বুধবার, ২৯ মে ২০২৪, ০৩:০৩ অপরাহ্ন
ব্রেকিং নিউজ :
রংপুর বিভাগের নব নির্বাচিত উপজেলা চেয়ারম্যান- ভাইস চেয়ারম্যানের শপথগ্রহণ রংপুর সদর উপজেলা পরিষদ নির্বাচন প্রার্থী আওয়ামী লীগের একাধিক নেতা মর্যাদার লড়াই জাতীয় পার্টির বিরামপুর পুলিশ বক্স ও বিট পুলিশিং কার্যালয়ের উদ্বোধন নদীর ভাঙন প্রতিরোধে কার্যকর ব্যবস্থা গ্রহণের দাবি রাস্তা পাকাকরণ কাজে ব্যাপক অনিয়ম  দেখার কেউ নেই “স্বাধীনতা সুবর্ণ জয়ন্তী পুরস্কার ২০২৩” পেল প্রাইম ব্যাংক ইনভেস্টমেন্ট রংপুরে যুবদল নেতা নয়নের মুক্তির দাবিতে মানববন্ধন অনুষ্ঠিত রংপুর নগরীতে  বাড়িতে হামলা সরকারি জমি থেকে অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ  বিরামপুরে প্রাথমিক শিক্ষা সপ্তাহে মা দিবস অনুষ্ঠিত

ঐতিহ্য হারাচ্ছে কাঁসা-পিতলের জিনিসপত্র

রিপোটারের নাম
  • আপডেট সময় : বুধবার, ৭ অক্টোবর, ২০২০
  • ৬৪৬ বার পঠিত

কটিয়াদী (কিশোরগঞ্জ) প্রতিনিধি।- ঢাকার ধামরাইয়ের ঐতিহ্যবাহী কাঁসা-পিতল শিল্প হারিয়ে যাচ্ছে। পূর্বে কাঁসা-পিতল সামগ্রী গ্রামবাংলার ঘরে ঘরে নিত্য ব্যবহৃত সামগ্রী হিসেবে দেখা যেত। কিন্তু আধুনিকতার ছোঁয়ায় এসবের ব্যবহারে ভাটা পড়েছে। ঢাকা জেলার বৃহত্তম উপজেলা ধামরাই এলাকা কাঁসা-পিতলের জন্য বিখ্যাত ছিল এক সময় শুধু দেশের বাইরেও ছিল এর প্রচুর চাহিদা। এছাড়া বিদেশি পর্যটকরা কারুকাজ খচিত কাঁসা-পিতল নিয়ে পছন্দ করতেন। কিন্তু এ কাঁসা-পিতল শিল্পের ঐতিহ্য আজ হারিয়ে যেতে বসেছে। ঐতিহ্যবাহী শিল্পের সঙ্গে জড়িত শিল্পী ও ব্যবসায়ীরা আজ অভাব-অনটনে দিন কাটাচ্ছেন। পৈতৃক পেশা ছেড়ে তারা বিভিন্ন পেশায় চলে যাচ্ছেন। তাদের অভিযোগ, সমস্যা সমাধানে কোনো পদক্ষেপ নেয়নি সরকার। সরেজমিন কথা হয় ধামরাই মেটাল ক্রাপ্টসের স্বত্বাধিকারী সুকান্ত বণিকের সঙ্গে। দীর্ঘ বছর ধরে তার পূর্ব পুরুষ থেকে শুরু করে পঞ্চম বংশধর হিসেবে এ পেশার সঙ্গে তিনি জড়িত। তিনি বলেন, ধামরাই উপজেলা সদরেই লোটা, ঘটি, হাঁড়ি-পাতিল, থালা, গ্লাস, বদনা ও বিভিন্ন শোপিচ, দেবদেবী ও জীব জন্তুর প্রতিকৃতি জিনিসপত্র তৈরির জন্য প্রায় ৩০-৪০টি কারখানা ছিল। বর্তমানে এ কারখানা সংখ্যা ৪-৫টি মতো রয়েছে। প্লাস্টিকের জিনিসপত্র তৈরি হওয়ায় কাঁসা-পিতল ক্রয়ে বেশ ভাটা পড়েছে। তিনি বলেন, কাঁসা-পিতলের তৈরি জিনিসপত্র একবার ক্রয় করলে তা ২০-৩০ বছরের বেশি সময় ব্যবহার করা যায়। তিনি বলেন, সারাদিন কাজ করে এজজন শ্রমিক যা পেত, তার চেয়ে বাইরে কাজ করলে বেশি উপার্জন করতে পারে। দিনদিন শ্রমিকের সংখ্যাও কমে গেছে। এ বিষয়ে উপজেলা নির্বাহী অফিসার আবুল কালাম আজাদ বলেন, তামা-কাঁসা-পিতল ব্যবসায়ীরা যাতে সহজ কিস্তিতে ব্যাংক লোন পান, সেজন্য ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের সঙ্গে কথা বলে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই রকম আরো সংবাদ
© সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © 2020-2022 বজ্রকথা।
ডিজাইন ও কারিগরি সহযোগিতায়: Hostitbd.Com