd.Com