মঙ্গলবার, ০৬ ডিসেম্বর ২০২২, ০৮:০৫ অপরাহ্ন
ব্রেকিং নিউজ :

করোনা ঝুঁকি উপেক্ষা করে সাপাহারে ঐতিহ্যবাহী জবই বিল দর্শনার্থীদের পদ চারনায় মুখোরিত

রিপোটারের নাম
  • আপডেট সময় : মঙ্গলবার, ৪ আগস্ট, ২০২০
  • ১৭৬ বার পঠিত

বাবুল আকতার, সাপাহার (নওগাঁ) প্রতিনিধি।- মহামারি করোনা ভাইরাসের ঝুঁকি উপেক্ষা করেই সাপাহার উপজেলার ঐতিহ্যবাহী জবই বিলে প্রকৃতি প্রেমীদের উপচে পড়া ভিড় শুরু হয়েছে। ঈদের ছুটিতে বিনোদনের অংশ হিসেবে সব বয়সের মানুষের পদচারণায় মুখোরিত হয়ে উঠেছে জবই বিল এলাকা।
সরেজমিনে গিয়ে দেখা গেছে, ঈদ উপলক্ষে বিলের অথৈয় জলে ছুটে চলছে স্পিড বোর্ড ও নৌকা। হৈ-হুল্লোড়ে মেতে উঠছেন প্রকৃতি প্রেমীর দল। প্রবল বাতাসে ঢেউ এসে ধাক্কা দিচ্ছে রাস্তার দু-ধারে। ছিটে আসা জলরাশি ছুঁয়ে মজা করছেন দর্শনার্থীরা । ঈদের আনন্দে রঙিন হয়ে উঠেছে ছোট-বড় সব বয়সী মানুষের মন।
এখানে প্রকৃতি প্রেমিদের জন্য বিলের জলে স্পির্ড বোর্ড ও নৌকা ঘন্টা চুক্তিতে ভাড়া পাওয়া যাচ্ছে। জবই বিলের রাস্তার দু-ধারে বসেছে হরেক রকমের খেলনা, বাঁশি, বেলুন, ভুঁভুঁজেলা, খাবার সহ অনেক ধরনের দোকান।
ঈদের দিন দুপুরের পর থেকে শুরু হয়েছে উপচেপড়া ভিড়। ঈদের দ্বিতীয় দিন থেকে ব্যাপক হারে বাড়তে থাকে প্রকৃতি প্রেমীদের উপস্থিতি। রাস্তার দু-পাশে দোকান ও গাড়ি পার্কিং করার কারনে যানজট সৃষ্টি হচ্ছে। জবই ব্রীজের দুই দিকে যানজটের কারনে বিলের দুই পাশের লোকজনকে চলাচলে চরম দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে। এ খানে নেই কোন শংৃঙ্খলা, স্থানীয় প্রশাসনের নজর দারী নেই।
গত কয়েক বছর ধরে ঈদের সময় শিশু-কিশোর থেকে শুরু করে সব বয়সের মানুষ সাপাহার উপজেলার জবই বিলে ছুঁটে আসেন। জবই বিলের উপর দিয়ে রাস্তা তার সাথে ব্রীজ আরোও সৌন্দর্য বৃদ্ধি করেছে। রাস্তার দু ধারে পানি আর পানিতে বিনোদন প্রেমিদের নজর কেড়েছে স্প্রিড বোর্ডে চড়ে বিনোদন পিপাসুরা বিলের অপরূপ সৌন্দর্য উপভোগ করছেন। ক্যামেরা ও মোবাইল ফোনে সেলফি ও ছবি ধারণ করছে।
জবই বিলে ঘুরতে আসা দর্শনার্থীগণ জানান, ‘করোনা ভাইরাসের প্রাদুর্ভাবে দীর্ঘদিন ধরে বাইরে ঘুরতে যাওয়া হয়নি। এবারে ঈদকে ঘিরে জবই বিল এলাকায় পরিবার নিয়ে একটু ঘুরতে এসেছি। করোনার ঝুঁকি থাকলেও প্রাকৃতিক সৌন্দর্য উপভোগ করতে প্রতদিন হাজার হাজর মানুষ এখানে ছুটে আসছেন।’

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এই রকম আরো সংবাদ
© সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © 2020-2022 বজ্রকথা।
ডিজাইন ও কারিগরি সহযোগিতায়: Hostitbd.Com