1. admin@bwazarakatha.com : bwazarakatha com : bwazarakatha com
বুধবার, ২১ জুলাই ২০২১, ০৬:২২ পূর্বাহ্ন
ব্রেকিং নিউজ :
রংপুরে ঈদুল আযহা কর্মসূচি গ্রহণ: প্রধান জামাত সকাল ৮টায় সুন্দরগঞ্জে করোনায় কর্মহীন ৪০০ পরিবারের মাঝে ঈদ খাদ্য সামগ্রী বিতরণ  রংপুরে ২৪ ঘণ্টায় মৃত্যু আরও ১১ শনাক্ত ৪৭৪ বগুড়ায় পর্নোগ্রাফি আইনে দুই তরুণ গ্রেফতার দিনাজপুর জেনারেল হাসপাতালে চিকিৎসা সামগ্রী সরবরাহ চেম্বার অব কমার্স এন্ড ইন্ডাস্ট্রির রংপুর মহানগর ছাত্রদলের সাংগঠনিক সম্পাদকের ঈদ শুভেচ্ছা পীরগঞ্জে বিএনপি’র করোনা পর্যবেক্ষণ সেল ও হেল্প সেন্টারের উদ্বোধন নারী ক্ষমতায়ন ও উন্নয়নে সরকার ব্যাপকভাবে কাজ করেছে  -এমপি জুঁই দিনাজপুর নবাবগঞ্জে কোভিড ১৯ এ ক্ষতিগ্রস্তদের মাঝে ঋণ বিতরণ করলেন শিবলী সাদিক এমপি পার্বতীপুুরে করোনা সচেতনতা ও ঈদ যাত্রী সেবা কর্মসূচীর উদ্বোধন

করোনার হাত থেকে বাঁচতে যা যা খাওয়া জরুরি

  • আপডেট সময় : বুধবার, ২২ জুলাই, ২০২০
  • ৯৩ বার পঠিত

মহামারি করোনার হাত থেকে বাঁচতে হলে পরিচ্ছন্নতার সাথে রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধি করতে হবে। দেখে নিন কি কি খাবার খেলে ভালো ফল পাওয়া যেতে পারে।

করোনাভাইরাসের আতঙ্কে দেশজুড়ে লকডাউনের সময়ে সকলেই গৃহবন্দি। এই সময়ে ভাইরাসের সংক্রমণ থেকে দূরে থাকতে গেলে পরিচ্ছন্নতার পাশাপাশি রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ানো দরকার। ইমিউনিটি বাড়াতে বেশ কিছু ভিটামিন, মিনারেলস, অ্যান্টিঅক্সিড্যান্ট ও ট্রেস এলিমেন্ট উল্লেখযোগ্য ভূমিকা নেয়। বিভিন্ন ভিটামিনের মধ্যে উল্লেখযোগ্য ভিটামিন সি, ভিটামিন বি৬, ভিটামিন ই এবং ভিটামিন ডি। ভিটামিন সি-র এক অত্যন্ত ভালো উৎস আমলকি। সম্ভব হলে প্রত্যেক দিন এক টুকরো আমলকি খান। এ ছাড়া ঢ্যাঁড়শ, পটল, কুমড়ো, বিনস, গাজর, উচ্ছে, বাঁধাকপি, নটে শাক, কলমি শাক, ক্যাপসিকাম, বরবটি, কড়াইশুঁটি, পেঁয়াজ, রসুন, আদা, হলুদ সবেতেই আছে পর্যাপ্ত পুষ্টি। বেশিরভাগ সময় বাড়িতে থাকতে হচ্ছে বলে স্বাভাবিক সময়ের তুলনায় কিছুটা কম ক্যালোরিযুক্ত খাবার খাওয়া দরকার। নইলে বাড়তি ক্যালোরি ওজন বাড়িয়ে দেবে। কার্বোহাইড্রেট জাতীয় খাবার যেমন ভাত, রুটি, মুড়ি, চিঁড়ে, সুজি, ওটস পরিমাণে কম খাওয়া উচিত। স্যালাড, ফল, স্যুপ, কল বের করা ছোলা, মুগ, বাদাম খাওয়া যেতে পারে। রোজকারের খাবারে কয়েকটা জিনিস ঢুকিয়ে নিতে পারলেই কিন্তু হতে পারে কেল্লাফতে। কারণ করোনাভাইরাস প্রতিরোধ করতে ইমিউনিটি বা রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়িয়ে তুলতেই হবে। দেখে নিন সেই তালিকা…

লেবু

লেবু ভিটামিন বি সি কার্বহাইড্রেট, প্রোটিন, রিবোফ্লোবিন, ক্যালসিয়াম, ম্যাগনেসিয়াম, জিংক, আয়রন, পটাশিয়াম এবং ফসফরাস সমৃদ্ধ । এতে কোনো সম্পৃক্ত চর্বি ও কোলেস্টেরল নেই। এটি শরীরের পুষ্টি ঘাটতি পূরণ করতে সাহায্য করে।লেবুর উচ্চ ভিটামিন যা শরীরের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধি করে যে কোনো ভাইরাসজনিত ইনফেকশন যেমন- ঠাণ্ডা, সর্দি, জ্বর দমনে লেবু খুব কার্যকরী, ইউরিন ইনফেকশন কমাতেও লেবুর গুরুত্ব রয়েছে।সাম্প্রতিক সময়ে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত রোগীরা আদা মিশ্রিত লেবু পানি খেয়ে অনেক উপকার পেয়েছেন। ব্যাকটেরিয়াল এবং ফাঙ্গাল ইনফেকশনে আক্রান্ত হওয়ার আশঙ্কাও কমায় লেবু। এটি শরীরকে বিভিন্ন রোগ জীবাণুর বিরুদ্ধে প্রতিরোধ গড়ে, এছাড়া মুখের অরুচি দূর করতেও সাহায্য করে।
ক্যান্সার প্রতিরোধ করে।

