1. admin@bwazarakatha.com : bwazarakatha com : bwazarakatha com
রবিবার, ১১ এপ্রিল ২০২১, ০১:২৩ অপরাহ্ন

করোনাভাইরাসের সংক্রমণ উন্নয়নে বাধা সৃষ্টি করছে – প্রধানমন্ত্রী

  • আপডেট সময় : সোমবার, ২৯ মার্চ, ২০২১
  • ১১ বার পঠিত

বজ্রকথা ডেক্স।- ২৮ মার্চ /২১খ্রি: দুপুরে বঙ্গবন্ধু এভিনিউয়ে দলের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে স্বাধীনতা দিবস ও স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী উদযাপন উপলক্ষে আওয়ামী লীগ আয়োজিত আলোচনা সভায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, করোনাভাইরাসের প্রাদুর্ভাব আবার দেখা গেছে। ভাইরাসটা এবার ভিন্নভাবে এসেছে। করোনাভাইরাসের সংক্রমণ উন্নয়নে বাধা সৃষ্টি করছে, তারপরও বাংলাদেশ থেমে থাকবে না। প্রধানমন্ত্রী এদিন গণভবন থেকে ভার্চুয়ালি এ সভায় যুক্ত হয়ে সভাপতির ভাষণে এ সব কথা বলেছেন।তিনি আরো বলেছেন, করেনার প্রাদুর্ভাব কতদূর যাবে, এখনো আমরা তা জানি না। মহামারীর এই নতুন ধাক্কা সামলাতে আমাদের প্রস্তুতি থাকতে হবে। তিনি বলেছেন, করোনাভাইরাসের প্রাদুর্ভাব বাড়ায় অনুষ্ঠান সতর্কতার সঙ্গে করতে হবে। ভ্যাকসিন দেওয়া অব্যাহত থাকবে। তবে কেউ যেন মাস্ক ছাড়া বাইরে না যায়। নিরাপদ দূরত্ব মেনে বসতে হবে। সভা-সেমিনার-কর্মশালা স্বাস্থ্য সুরক্ষা মেনে করতে হবে। যতদূর সম্ভব খোলা জায়গায় কর্মসূচি করতে হবে। ঘরের মধ্যে করলে করোনার প্রাদুর্ভাব আরও বেশি দেখা দেয়। প্রধানমন্ত্রী বলেছেন ঈদের পর শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খোলা হবে স্কুল খুলতে চেয়েছিলাম। এখন আবার করোনাভাইরাসের প্রাদুর্ভাব হঠাৎ করে বেড়ে যাওয়ায় আমরা ঠিক এখন না খুলে ঈদের পর শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খুলে দেব। এই ফাঁকে বিশ্ববিদ্যালয়ের হলগুলোসহ শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে যেসব মেরামত লাগবে সে কাজগুলো সরকার করে দেবে। তিনি বলেন, যেহেতু করোনাভাইরাসের প্রাদুর্ভাব আবার দেখা গেছে এবং এই ভাইরাসটাও আবার ভিন্নভাবে এসেছে, তাই আমাদের ঠিক আগের মতো বিভিন্ন পদক্ষেপ নিতে হবে। কারণ এই প্রাদুর্ভাব কতদিন থাকবে আমরা এখনো জানি না। তিনি বলেছেন, সরকারের পক্ষ থেকে আমরা যা করার করব। কিন্তু দল হিসেবে আওয়ামী লীগকেও মানুষের পাশে থাকতে হবে। তিনি বলেছেন, গেল বছর মানুষের পাশে যেমন দাঁড়িয়েছেন, তেমনি সামনেও মানুষের পাশে দাঁড়াতে হবে। মানুষ যেন কষ্টে না থাকে। তিনি আওয়ামী লীগের প্রত্যেক