মঙ্গলবার, ২৫ জুন ২০২৪, ১২:১২ অপরাহ্ন

গ্রুপিং-দ্বন্দ্বে জর্জরিত রংপুর বিএনপি

রিপোটারের নাম
  • আপডেট সময় : রবিবার, ১০ সেপ্টেম্বর, ২০২৩
  • ১৫৪ বার পঠিত

বিশেষ প্রতিবেদক।- রংপুর মহানগর ও জেলা বিএনপি’র মেয়াদ উর্ত্তীণ কমিটি দিয়েই চলছে দলীয় কার্যক্রম। কমিটি গঠনের দেড় বছর পার হলেও নতুন করে কমিটি গঠনের কোন উদ্যাগ গ্রহণ করেনি দলটি। কমিটির পদবাণিজ্যসহ বির্তকিত ও অযোগ্যরাই গুরুত্বপূর্ণ পদ পেয়েছেন। বিএনপিসহ অঙ্গ সংগঠনগুলোও একই অবস্থা। এমন পরিস্থিতিতে কয়েক ধারায় বিভক্ত হয়ে পড়েছে বিএনপি ও অঙ্গ সংগঠনগুলো। আহবায়ক ও সদস্য সচিবের মধ্যে নিরব বিরোধও চলছে। উপজেলা পর্যায়ে এর রেশ পড়েছে। একারণেই রংপুরে দলটির তৃণমূল পর্যায়ে নেতাকর্মীদের মাঝে হতাশ নেমে এসেছে। তারা দ্রুত সময়ের মধ্যে নতুন কমিটি গঠনের জন্য দলের হাইকমান্ডের কাছে দাবি জানিয়েছেন।
দলীয় সূত্রে জানা গেছে, ২০২২ সালের ১৫ এপ্রিল সামসুজ্জামান সামুকে আহবায়ক ও মাহফুজ-উন-নবী ডনকে সদস্য সচিব করে ৪৩ সদস্য বিশিষ্ট কমিটির অনুমোদদন করা হয়। আর জেলা কমিটির আহ্বায়ক করা হয়েছে সাইফুল ইসলামকে। ৩৬ সদস্যের এই কমিটির সদস্য সচিব করা হয়েছে আনিসুর রহমান লাকুকে। কোন প্রকার সম্মেলন ছাড়াই এই কমিটির অনুমোদন করেন কেন্দ্রীয় কমিটি। তাদের কে ৩ মাসের মধ্যে সম্মেলনের শর্ত দেয়া হয়েছিল।
এদিকে শুরু থেকেই এ কমিটি নিয়ে চরম বিরোধ ছিল। তারা পূর্নাঙ্গ কমিটি গঠন করতে পারেনি। উপজেলা পর্যায় ও ছাত্রদল, স্বেচ্ছাসেব্ক দল, কৃষক দল, মৎস্যজীবি দল, মহিলা দল, তাঁতী দল, জাসাস সহ বিভিন্ন অঙ্গ সংগঠনে অযোগ্যদের শীর্ষ পদ দেয়া হয়েছে বলে অভিযোগ উঠেছে। শীর্ষ পদে দায়িত্ব প্রাপ্তদের মধ্যে অনেকেই অশিক্ষিত, মাদকাসক্ত, সুদের কারবারী ও বির্তকিত কর্মকান্ডের সাথে জড়িত থাকার অভিযোগ রয়েছে।
তিন মাসের কমিটি দিয়ে চলছে এখনো। জেলা আহবায়কের নিজ উপজেলা পীরগঞ্জসহ রংপুর সদর, মিঠাপুকুর, পীরগাছা, বদরগঞ্জ ও গঙ্গাচড়া উপজেলায় চরম ক্ষোভ স্পষ্ট হয়ে উঠেছে। ইতিমধ্যেই প্রকাশ্যে পৃথক কর্মসূচীও পালিত হয়েছে।
এর আগে ২০১৭ সালের ২৬ মে রংপুর মহানগর ও জেলা বিএনপি’র কমিটি দুই বছরের জন্য অনুমোদন দেয় কেন্দ্রীয় কমিটি। এতে মহানগরের বীর মুক্তিযোদ্ধা মোজাফফর হোসেনকে সভাপতি ও শহিদুল ইসলাম মিজুকে সাধারণ সম্পাদক আর জেলায় সাইফুল ইসলাম সাইফুলকে সভাপতি ও রইচ আহমেদকে সাধারণ সম্পাদক করে কমিটি ঘোষণা করে দলটি। তারাও পূর্নাঙ্গ কমিটি গঠনও করতে পারেনি। কমিটি গঠনের শুরু থেকে পদবঞ্চিত আলাদা বলয় গড়ে তুলেছিল।এবার ব্যতিক্রম হয়নি মহানগর বিএনপির সাবেক সাধারণ সম্পাদক শহিদুল ইসলাম মিজু, জেলার সাবেক সাধারণ সম্পাদক প্রয়াত রইচ আহমেদ ও জেলার সাবেক সভাপতি এমদাদুল হক ভরসাসহ একটি পক্ষ নিবর ছিল। তারা নিজেদের মতো করে কর্মসূচী পালন করেন।
এদিকে রংপুর মহানগর ও জেলা বিএনপির রাজনীতি কয়েক ধারায় বিভক্ত হয়ে পড়েছে। আহবায়ক ও সদস্য সচিবের মধ্যে নিবর বিরোধ দেখা দিয়েছে। তারা নিজের বলয় শক্তিশালী করতে বিএনপিসহ অঙ্গ সংগঠনগুলোতে নিজেদের আজ্ঞাবহ লোকদের গুরুত্বপূর্ণ পদ দিচ্ছেন। নানা কৌশলে ইতিমধ্যে উপজেলা-পৌরসভা ও ইউনিয়ন পর্যায়ে কমিটি দেয়া হয়েছে। অশিক্ষিত, মাদক ও বির্তকিত কর্মকান্ডের সাথে জড়িতরা পদ পাচ্ছেন। ত্যাগীরা অমূল্যায়িত হচ্ছেন। এসব কারণে রংপুরে বিএনপির রাজনীতে বিরোধ আরও প্রকট হচ্ছে বলে দলের তৃণমূল নেতাকর্মীরা ধারণ করছেন। এছাড়াও রংপুর জেলা-মহানগর বিএনপির আহবায়ক ও সদস্য সচিবের মধ্যে আলাদা বলয় তৈরি হয়েছে। তারা প্রকাশ্যে বিরোধে জড়িয়ে না পড়লেও নিজের গ্রুপে নেতাকর্মীদের টানতে ব্যস্ত রয়েছেন। একই অবস্থা বিরাজ করছে রংপুর মহানগর ও জেলা ছাত্রদল, যুবদল, তাঁতী দল, মৎস্যজীবি দল, শ্রমিক দল, কৃষকসহ অন্যান্য অঙ্গ সংগঠন গুলোতেও। শীর্ষ নেতৃত্বের বিরোধে তাদের মধ্যেও বিভক্তি ঘটেছে।
নেতাকর্মীদের অভিযোগ, রংপুর মহানগর ও জেলা বিএনপির অভ্যন্তরীণ বিরোধে কমিটি গঠনসহ দলের কার্যক্রমে অনেকটা স্থবিরতা নেমে এসেছে। মাঠ পর্যায়ে বিএনপি এবং অঙ্গ সংগঠনগুলো মাথা তুলে দাঁড়াতে পারছে না। তাছাড়া জেলা ও মহানগরের দু-একজন নেতা দলীয় কর্মীদের খোঁজখবর নিলেও উপজেলা পর্যায়ে নেতারা কর্মীদের এড়িয়ে চলেন। এখন বিএনপি করাই তাদের অপরাধ বলে মন্তব্য করেন কর্মীরা।
এব্যাপারে রংপুর মহানগর বিএনপি’র আহবায়ক সামসুজ্জামান সামু বলেন, বিএনপি দেশের একটি বৃহত্তম দল। এই দলে নানা মতপার্থক্য থাকতেই পারে। এটা স্বাভাবিক বিষয়। প্রতিনিয়ত দলের নেতাকর্মীদের খোঁজখবর নেয়া হচ্ছে। সরকারের বাঁধার কারণে দলীয় কার্যক্রম কিছুটা ব্যহত হচ্ছে।
তৃণমূল নেতাকর্মীদের অভিযোগ রয়েছে,কমিটিতে যারা আছেন তাদের বেশির ভাগ নেতাদের আশীর্বাদপুষ্ট। দলীয় কর্মসূচিসহ সভা-সমাবেশে কর্মী-সমর্থকদের জন্য টাকা খরচ করার ক্ষেত্রে নেতাদের কৃপণতায় দলটিকে রংপুরে আরও পিছিয়ে দিয়েছে বলে অভিযোগ কর্মীদের। রংপুর মহানগর ও জেলার কয়েকজন নেতা ক্ষমতা ধরে রাখার কারণে স্থানীয় বিএনপির রাজনীতি এখন হারিয়ে যেতে বসেছে।
রংপুর মহানগরীর ২৫ নম্বর ওয়ার্ড বিএনপির যুগ্ম আহবায়ক হারুন মিয়া, ২৮ নং ওয়ার্ড বিএনপি নেতা শাহ জালাল, ১৪ নম্বর ওয়ার্ড কমিটির সদস্য মিঠু মিয়া, ৩৩ নং ওয়ার্ড বিএনপির নেতা হানিফ মিয়াসহ বিএনপি ও অঙ্গ দলের বেশ কয়েকজন তৃণমূলের কর্মী জানান, নেতাদের আচরণে কর্মীরা হতাশ। তাদের দাবি, কর্মী সম্মেলনের মাধ্যমে নতুন নেতৃত্ব গড়ে তুলতে হবে। অন্যথায় রংপুরে আগামীতে বিএনপির অস্তিত্ব খুঁজে পাওয়া যাবে না।
এ সম্পর্কে রংপুর জেলা কমিটির সভাপতি সাইফুল ইসলাম বলেন, দলের ভেতর রাজনৈতিক সংকট যা তা হল বর্তমান সরকারের দমনপীড়ন নীতি। এছাড়া নিজেদের ভেতর কোনো কোন্দল নেই। আমরা মাঠ পর্যায়ে দলকে শক্তিশালী করতে কাজ করছি। জনগণের পাশে রয়েছি। পদ বাণিজ্য ও অযোগ্যদের পদে অসীন করার ব্যাপারে প্রশ্ন করা হলে তিনি বলেন, কোন প্রশ্নই আসে না।

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই রকম আরো সংবাদ
© সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © 2020-2022 বজ্রকথা।
ডিজাইন ও কারিগরি সহযোগিতায়: Hostitbd.Com