1. admin@bwazarakatha.com : bwazarakatha com : bwazarakatha com
সোমবার, ২৭ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০২:০৪ পূর্বাহ্ন
ব্রেকিং নিউজ :

টাঙ্গাইলে একই পরিবারের চারজনকে গলা কেটে হত্যা : রহস্য উদঘাটনে তৎপর পুলিশ

  • আপডেট সময় : শনিবার, ১৮ জুলাই, ২০২০
  • ৪৪ বার পঠিত

বজ্রকথা রিপোর্ট : টাঙ্গাইলের মধুপুরে একই পরিবারের চারজনকে গলা কেটে ও মাথা থেঁতলে হত্যা করা হয়েছে। মধুপুর পৌর শহরের উত্তরা আবাসিক এলাকার গণি মিয়ার বাড়িতে এ ঘটনা ঘটে। দু-তিন দিন আগে তাদের হত্যা করা হয়েছে বলে ধারণা করা হচ্ছে। নিহতরা হলেন বাড়ির মালিক ওসমান গণি (৪৫), স্ত্রী তাজিরন ওরফে বুচি (৩৭), তাদের ছেলে তাইজুল ইসলাম তাজেল (১৬) ও মেয়ে সাদিয়া (৯)। শুক্রবার সকালে স্থানীয়দের কাছে খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে উপস্থিত হয় পুলিশ। পরে পুলিশ সুপার ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন। তার উপস্থিতিতে পিবিআই, সিআইডির বিশেষ শাখার সংশ্লিষ্টরা তদন্ত কার্যকক্রম শুরু করেন। শুক্রবার দুপুরে লাশের সুরতহাল শেষে ময়না তদন্তের জন্য টাঙ্গাইল শেখ হাসিনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হয়। স্থানীয়রা জানান, নিহত ওসমান গণি একই উপজেলার গোলাবাড়ী গ্রামের বাসিন্দা। তিনি মধুপৃুর পৌর শহরের উত্তরা আবাসিক এলাকায় শ্বশুর আবু তাহেরের বাড়ির পাশে বসতি স্থাপন করে পরিবার নিয়ে বাস করছেন। তিনি রিকশাভ্যান ব্যবসায়ী। পাশাপাশি এলাকায় সুদের ব্যবসা করতেন। তাজিরন গৃহিণী, ছেলে তাইজুল স্থানীয় একটি কলেজে উচ্চ মাধ্যমিক দ্বিতীয় বর্ষের ছাত্র। পড়াশোনার পাশাপাশি মধুপুর বাসস্ট্যান্ডে ময়না ড্রাগস নামে ওষুধের দোকানে বিক্রয় কর্মী হিসেবে কর্মরত ছিল তাইজুল। মেয়ে সাদিয়া টেকিপাড়া বয়েল মোড়ের একটি মহিলা মাদ্রাসায় পড়ত। এলাকার একাধিক বাসিন্দা জানান, গত বুধবারের পর তাদের কোনো খোঁজ খবর ছিল না। ময়না ড্রাগস কর্তৃপক্ষ জানায়, তাইজুল গত বুধবার থেকে দোকানে আসছিল না। নিহত তাজিরনের চাচি মনিরা বেগম জানান, গত বুধবার বিকেলে ওসমান গণির কাছে ঈদ উপলক্ষে টাকা ধার চাইতে গিয়ে বাসায় তালা দেখে ফেরত আসেন। বৃহস্পতিবার সকালে গিয়েও দেখেন গেটে তালা। ওসমান পরিবার নিয়ে গোলাবাড়ীতে আছেন ভেবে সেখানে গিয়েও তাদের না পেয়ে সন্দেহ হয়। ওসমানের পরিবারের সবার মোবাইল ফোন বন্ধ ছিল। তাদের বড় মেয়ে সোনিয়ার কাছে ফোন করে তার বাবার পরিবারের সবার খোঁজ করলে মেয়ে জানান, তারা সেখানেও যাননি। সম্ভাব্য সব জায়গায় সন্ধান শেষে ওসমান গণির শ্যালক সাইফুল তার মাকে নিয়ে শুক্রবার সকালে বোনের বাসায় গিয়ে গেটে তালা দেখে রাস্তার পাশের কাচের জানালায় উঁকি দেন। এ সময় তিনি ভেতরে তার ভগ্নিপতির গলাকাটা মরদেহ দেখতে পান। তারপর গেটের তালা ভেঙে ভেতরে ঢুকে একটি কক্ষের বিছানায় তার বোন ও ভাগনির মরদেহ এবং অন্য একটি কক্ষের খাটের সঙ্গে বাঁধা ভাগিনার লাশ দেখতে পান। দুর্বৃত্তরা বাড়ির শোকেচ সহ একাধিক কাচের জিনিস ভাঙচুর করেছে এবং বাড়িতে থাকা এলইডি টিভি নিয়ে গেছে। গণির পরিবারের কারও মোবাইল ফোনও পাওয়া যাচ্ছে না, তবে কয়েক দিন আগে তাইজুলকে ৮০ হাজার টাকায় কিনে দেওয়া মোটর সাইকেল খোয়া যায়নি। বিষয়টি জানাজানি হলে ঘটনাস্থলে এসে বাড়িটি ঘিরে রাখে পুলিশ এবং আলামত সংগ্রহের পাশাপাশি স্থানীয়দের কাছ থেকে তথ্য সংগ্রহ করেছে তারা। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক ওসমান গণির কয়েক প্রতিবেশী এবং নিকটাত্মীয় জানান, ওসমান গণি এলাকায় সুদের ব্যবসা করতেন। অনেকের কাছে তার বিপুল পরিমাণ টাকা পাওনা ছিল। এ ছাড়া ঘটনার কয়েক দিন আগেও ওসমান গণির গ্রামের বাড়ি গোলাবাড়ীতে তার স্বজনদের মধ্যে জমি-সংক্রান্ত বিরোধে হালকা মারামারির ঘটনা ঘটে। তার কাছে জমির সব তথ্য ছিল এবং তিনি ওই বিষয়টি মীমাংসার জন্য পরিবার সহ সেখানে গিয়েছিলেন। মধুপুর সার্কেলের সহকারী পুলিশ সুপার কামরান হোসেন এবং মধুপুর থানার ওসি তারিক কামাল জানান, জেলা থেকে পিবিআই, সিআইডি ও র‌্যাবের বিশেষজ্ঞ দল ঘটনাস্থল থেকে আলামত সংগ্রহ করেছে। এদিকে, ঘটনার পর টাঙ্গাইল পুলিশ সুপার সঞ্জিত রায় ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন। তিনি সাংবাদিকদের জানান, আলামত সংগ্রহ করা হয়েছে। আশা করা হচ্ছে , কয়েক দিনের মধ্যেই এ ঘটনার রহস্য উদঘাটন করা সম্ভব হবে। পুলিশ সুপার জানান, এখনও নিশ্চিত করে বলা যাচ্ছে না, এটি ডাকাতি না হত্যাকান্ড । তবে পুলিশের সকল ধরনের কার্যক্রম অব্যাহত রয়েছে জানান এ কর্মকর্তা।

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এই রকম আরো সংবাদ

© All rights reserved © 2020 Bwazarakatha.Com
Design & Development By Hostitbd.Com