সোমবার, ২৮ নভেম্বর ২০২২, ০৯:২২ অপরাহ্ন
ব্রেকিং নিউজ :
দিনাজপুরে ধর্ষণের শিকার প্রতিবন্ধী ধর্ষক আটক সোনার বাংলা গড়তে হলে সোনার মানুষ প্রয়োজন-মনোরঞ্জন শীল দিনাজপুরে মৎস্যজীবী লীগ ৪নং শেখপুরা ইউনিয়ন কমিটি গঠন জনগণের কাছে বিএনপি’র ক্ষমা প্রার্থনা করা উচিত-গোপাল এমপি দিনাজপুরে বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে জেলা পরিষদের নবনির্বাচিত সদস্যদের শ্রদ্ধা দিনাজপুর জেলা আ: লীগের ত্রি-বার্ষিক সম্মেলন ২০২২ সফল করতে প্রস্তুতি সভা পার্বতীপুরে এড.মোস্তাফিজুর রহমান এম পি গোল্ডকাপ ফুটবল টুর্নামেন্টের উদ্বোধন গাইবান্ধায় ৮৩ হাজার ৫৭০ জন পাবেন বিনামূল্যে বীজ নেচে-গেয়ে দর্শক মাতালো সাঁওতাল তরুণীরা সাফল্য সাহত্যি সংস্কৃতি পরিবার বাংলাদশে এর লেখক পাঠক মিলনমেলা

ঐতিহ্য হারাচ্ছে কাঁসা-পিতলের জিনিসপত্র

রিপোটারের নাম
  • আপডেট সময় : বুধবার, ৭ অক্টোবর, ২০২০
  • ২৪১ বার পঠিত

কটিয়াদী (কিশোরগঞ্জ) প্রতিনিধি।- ঢাকার ধামরাইয়ের ঐতিহ্যবাহী কাঁসা-পিতল শিল্প হারিয়ে যাচ্ছে। পূর্বে কাঁসা-পিতল সামগ্রী গ্রামবাংলার ঘরে ঘরে নিত্য ব্যবহৃত সামগ্রী হিসেবে দেখা যেত। কিন্তু আধুনিকতার ছোঁয়ায় এসবের ব্যবহারে ভাটা পড়েছে। ঢাকা জেলার বৃহত্তম উপজেলা ধামরাই এলাকা কাঁসা-পিতলের জন্য বিখ্যাত ছিল এক সময় শুধু দেশের বাইরেও ছিল এর প্রচুর চাহিদা। এছাড়া বিদেশি পর্যটকরা কারুকাজ খচিত কাঁসা-পিতল নিয়ে পছন্দ করতেন। কিন্তু এ কাঁসা-পিতল শিল্পের ঐতিহ্য আজ হারিয়ে যেতে বসেছে। ঐতিহ্যবাহী শিল্পের সঙ্গে জড়িত শিল্পী ও ব্যবসায়ীরা আজ অভাব-অনটনে দিন কাটাচ্ছেন। পৈতৃক পেশা ছেড়ে তারা বিভিন্ন পেশায় চলে যাচ্ছেন। তাদের অভিযোগ, সমস্যা সমাধানে কোনো পদক্ষেপ নেয়নি সরকার। সরেজমিন কথা হয় ধামরাই মেটাল ক্রাপ্টসের স্বত্বাধিকারী সুকান্ত বণিকের সঙ্গে। দীর্ঘ বছর ধরে তার পূর্ব পুরুষ থেকে শুরু করে পঞ্চম বংশধর হিসেবে এ পেশার সঙ্গে তিনি জড়িত। তিনি বলেন, ধামরাই উপজেলা সদরেই লোটা, ঘটি, হাঁড়ি-পাতিল, থালা, গ্লাস, বদনা ও বিভিন্ন শোপিচ, দেবদেবী ও জীব জন্তুর প্রতিকৃতি জিনিসপত্র তৈরির জন্য প্রায় ৩০-৪০টি কারখানা ছিল। বর্তমানে এ কারখানা সংখ্যা ৪-৫টি মতো রয়েছে। প্লাস্টিকের জিনিসপত্র তৈরি হওয়ায় কাঁসা-পিতল ক্রয়ে বেশ ভাটা পড়েছে। তিনি বলেন, কাঁসা-পিতলের তৈরি জিনিসপত্র একবার ক্রয় করলে তা ২০-৩০ বছরের বেশি সময় ব্যবহার করা যায়। তিনি বলেন, সারাদিন কাজ করে এজজন শ্রমিক যা পেত, তার চেয়ে বাইরে কাজ করলে বেশি উপার্জন করতে পারে। দিনদিন শ্রমিকের সংখ্যাও কমে গেছে। এ বিষয়ে উপজেলা নির্বাহী অফিসার আবুল কালাম আজাদ বলেন, তামা-কাঁসা-পিতল ব্যবসায়ীরা যাতে সহজ কিস্তিতে ব্যাংক লোন পান, সেজন্য ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের সঙ্গে কথা বলে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এই রকম আরো সংবাদ
© সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © 2020-2022 বজ্রকথা।
ডিজাইন ও কারিগরি সহযোগিতায়: Hostitbd.Com