শনিবার, ০৩ ডিসেম্বর ২০২২, ০৭:৩৮ অপরাহ্ন

কটিয়াদীতে পাঁচ প্যাথলজি ক্লিনিকে অভিযান: ১ লাখ ৫ হাজার টাকা জরিমানা

রিপোটারের নাম
  • আপডেট সময় : শুক্রবার, ১৩ নভেম্বর, ২০২০
  • ১০০ বার পঠিত

কটিয়াদী (কিশোরগঞ্জ) থেকে সুবল চন্দ্র দাস।- কিশোরগঞ্জের কটিয়াদীতে মেয়াদোত্তীর্ণ রিএজেন্ট ব্যবহার করে চলছিল প্যাথলজি ক্লিনিকগুলো। এরপরও প্যাথলজি পরীক্ষার জন্য নেয়া হয় অতিরিক্ত ফি। অথচ নেই কোন রেজিষ্ট্রার, লাইসেন্স, পরিবেশের ছাড়পত্র এমনকি নেই প্রত্যাশিত সেবাও। এরকম পরিস্থিতিতে ১০ নভেম্বর উপজেলার পাঁচটি প্যাথলজি ক্লিনিকে অভিযান পরিচালনা করে মোট এক লাখ পাঁচ হাজার টাকা জরিমানা করেছে ভ্রাম্যমাণ আদালত। বিকালে উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) মো. আশরাফুল আলম ভ্রাম্যমাণ আাদালত পরিচালনা করে এ জরিমানা করেন। যেসব প্যাথলজি সেন্টারকে জরিমানা করা হয়েছে সেগুলো হলো, কেয়ার ডায়াগনস্টিক সেন্টার, মডেল হেলথ কেয়ার, শারমিন ডায়াগনস্টিক সেন্টার, কটিয়াদী ডায়াগনস্টিক সেন্টার এবং মাতৃছায়া ডেন্টাল কেয়ার। এর মধ্যে কেয়ার ডায়াগনস্টিক সেন্টারকে ৫৫ হাজার টাকা, মডেল হেলথ কেয়ারকে ২০ হাজার টাকা, শারমিন ডায়াগনস্টিক সেন্টারকে ১০ হাজার টাকা, কটিয়াদী ডায়াগনস্টিক সেন্টারকে ১০ হাজার টাকা এবং মাতৃছায়া ডেন্টাল কেয়ারকে ১০ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়। কিশোরগঞ্জের সিভিল সার্জন ডা. মো. মজিবুর রহমান জানান, কটিয়াদীতে কেয়ার জেনারেল হাসপাতালের সরকারি অনুমোদন না থাকায় হাসপাতালটি বন্ধের জন্য আমি লিখিত নির্দেশ দিয়েছি। হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ নির্দেশ না মানলে উপজেলা প্রশাসন ও থানা পুলিশের সহযোগিতায় বন্ধ করার প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা করা হবে। এদিকে কিশোরগঞ্জের ভৈরবে বিভিন্ন বেসরকারি হাসপাতাল ক্লিনিকে ভ্রাম্যমাণ আদালতের অভিযান চালিয়ে ১৩ প্রতিষ্ঠানকে ২ লাখ টাকা জরিমানা করে। অভিযান পরিচালনা করেন উপজেলা নির্বাহী অফিসার লুবনা ফারজানা। তার সঙ্গে ছিলেন সহকারী কমিশনার (ভূমি) ও ম্যাজিষ্ট্রেট হিমাদ্রি খিসা, উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. মো. খোরশেদ আলম। মঙ্গলবার দুপুর ১টা থেকে বিকাল সাড়ে ৫টা পর্যন্ত এই অভিযান চলমান ছিল। অভিযানে যাদের জরিমানা করা হয় এসব প্রতিষ্ঠান হলে সাজেদা আলাল হাসপাতালকে ১০ হাজার টাকা, সাঈদ মেমোরিয়াল হাসপাতালকে ১০ হাজার, ফরিদা হেলথ কেয়ারকে ১৫ হাজার, ট্রমা হাসপাতালকে ১৫ হাজার, ভৈরব চক্ষু ক্লিনিককে ৫ হাজার, গ্রামীণ হাসপাতালকে ২০ হাজার, মেডিল্যাব ক্লিনিককে ১০ হাজার, মেঘনা হাসপাতালকে ৫ হাজার, আলামিনকে ২০ হাজার, পদ্মা জেনারেল হাসপাতালকে ৩০ হাজার, ডা. হরিপদ বাবুকে ২০ হাজার, মা ও শিশু জেনারেল হাসপাতালকে ২০ হাজার ও সেন্ট্রাল হাসপাতালকে ২০ হাজার টাকা। উপজেলা নির্বাহী অফিসার লুবনা ফারজানা জানান, অভিযানকালে যেসব হাসপাতাল, ক্লিনিকের কাগজপত্র, লাইসেন্স এবং যন্ত্রপাতি সঠিক পাওয়া যায়নি সেসব প্রতিষ্ঠানকে ভ্রাম্যমাণ আদালতের মাধ্যমে জরিমানা করা হয়। ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের নির্দেশে এই অভিযান চালানো হয়। অভিযান প্রসঙ্গে সহকারী কমিশনার (ভূমি) মো. আশরাফুল আলম বলেন, মেডিকেল প্যাকটিস ও বেসরকারি ক্লিনিক এবং ল্যাবরেটরী নিয়ন্ত্রণ অধ্যাদেশ ১৯৮২ এবং ভোক্তা অধিকার আইন ২০০৯ এর ৪৫ ও ৫১ ধারা অনুযায়ী জরিমানা করা হয়। সেবার মান বৃদ্ধির লক্ষ্যে নিয়মিত এ ধরণের অভিযান পরিচালনা অব্যাহত থাকবে।

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এই রকম আরো সংবাদ
© সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © 2020-2022 বজ্রকথা।
ডিজাইন ও কারিগরি সহযোগিতায়: Hostitbd.Com