বৃহস্পতিবার, ০৯ ফেব্রুয়ারী ২০২৩, ০৬:০০ অপরাহ্ন

করোনায় বন্যায় দুর্ভোগ যেন মড়ার উপর খাঁড়ার ঘা

রিপোটারের নাম
  • আপডেট সময় : সোমবার, ২০ জুলাই, ২০২০
  • ২৪১ বার পঠিত

সুবল চন্দ্র দাস : চলমান করোনা দুর্যোগের মধ্যেই দীর্ঘস্থায়ী বন্যার শঙ্কা দুশ্চিন্তায় বড় কারণ হয়ে দেখা দিয়েছে। শুক্রবার একটি জাতীয় দৈনিকে প্রকাশিত একটি প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, আগাম প্রস্তুতি না থাকায় বিপাকে পড়ছে বানভাসি মানুষ। সরকারি ভাবে অনেক আশ্রয় কেন্দ্র প্রস্তুত রাখার কথা বলা হলেও বাস্তবতা তুলে ধরছে এর বিপরীত চিত্র। দৈনিক সমকালের প্রতিবেদনেই বলা হয়েছে, গবাদিপশু নিয়ে বানভাসিরা আশ্রয় নিয়েছেন বাঁধের ওপর, কেউবা ঘরের চালে। উত্তরের অনেক জনপদে সংকট মোকাবিলা কঠিন হয়ে পড়েছে। দেশের উত্তর ও পূর্বাঞ্চলে চলতি বন্যা দীর্ঘমেয়াদি রূপ নিতে যাচ্ছে- এমন আভাসই মিলেছে বন্যা পূর্বাভাস ও সতর্কীকরণ কেন্দ্রের দায়িত্বশীলদের তরফে। দুর্যোগ মোকাবিলায় আমাদের দক্ষতা-সাফল্য থাকলেও করোনা-দুর্যোগকালে চলমান বন্যা পরিস্থিতি মড়ার উপর খাঁড়ার ঘা হয়ে দাঁড়িয়েছে। কৃষি বিভাগও আশঙ্কা করছে, জুলাই মাস এ পরিস্থিতির মধ্য দিয়েই যেতে হতে পারে। জুনের শেষ সপ্তাহ থেকে এবারের বন্যায় উত্তরাঞ্চলের ১৫ জেলা প্লাবিত হয়। এরপর দ্বিতীয় দফায় বন্যা দেখা দেয় আরও বিস্তৃত আকারে। বিভিন্ন সংবাদ মাধ্যম সূত্রে প্রকাশ, ইতোমধ্যে প্রায় ১৫ লাখ মানুষ ব্যাপক ক্ষতি গ্রস্থ হয়েছে। আমাদের স্মরণে আছে, ১৯৯৮ সালে দেশের প্রায় অর্ধেকাংশে ৩৩ দিন স্থায়ী বন্যায় জীবন ও সম্পদের যে ক্ষতি হয়েছিল তা সমাজে দীর্ঘ বিরূপ প্রভাব ফেলেছিল। যদি সেই রকম পরিস্থিতি এবারও সৃষ্টি হয়, তাহলে এর বিরূপ প্রভাব হবে আরও বহুমুখী। এই প্রাকৃতিক দুর্যোগ মোকাবিলায় বিশেষ উদ্যোগ ও প্রস্তুতি নেওয়া অত্যন্ত জরুরী করোনা-দুর্যোগে যে মহামারি চলছে এমন প্রেক্ষাপটে বন্যা পরিস্থিতি মোকাবিলায় গতানুগতিক ধারার বাইরে দূরদর্শী উদ্যোগ নিতে হবে। পানিবন্দিদের নিরাপদ আশ্রয়ে সরিয়ে নিতে অধিকতর কার্যকর পদক্ষেপ নেওয়ার পাশাপাশি বন্যা আক্রান্তদের প্রথম চাহিদা খাবার ও বিশুদ্ধ পানি প্রাপ্তি নিশ্চিত করতে বরাদ্দ বাড়ানোর পাশাপাশি সুষ্ঠু ব্যবস্থাপনার ওপর বিশেষ জোর দিতে হবে। যে কোনো দুর্যোগ-দুর্বিপাকে সুযোগ সন্ধানী চক্র অপতৎপরতায় মেতে ওঠে- এই তিক্ত অভিজ্ঞতা আমাদের রয়েছে। এ রকম কিছু যাতে না ঘটে এ জন্য প্রশাসনের দায়িত্বশীলদের কঠোর নজরদারি অত্যন্ত জরুরী। ত্রাণ বিতরণে অনিয়ম-বিশৃঙ্খলা যাতে না হয় এর জন্য সংশ্নিষ্ট সবার দায়বদ্ধতা ও জবাবদিহি নিশ্চিত করতে হবে। বন্যা উপদ্রুত এলাকায় বিশেষ ব্যবস্থায় চিকিৎসা কার্যক্রম চালানো সম ভাবেই জরুরি। পাশাপাশি সরকারি ব্যবস্থাপনায় যাতে মানুষ আশ্রয় কেন্দ্রে সহজে পৌঁছতে পারে তাও নিশ্চিত করা চাই। করোনা সংক্রমণের বিস্তার ঠেকাতে আশ্রয় কেন্দ্র ্রগুলোতে বিশেষ তদারকি ব্যবস্থা জোরদার করাও প্রয়োজন। গবাদি পশুর রোগবালাই ঠেকানোসহ গো-খাদ্যের বিষয়টিও আমলে রাখা অত্যন্ত দরকার। ঈদুল আজহা দূরে নয়। এমতাবস্থায় শুধু সরকারি ত্রাণ তৎপরতাই নয়, প্রয়োজন বেসরকারি উদ্যোগও। করোনা মহামারিকালে সরকারের দায়িত্বশীলরা এমনিতেই হিমশিম খাচ্ছেন। এমন পরিস্থিতিতে ক্ষতি গ্রস্থ মানুষ যাতে যথাযথ ত্রাণ পায় এবং বিপন্ন-বিপযস্তদের পুনর্বাসনের ব্যাপারে তাদেরই অধিকতর তৎপর হতে হবে। বেসরকারি সংস্থাগুলোকে এ দুর্যোগে তাদের কর্মতৎপরতা সে অনুযায়ীই চালানো প্রয়োজন। সরকারের উচিত তাদের এই কর্মতৎপরতায় যুক্ত করা। প্রাকৃতিক দুর্যোগ প্রবণ দেশ হিসেবে আমাদের মৌসুমি পূর্ব প্রস্তুতির কোনো বিকল্প নেই। আমাদের প্লাবন ভূমির বিস্তার ঘটেছে নদনদীর নাব্য হ্রাস পাওয়ায়। এ কারণেই এই বন্যাকালে দেশের বিভিন্ন এলাকায় ভাঙনও দেখা দিয়েছে। নদী ভাঙন ঠেকাতে দরকার নদনদীর যথাযথ শাসন। প্রবল বর্ষণ ও উজান থেকে নেমে আসা পাহাড়ি ঢলে সৃষ্ট বন্যা পরিস্থিতির আরও অবনতির আশঙ্কাই যেহেতু প্রবল, সেহেতু আরও পরিকল্পিত উদ্যোগ নিয়ে সার্বিক তৎপরতা জোরদার করতে হবে কালক্ষেপণ না করে। ঢাকার দিকেও ধেয়ে আসছে বন্যার পানি। বিদ্যমান পরিস্থিতিতে প্রাণিসম্পদ রক্ষায় বিশেষ উদ্যোগ নেওয়া অতি জরুরি। কৃষিনির্ভর অর্থনীতির এই দেশে বন্যাউত্তর কৃষি খাতের দিকে বিশেষ নজর দিতে হবে। ইতোমধ্যে আমনের ব্যাপক ক্ষতি হয়ে গেছে। সামনে আউশের মৌসুম। এ জন্য কৃষককে সর্বতো সহায়তা দিতে হবে। দেশের মানুষ কঠিন সময় অতিক্রম করছে। এই ক্রান্তিকালে সম্মিলিত প্রয়াস ও সরকারের দায়িত্বশীল মহলসহ জন প্রতিনিধিদের স্বচ্ছতা-নিষ্ঠা ও যথাযথ দায়িত্ব পালনের মধ্য দিয়েই সংকট থেকে উত্তরণের পথ মসৃণ হতে পারে।

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এই রকম আরো সংবাদ
© সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © 2020-2022 বজ্রকথা।
ডিজাইন ও কারিগরি সহযোগিতায়: Hostitbd.Com