বুধবার, ২৯ মে ২০২৪, ০৩:০১ পূর্বাহ্ন
ব্রেকিং নিউজ :
রংপুর বিভাগের নব নির্বাচিত উপজেলা চেয়ারম্যান- ভাইস চেয়ারম্যানের শপথগ্রহণ রংপুর সদর উপজেলা পরিষদ নির্বাচন প্রার্থী আওয়ামী লীগের একাধিক নেতা মর্যাদার লড়াই জাতীয় পার্টির বিরামপুর পুলিশ বক্স ও বিট পুলিশিং কার্যালয়ের উদ্বোধন নদীর ভাঙন প্রতিরোধে কার্যকর ব্যবস্থা গ্রহণের দাবি রাস্তা পাকাকরণ কাজে ব্যাপক অনিয়ম  দেখার কেউ নেই “স্বাধীনতা সুবর্ণ জয়ন্তী পুরস্কার ২০২৩” পেল প্রাইম ব্যাংক ইনভেস্টমেন্ট রংপুরে যুবদল নেতা নয়নের মুক্তির দাবিতে মানববন্ধন অনুষ্ঠিত রংপুর নগরীতে  বাড়িতে হামলা সরকারি জমি থেকে অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ  বিরামপুরে প্রাথমিক শিক্ষা সপ্তাহে মা দিবস অনুষ্ঠিত

কঠিন সময় পার করছে মফঃস্বলের সংবাদপত্র গুলো

রিপোটারের নাম
  • আপডেট সময় : মঙ্গলবার, ৪ আগস্ট, ২০২০
  • ৫৮৬ বার পঠিত

কঠিন সময় পার করছে জেলা ও উপজেলা থেকে প্রকাশিত সংবাদপত্রগুলো। করোনা এর জন্য দায়ি। করোনাভাইরাসের ধাক্কায় সব কিছু এলামেলো হয়ে গেছে। ২০২০ সালের মার্চ মাস থেকে সংবাপত্র প্রকাশনার ক্ষেত্রে বাধা হয়ে হয়ে দাড়ায় করোনা। বন্ধ হয়ে যায় সড়ক যোগাযোগ। শহর বন্দর পড়ে লকডাউনের কবলে। বন্ধ হয়ে যায় ছাপাখানার কাজ। ফলে পত্র পত্রিকার প্রকাশনা ও বিপনন ব্যবস্থায় ধস নামে। বাধ্য হয়ে বন্ধ রাখতে হয় সংবাদপত্রের অফিস। পরিস্থিতি মেনে নিয়ে জীবন বাচাঁতে কর্মীরাদের ছেড়ে দিতে হয়। এখনো এই অবস্থা চলছে। দেশের বড় বড় সংবাদপত্রগুলো আধুনিক সুযোগ সুবিধা, মজবুত আর্থিক ভিত্তির কারনে প্রকাশনা অব্যাহত রাখতে সক্ষম হলেও,উপজেলা পর্যায়ের সংবাদপত্রগুলো মেরুদন্ড সোজা করে দাড়াতে পারছে না। অবশ্য দু’একটি সংবাদপত্র সংকটে থাকলেও দীর্ঘদিনের সুনাম নাম যশ খ্যাতি রক্ষায় অনলাইনে প্রকাশনা অব্যহত রাখার কসরত করছে। ছাব্বিশ বছরের সংবাদপত্র সাপ্তহিক বজ্রকথাও মহা সংকটে রয়েছে। সাপ্তাহিক সংবাদ পত্রগুলো ভবিষ্যতে সচল হতে পারবে কি না তা নিয়ে সন্দহ রয়েছে। কারণ মফঃস্বল থেকে সংবাদপত্র প্রকাশ করা কঠিন কাজ। আর বর্তমান সময়ে সাপ্তাহিক সংবাদ পত্রের কদর খুব একটা নাই। ডিজিটাল যুগে অনেক কিছুই হাতের মুঠোর এসে যাওয়ায়,মানুষ সহজেই খবরা খবর, প্রতি মুহুর্তে ঘটে যাওয়া ঘটনা, সাথে সাথেই জানার সুযোগ পাচ্ছেন। মোবাইল ফোন, টেলিভিশন, ফেসবুক, ইউটিউব হাতে থাকায় এখন সাপ্তাহিক, পাক্ষিক, মাসিক পত্র পত্রিকা,সংবাদপত্রের গুরুত্ব নেই বল্লেই চলে। আমরা দেখেছি দৈনিক সংবাদপত্রে যে সব খবর বা লেখা প্রকাশিত হচ্ছে তার হেড লাইন ছাড়া এখন পাঠক আর কিছু পড়ছেন না। কারণ পাঠক যা পড়তে চান তার সব কিছু আগেই টিভির খবর থেকে জানা হয়ে গেছে। অপর দিকে সব কিছুর ব্যয় বেড়ে যাওয়ায় এবং সাপ্তাহিক সংবাদপত্রগুলোর জন্য বিজ্ঞাপন বরাদ্দ না থাকায়, সার্কুলেশ হ্রাস পাওয়ায়, লাভ তো দুরের কথা টিকে থাকাই দায় হয়ে গেছে। তাই আমরা মনে করি, সংকটাপন্ন সংবাদপত্রগুলোর ব্যাপারে সরকারের গঠনমূলক সিদ্ধান্তে আসা উচিত। এ ক্ষেত্রে আমাদের প্রস্তাবনা হচ্ছে,সংবাদপত্রগুলোকে শতভাগ ডিজিটাল সুবিধার আওতায় আনা হোক। অনুমতি বিহীন সংবাদপত্র গুলোর কার্যক্রম বন্ধ করা হোক, অনলাইন সংবাদপত্রগুলোকে দ্রুত নিয়ম মাফিক রেজিষ্ট্রেশন প্রদান করা হোক। সাপ্তাহিক,অর্ধ সাপ্তাহিক সংবাদপত্রগুলো চাইলে সেগুলোকে অনলাইলে যাবার সুযোগ দেয়া হোক। উপজেলা পর্যায়ের সংবাদপত্রগুলোকে জ্যেষ্ঠতার ভিত্তিতে স্থানীয় সরকার ও স্থানীয় প্রশাসনের বিজ্ঞাপন প্রকাশের সুযোগ প্রদান করা হোক। শেষ কথা সরকার যদি মফঃস্বলের সংবাদপত্রগুলোকে রক্ষা করতে চায়,তা হলে উদার মনে সহযোগিতার হাত বাড়াতে হবে। আমরা এদিকে মাননীয় তথ্যমন্ত্রী মহোদয়ের দৃষ্টি দেয়ার অনুরোধ জানাচ্ছি।

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই রকম আরো সংবাদ
© সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © 2020-2022 বজ্রকথা।
ডিজাইন ও কারিগরি সহযোগিতায়: Hostitbd.Com