1. admin@bwazarakatha.com : bwazarakatha com : bwazarakatha com
শনিবার, ১০ এপ্রিল ২০২১, ০৪:৩৭ অপরাহ্ন

কিশোরগঞ্জের কটিয়াদীতে কালের সাক্ষী হয়ে টিকে আছে কিংবদন্তি সত্যজিৎ রায়ের পৈতৃক বাড়ি

  • আপডেট সময় : রবিবার, ২ আগস্ট, ২০২০
  • ৭০ বার পঠিত

কটিয়াদী থেকে সুবল চন্দ্র দাস।- বিশ্বনন্দিত চলচ্চিত্রকার সত্যজিৎ রায়ের পৈতৃক বাড়ি কিশোরগঞ্জ জেলার কটিয়াদী উপজেলার ছায়া-সুনিবিড় ছোট গ্রাম মসূয়ায়। বাড়িটির পরতে পরতে লুকিয়ে রয়েছে রায় চৌধুরী পরিবারের স্বর্ণালী ইতিহাস। প্রতিদিন বহু দর্শনার্থী সাহিত্যিক-কবি বাড়িটি পরিদর্শনে আসেন। এই ঐতিহাসিক বাড়িটির পূর্বে রয়েছে শান বাঁধানো ঘাট, পশ্চিমে কয়েক একর জায়গা জুড়ে বাড়ি, পূর্বে প্রাচীর ও সিংহ দরজা ছিল যা এখন নেই। পশ্চিমে জরাজীর্ণ ভবন, যা এখন ভূমি অফিস। তার একটু পশ্চিমে গেলেই ডাকঘর। বাড়ির ভিতরে রয়েছে কারুকার্য খচিত প্রাচীন দালান, বাগানবাড়ী, হাতীর পুকুর, খেলার মাঠ ইত্যাদি। অস্কার বিজয়ী সত্যজিৎ রায়ের পিতামহের স্মৃতিবিজড়িত বাড়িটি এখন সরকারের রাজস্ব বিভাগের তত্ত্বাবধানে আছে। বাংলাদেশ পর্যটন কর্পোরেশনের উদ্যোগে ২০১২ সালে ৫৯ লাখ টাকা ব্যয়ে একটি রেস্ট হাউজ সহ বাড়ির সীমানা প্রাচীর ও রাস্তা ঘাট সংস্কার করা হয়। কালের সাক্ষী এই বাড়িতে ১৮৬০ সালের ১২ মে জন্ম গ্রহণ করেন সত্যজিৎ রায়ের পিতামহ প্রখ্যাত শিশু সাহিত্যিক উপেন্দ্র কিশোর রায় চৌধুরী। তিনি ছিলেন বিখ্যাত শিশু কিশোর পত্রিকা ‘সন্দেশের’ (১৯১৩) প্রতিষ্ঠাতা সম্পাদক। তাঁর বাবার নাম ছিল কালীনাথ রায়। পাঁচ বছর বয়সে নিঃসন্তান চাচা হরি কিশোর রায় চৌধুরী তাঁকে দত্তক পুত্র হিসেবে গ্রহণ করেন। পিতার দেয়া কামদারঞ্জন রায় নাম বদলিয়ে রাখেন উপেন্দ্র কিশোর রায় চৌধুরী। কিন্তু দত্তক পুত্র গ্রহণের বেশ ক‘বছর পর হরি কিশোর রায় চৌধুরী ঔরসে নরেন্দ্র কিশোর রায় চৌধুরী জন্ম গ্রহণ করায় দত্তক পুত্র উপেন্দ্র কিশোরের গুরুত্ব কমতে থাকে। হরি কিশোর রায় চৌধুরী ছিলেন জমিদার। তাঁর স্নেহে লালিত উপেন্দ্র কিশোর ময়মনসিংহ জেলা স্কুল থেকে ১৮৮০ সালে প্রবেশিকা এবং কলকাতা মেট্রোপলিটন ইনস্টিটিউট থেকে বিএ পাস করেন। এদিকে হরি কিশোর রায় চৌধুরী ভবিষ্যতে সম্পদের উত্তরাধিকার নিয়ে ঔরসজাত পুত্র ও দত্তক পুত্রের মাঝে যাতে কোন সংঘাত না বাধে সেজন্য প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ গ্রহণ করেন। এজন্য বাড়ির চার দেয়ালের বাইরে নকশা করে লোহার খুঁটি দিয়ে দত্তক পুত্রের জন্য সম্পূর্ণ আলাদা বাড়ির সীমানা নির্ধারণ করে নেন। লোহার খুঁটিগুলো আজও বিদ্যমান রয়েছে। সীমানা নির্ধারিত বাড়িতে উপেন্দ্র কিশোর রায় চৌধুরীর ঔরসে ১৮৮৭ সালের ৩০ অক্টোবর জন্ম গ্রহণ করেন জ্যেষ্ঠ পুত্র শিশু সাহিত্যিক সুকুমার রায়। সত্যজিৎ রায়ের পিতা সুকুমার রায়ের জন্মের পরই সুকুমার রায়সহ উপেন্দ্র কিশোর চলে যান কলকাতায়। মাঝে মাঝে নিজ বাড়িতে ছেলে মেয়েদের নিয়ে বেড়াতে আসতেন তিনি। তাঁর মেজো মেয়ে পুণ্যলতার অনেক সাহিত্যকর্মের মধ্যে ছোট বেলার দিনগুলোতে সেকালের মসুয়ার বর্ণাঢ্য রায় চৌধুরীর পরিবারের বিবরণী রয়েছে। হরি কিশোর রায় চৌধুরীর মৃত্যুর পর তাঁর পুত্র নরেন্দ্র কিশোর রায় চৌধুরী মসুয়ায় জমিদারী লাভ করেন। উপেন্দ্র কিশোর রায় চৌধুরী হয়ে পড়েন কলকাতা কেন্দ্রিক। নাতি সত্যজিৎ রায়ের জন্ম কলকাতাতেই এবং বেড়ে ওঠা সবই হয়েছে কলকাতায়। মসূয়া গ্রামের ভাঙ্গা-চোরা সত্যজিৎ রায়ের এই পৈতৃক বাড়িটি দিন দিন ধ্বংস হচ্ছে। সত্যজিৎ রায় কোনদিনই এখানে আসেন নি। সবাই জানে এটি সত্যজিৎ রায়ের বাড়ি। এ অঞ্চলের মানুষ মনে প্রাণে এখনও ধরে রেখেছেন বিশ্ববরেণ্য অস্কার বিজয়ী চলচ্চিত্রকার সত্যজিৎ রায়ের ঐতিহাসিক পৈতৃক বাড়িটি। একদা এ বাড়িকে বলা হতো ‘পূর্ব বাংলার জোড়া সাঁকো’। প্রতি বছর বৈশাখ মাসের শেষ বুধবার এ ঐতিহাসিক বাড়িতে অনুষ্ঠিত হয় বৈশাখী মেলা। এই মেলা ছাড়াও ইতিহাসের অন্বেষণে প্রতিদিন বহু দর্শনার্থী সাহিত্যিক-কবি বাড়িটি পরিদর্শনে আসেন। গেল বৈশাখে করোনা ভাইরাস জনিত কারনে এখানে মেলা অনুষ্টান হয় নি। বাড়ীটি সরকারী উদ্যোগে সংস্কার করে এটিকে একটি পর্যটন কেন্দ্র গড়ে তোলার দাবী এলাকার বিশিষ্টজনদের।

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এই রকম আরো সংবাদ

© All rights reserved © 2020 Bwazarakatha.Com
Design & Development By Hostitbd.Com