1. admin@bwazarakatha.com : bwazarakatha com : bwazarakatha com
সোমবার, ২২ ফেব্রুয়ারী ২০২১, ০২:২০ পূর্বাহ্ন
ব্রেকিং নিউজ :
পীরগঞ্জে যথাযোগ্য মর্যাদায় আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস পালিত বাণিজ্যমন্ত্রীর সাথে রংপুরে বঙ্গবন্ধু সংসদ ও পাঠাগার ছাত্র ফেডারেশনের নেতৃবৃন্দের সাক্ষাৎ দিনাজপুর পুলিশ লাইনস প্রাথমিক বিদ্যালয়ে নবনির্মিত শহীদ মিনারের উদ্বোধন দিনাজপুর শিক্ষাবোর্ডের আয়োজনে শহীদদের স্মরণে আলোচনা সভা ও দোয়া মাহফিল ঘোড়াঘাটে যুবলীগের শহীদদের স্মরণে পুষ্পাঞ্জলি  অর্পণ বাংলা বর্ণে এসএমএস পাঠালে খরচ ২৫ পয়সা কোন ষড়যন্ত্রই শেখ হাসিনার কাছে পাত্তা পাবে না -মনোরঞ্জন শীল গোপাল এমপি সাপাহারে শহীদ দিবস ও আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস পালিত ফুলবাড়ীতে আর্ন্তজাতিক মাতৃভাষা দিবস পালিত  গভীর শ্রদ্ধা আর ভালোবাসায় রংপুরে ভাষা শহীদদের স্বরণ

গাইবান্ধায় বিক্রি করা সন্তানকে মায়ের কোলে ফিরিয়ে দিলেন ডিসি

  • আপডেট সময় : সোমবার, ৪ জানুয়ারী, ২০২১
  • ১৫ বার পঠিত
বিক্রিত শিশুটির বাবার হাতে একটি ভ্যানগাড়ি, শিশুখাদ্যসহ অন্যান্য খাদ্যসামগ্রী তুলে দিচ্ছেন জেলা প্রশাসক মো. আবদুল মতিন ।- বজ্রকথা

ছাদেকুল ইসলাম রুবেল।- দারিদ্রের কারণে সন্তান বিক্রি করা গাইবান্ধা সদরের রুপার বাজারের সেই আঙ্গুর রাণী ও শাজাহান দম্পতি রোববার পেলেন জেলা প্রশাসকের মানবিক সহায়তা। জেলা প্রশাসক কার্যালয় চত্ত্বরে তাদের হাতে জেলা প্রশাসক মো. আবদুল মতিন তুলে দিলেন একটি ভ্যানগাড়ি, শিশুখাদ্যসহ অন্যান্য খাদ্যসামগ্রী।

জেলা প্রশাসক কার্যালয় সূত্র জানায়, গত ১৮ সেপ্টেম্বর গাইবান্ধার একটি ক্লিনিকে অস্ত্রোপচারের মাধ্যমে সন্তান প্রসব করেন সদরের আঙ্গুর রাণী। ক্লিনিকের বিল হয় ১৬ হাজার টাকা। বিল পরিশোধ করতে না পেরে এবং ভবিষ্যতে লালন পালনের খরচ যোগাতে না পারার শঙ্কায় নবজাতককে ২০ হাজার টাকায় বিক্রি করেন বাবা-মা। বিষয়টি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়িয়ে পড়লে জেলা প্রশাসনের দৃষ্টিগোচর হয়। জেলা প্রশাসক আব্দুল মতিন নিজে টাকা পরিশোধ করে নবজাতকটিকে ফিরিয়ে এনে তার মায়ের কোলে ফিরিয়ে দেন।

৩ জানুয়ারি রবিবার দুপুরে  জেলা প্রশাসক ওই দম্পতিকে দপ্তরে ডেকে এনে একটি ভ্যান, শিশুখাদ্যসহ অন্যান্য খাদ্যসামগ্রী তুলে দেন। এসময় জেলা প্রশাসক তাদের জন্য সবধরণের সাহায্যের আশ্বাস দেন। সহায়তা পেয়ে আঙ্গুর রানী বলেন, সন্তানকে মানুষ করতে পারব না, তাই বিক্রি করতে বাধ্য হয়েছিলাম। কয়েক রাত ঘুমাতে পারিনি। জেলা প্রশাসক আমার ভালবাসার ধন ফিরিয়ে দিয়েছেন।
জেলা প্রশাসক মো. আবদুল মতিন বলেন, এই পরিবারটি যাতে আর কোনো সমস্যায় না পড়ে সেদিকে লক্ষ্য রাখা হবে।

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এই রকম আরো সংবাদ

© All rights reserved © 2020 Bwazarakatha.Com
Design & Development By Hostitbd.Com