নেতা-কর্মীকে মানুষের জন্য খাদ্য বিতরণ, মাস্কসহ স্বাস্থ্য সুরক্ষাসামগ্রী বিতরণ ও নানা সহযোগিতার হাত বাড়িয়ে দেওয়ার আহবান জানিয়েছেন। তিনি বলেন, বঙ্গবন্ধুর আদর্শে পরিচালিত হওয়ায় আজ ঘুরে দাঁড়িয়েছে বাংলাদেশ। উন্নয়নশীল দেশের মর্যাদা পেয়েছে। কিন্তু আমাদের এখানে থেমে থাকলে চলবে না, যেতে হবে অনেক দূর। তিনি বলেন, লাখো শহীদের রক্তের বিনিময়ে আমরা যে স্বাধীনতা পেয়েছি, সেই স্বাধীনতার সুফল বাংলাদেশের মানুষের ঘরে ঘরে আমরা পৌঁছে দেব এবং সেটা দেওয়ার মতো দক্ষতা বাংলাদেশ অর্জন করেছে। আর তা অর্জন করেছে বলেই আজকে সারা বিশ্ব বাংলাদেশের জনগণকে সম্মানিত করেছে আমাদের মহান স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী ও মুজিববর্ষে শুভেচ্ছা বার্তা দিয়ে। শেখ হাসিনা বলেছেন, আমাদের প্রতিজ্ঞা, বাংলাদেশে একটি মানুষও ভূমিহীন থাকবে না,গৃহহীন থাকবে না। তিনি বলেছেন, এক ইঞ্চি জমিও যেন অনাবাদি না থাকে। কোনো জলাশয় যেন অনাবাদি না থাকে। খাদ্য উৎপাদন করে নিজেদের প্রস্তুতি রাখতে হবে। যাতে অন্তত খাদ্য সংকট না হয়। আমরা নিজেদের খাদ্য নিজেরাই জোগান নিশ্চিত করে অন্যকেও দেব। তিনি বলেন, প্রত্যেকটা গ্রামের মানুষ শহরের সুযোগ পাবে। অর্থাৎ আমার গ্রাম আমার শহর-এই শহরের নাগরিক সুবিধা গ্রামের মানুষ পাবে। বঙ্গবন্ধু তাঁর সংবিধান ও আইনে যে মৌলিক নির্দেশনা রেখে গেছেন, আমরা সে আলোকেই পথ চলছি। এরই মধ্যে রাস্তাঘাট, পুল, ব্রিজ, ব্যাপকভাবে করছি। তাছাড়া আমরা বিভিন্ন মেগা প্রজেক্ট করছি। এগুলো যখন সম্পন্ন হবে, আমাদের জিডিপির প্রবৃদ্ধি বৃদ্ধি পাবে। অর্থনীতি আরও শক্তিশালী হবে, আরও মজবুত হবে। ব্যবসা-বাণিজ্য বাড়বে। বঙ্গবন্ধু এভিনিউ প্রান্তে বক্তব্য রাখেন দলের সাধারণ সম্পাদক সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের, প্রেসিডিয়াম সদস্য কৃষিমন্ত্রী আবদুর রাজ্জাক, আবদুর রহমান, সাংগঠনিক সম্পাদক এস এম কামাল হোসেন, সাংস্কৃতিক সম্পাদক অসীম কুমার উকিল, আন্তর্জাতিক বিষয়ক সম্পাদক শাম্মী আহমেদ, কার্যনির্বাহী সদস্য মেরিনা জাহান কবিতা, ঢাকা মহানগর আওয়ামী লীগ উত্তর-দক্ষিণের সাধারণ সম্পাদক এস এম মান্নান কচি ও হুমায়ুন কবির। গণভবন প্রান্তে সভা পরিচালনা করেন দলের প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক ড. আবদুস সোবহান গোলাপ।

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এই রকম আরো সংবাদ

© All rights reserved © 2020 Bwazarakatha.Com
Design & Development By Hostitbd.Com