রসুন
সুস্থ থাকতে রোজ খান এক কোয়া কাঁচা রসুন। সকালে খালি পেটে খেতে হবে এমন নয়৷ বিকেল-দুপুর বা রাতে খেতে পারেন৷ তবে খেতে হবে কাঁচা৷ সাধারণ রসুনেরই একটা কোয়া খেতে পারেন৷ তবে হাই প্রেশার বা কোলেস্টেরল থাকলে খান ৩–৪টি করে৷ এক্ষেত্রে প্রেশার বা কোলেস্টেরলের ওষুধ বন্ধ করবেন না৷ সঠিক খাবার, ব্যায়াম ও চেকআপ চালিয়ে যাবেন। রসুনের অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট সেই ক্ষতি খুব ভাল ভাবে ঠেকাতে পারে৷ যে সমস্ত হৃদরোগী নিয়মিত রসুন খান, তারা অনেক বেশি অ্যাকটিভ থাকেন৷

গুলঞ্চ
গুলঞ্চ একটি দীর্ঘ লতানো উদ্ভিদ। সাধারণত অন্য গাছকে অবলম্বন করে বেড়ে উঠে। কিন্তু এর গুণ অনেক। শারীরিক দুর্বলতা দূর করতে গুলঞ্চের কাঁচা পাতার রস উপকারী। জন্ডিস, হাত-পায়ে জ্বালাপোড়া, বহুমূত্র, অর্শরোগে গুলঞ্চের কাঁচা পাতা ও কাণ্ড দুটোই ব্যবহার হয়। করোনাকে রুখে দেওয়ার মতো গুণ আছে পরিচিত দুই ঔষধি গুলঞ্চ এবং অশ্বগন্ধা-র। বাবা রামদেবের দাবি অনুসারে, ভাইরাস দেহে প্রবেশের পরে সামগ্রিকভাবে শারীরিক ব্যবস্থার উপরে আঘাত হানে। ফলে রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা কমতে থাকে। শরীর দুর্বল হয়। এর পরে ভাইরাসের সংক্রমণে আক্রান্ত দেহকোষের সংখ্যা বাড়তে থাকে। দেহকোষে সংক্রমণের এই শৃঙ্খল ভেঙে দেওয়ার ক্ষমতা গুলঞ্চের আছে বলে দাবি করেছেন পতঞ্জলী আয়ুর্বেদের প্রতিষ্ঠাতা।

চিনাবাদাম
চিনাবাদাম স্বাদেও ভাল। এতে রয়েছে, অজস্র গুণ। চিনাবাদাম যেমন পেট অনেক ক্ষণ ভরা রাখে, তেমনই শরীরে অল্প যেটুকু ফ্যাট প্রয়োজন হয়, তার অনেকটাই পূরণ হয়। কিন্তু রোজ কেন কয়েকটি চিনাবাদাম খাওয়া যেতেই পারে? চিনাবাদামের সঙ্গে কিন্তু ডায়াবিটিস, হৃদরোগের একটা সম্পর্ক রয়েছে। চিনাবাদামের ক্ষেত্রে কার্বোহাইড্রেটের পরিমাণ কম হলেও প্রোটিন এবং ফ্যাটের পরিমাণ যথেষ্ট। এতে রয়েছে প্রচুর পরিমাণে ম্যাগনেসিয়াম। রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে এই মৌল। তাই ম্যাগনেসিয়ামের পরিমাণ সঠিক থাকলে ইনসুলিনের সঠিক কার্যকলাপ বজায় থাকে। এ ছাড়াও চিনাবাদামের ক্ষেত্রে প্রচুর পরিমাণে ফাইবার থাকে। আর্জিনিন এবং হেলদি ফ্যাটের সঙ্গে এই ফাইবারের উপস্থিতি কার্ডিওভাসকুলার ডিজিজ রোগীদের ক্ষেত্রে অত্যন্ত জরুরি।

হলুদ
হলুদকে অনেকসময় মিরাকল হার্ব বা অলৌকিক ভেষজ বলা হয়ে থাকে। হলুদ আমাদের কাছে অত্যন্ত পরিচিত একটা মশলা, রোজকার রান্নায় হলুদ না দিলে রান্নাটাই যেন কেমন অসম্পূর্ণ মনে হয়। বাঙালির হেঁশেলে তো বটেই, শুধু বাঙালিই বা কেন, গোটা ভারত, বা বলা ভালো প্রায় গোটা এশিয়ার রান্নাতেই হলুদ একটা অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ ও জরুরি উপাদান। হলুদ রান্নায় রং তো আনেই, তাছাড়া স্বাদ বা যাকে আমরা বলি ফ্লেভার তার ক্ষেত্রেও হলুদ খুবই প্রয়োজনীয় একটা জিনিস। তবে শুধু রান্নার কাজেই নয়, হলুদের আরও অনেক গুণই আছে, যার বেশীরভাগই আমাদের কাছে অজানা। হলুদে প্রচুর পরিমাণ ফাইবার, পটাশিয়াম, ভিটামিন বি-৬, ম্যাগনেশিয়াম ও ভিটামিন সি থাকে ও কারকিউমিন নামক রাসায়নিক থাকে যা বিভিন্ন রোগের হাত থেকে আমাদের বাঁচায়। সকালে ঘুম থেকে উঠে কাঁচা হলুদ খেলে যে ত্বকের ঔজ্জ্বল্য বাড়ে, খাবার ঠিকমতো হজম হয়।

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এই রকম আরো সংবাদ

© All rights reserved © 2020 Bwazarakatha.Com
Design & Development By Hostitbd.Com