1. admin@bwazarakatha.com : bwazarakatha com : bwazarakatha com
বুধবার, ১২ মে ২০২১, ০১:৪৪ অপরাহ্ন

কোরবানী এলো যে ভাবে

  • আপডেট সময় : সোমবার, ২০ জুলাই, ২০২০
  • ৪১ বার পঠিত

-হাফেজ মাওলানা আবু সুফিয়ান

কুরবানী আরবী শব্দ। “কুরবুন” থেকে উদগত এর অর্থ নৈকট্য লাভ করা, নিকটতর হওয়া
তবে ইসলামী শরীয়তের পরিভাষায় কুরবানী বলা হয় নির্দিষ্ট মাসের নির্দিষ্ট দিনে নির্দিষ্ট সময়ে নির্ধারিত জন্তুকে আল্লাহ তাআলার নৈকট্য লাভের উদ্দেশ্যে যবেহ করাকে। কুরবানীর মূল উদ্দেশ্য হচ্ছে, এই আমলের দ্বারা আল্লাহর নৈকট্য লাভ করা ।মানবজাতির সূচনালগ্ন হযরত আদম (আঃ)এর যামানা থেকেই কুরবানীর প্রথা বিদ্যমান ছিলো।হযরত আদম (আঃ)এর পুত্র হাবিল কাবিলের মাধ্যমে কুরবানীর সূচনা হয়ে থাকে।আল্লাহ তাআলা তাদের কুরবানী বিষয়ক এই ঘটনা কুরআনুল কারীমে বিশদভাবে বর্ণনা করেছেন এবং রাসূল (সাঃ)কে এই ঘটনা উম্মতের নিকটে যথাযথভাবে বর্ণনা করার নির্দেশও প্রদান করেন।
কুরবানীর সূচনা হযরত আদম (আঃ)এর পুত্রদ্বয় হাবিল কাবিল থেকে হলেও উম্মতে মুহাম্মদীর সম্পর্ক হযরত ইবরাহীম (আঃ)এর পুত্র কুরবানীর অবিস্মরণীয় ঘটনার সাথে। সেই ঘটনার স্মারক হিসেবেই উম্মতে মুহাম্মদীর উপরে কুরবানী ওয়াজিব করা হয়েছে। কুরবানীর তাৎপর্য ও উদ্দেশ্য বুঝবার জন্য এই ঘটনাটি খুবই গুরুত্বপূর্ণ। হযরত ইবরাহীম (আঃ)তার জীবনের প্রায় পুরো সময়টা কাটিয়ে দেন নিঃসন্তান অবস্থায়। অবশেষে তার বয়স যখন ৮৬ বছর তখন তিনি আল্লাহর কাছে দুআ করলেন “পরওয়ার দেগার! আমাকে সৎ পুত্র সন্তান দান করো” তাঁর এই দুআ কবুল হয় এবং আল্লাহ তাআলা তাকে এক পুত্র সন্তানের সুসংবাদ দেন।বৃদ্ধ বয়সের এই সন্তান লালন-পালনের দীর্ঘ কষ্ট সহ্য করার পর যখন বিপদে-আপদে, কাজেকর্মে সাহায্য করবার মত উপযুক্ত বয়সে পৌঁছলো তখন আল্লাহর পক্ষ থেকে হযরত ইবরাহীম (আঃ)নির্দেশ পেলেন,পুত্রকে কুরবানী করার।এই ঘটনা সম্পর্কে কুরআনুল কারীমে আল্লাহ তাআলা বলেন-“অতঃপর যখন পুত্র পিতার সঙ্গে চলা ফেরার মত বয়সে উপনীত হলো,তখন ইবরাহীম (আঃ) বললেন, হে আমার পুত্রধন! আমি স্বপ্নে দেখেছি যে, তোমাকে যবেহ করছি। তুমি ভেবে দেখো কি করবে? সে বললো, হে পিতা! আপনাকে যে নির্দেশ দেয়া হয়েছে, তা আপনি পালন করুন৷ইনশাআল্লাহ! আপনি আমাকে সবরকারীদের মধ্যে পাবেন৷”
(সূরা সফফাত-১০২)
অতঃপর হযরত ইবরাহীম আঃ এই স্বপ্ন সত্যি পরিণত করে দেখালে আল্লাহ তাআলা তাঁর উপরে সন্তষ্ট হয়ে যান। এবং জিব্রাইল (আঃ) কুরবানীর জন্য একটি বেহেশতী দুম্বা নিয়ে উপস্থিত হন। অবশেষে তাই কুরবানী করলেন হযরত ইবরাহীম (আঃ)।এই থেকে উম্মতে মুহাম্মদীর উপরে উপরে এলো কুরবানী।
ইরশাদ হচ্ছে-“আমার নামাজ, আমার কুরবানী, আমার জীবন, আমার মরণ সবই রাব্বুল আলামীনের জন্য নিবেদিত”
(সূরা আনআম-১৬২) ।

লেখক: মোহ্তামিম, দারুল কুরআন সওতুল হেরা মাদ্রাসা।

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এই রকম আরো সংবাদ

© All rights reserved © 2020 Bwazarakatha.Com
Design & Development By Hostitbd.Com