মঙ্গলবার, ১৬ অগাস্ট ২০২২, ১১:১৮ পূর্বাহ্ন
ব্রেকিং নিউজ :
মিলনপুর কমিউনিটি ক্লিনিকে জাতীয় শোক দিবসে আলোচনা সভা ঘোড়াঘাটে মুক্তিযুদ্ধ মঞ্চের মানববন্ধন  বঙ্গবন্ধু বেঁচে থাকবেন বাঙালির হৃদয়ে -এমপি মনোরঞ্জন শীল গোপাল সাপাহারে জাতীয় শোক দিবস পালন জিয়া-মোস্তাকরা এখন ইতিহাসের আস্তাকুড়ে-হুইপ ইকবালুর রহিম পার্বতীপুরে যথাযোগ্য মর্যাদায় জাতীয় শোক দিবস উদযাপন মুক্তিযুদ্ধে পরাজিত শক্তিই বঙ্গবন্ধুকে সপরিবারে হত্যা করেছে- বানিজ্যমন্ত্রী রংপুরে বঙ্গবন্ধুর ৪৭তম শাহাদত বার্ষিকী ও জাতীয় শোক দিবস পালিত বিরামপুরে  বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৪৭-তম শাহাদত বার্ষিকী বঙ্গবন্ধুর  জন্ম না হলে   বাংলাদেশ নামক রাষ্ট্রের জন্ম হতো না – মেয়র  সরোয়ার

ডিএমপির পল্লবী থানা হেফাজতে গাড়ি চালকের মৃত্যু : তিন পুলিশের যাবজ্জীবন

রিপোটারের নাম
  • আপডেট সময় : বুধবার, ৯ সেপ্টেম্বর, ২০২০
  • ১১২ বার পঠিত

বজ্রকথা প্রতিবেদক ।- পুলিশ হেফাজতে গাড়িচালক ইশতিয়াক হোসেন জনির মৃত্যুর ঘটনায় দায়ের করা মামলায় পল­বী থানার তিন পুলিশ সদস্যকে যাবজ্জীবন সশ্রম কারাদন্ড দিয়েছেন আদালত। মামলার অন্য আসামি পুলিশের ‘দুই সোর্সকে’ ৭ বছর করে কারাদন্ডাদেশ দেওয়া হয়েছে। বুধবার ঢাকার মহানগর দায়রা জজ আদালতের বিচারক কে এম ইমরুল কায়েস এই রায় ঘোষণা করেন। এর মধ্য দিয়ে এই প্রথম নির্যাতন ও হেফাজতে মত্যু (নিবারণ) আইনে করা কোনো মামলার রায় হলো। আইনটি ২০১৩ সালে পাস হয়। ইশতিয়াক হত্যা মামলায় যাবজ্জীবন প্রাপ্তরা হলেন-পল্লবী থানার তৎকালীন উপ পরিদর্শক (এসআই) জাহিদুর রহমান, সহকারী উপ পরিদর্শক (এএসআই) রাশেদুল ইসলাম ও এএসআই কামরুজ্জামান। অন্য দুই আসামি হলেন পুলিশের কথিত সোর্স সুমন ও রাসেল। তাদের সাত বছর করে সশ্রম কারাদন্ড এবং ২০ হাজার টাকা করে জরিমানা করা হয়েছে রায়ে। দন্ডিত আসামিদের মধ্যে কামরুজ্জামান ও রাসেল পলাতক। কারাগারে আছেন জাহিদুর রহমান ও সুমন। জামিনে ছিলেন রাশেদুল ইসলাম। রায়ের পর তাকে কারাগারে পাঠানো হয়। রায়ে বলা হয়েছে, পল্লবী থানার এসআই জাহিদুর রহমান খান, এএসআই রাশেদুল ইসলাম, এএসআই কামরুজ্জামান মিন্টুকে যাবজ্জীবন সাজা খাটার পাশাপাশি এক লাখ টাকা করে অর্থদন্ড দিতে হবে, যা দিতে না পারলে আরও ছয় মাস জেল খাটতে হবে তাদের। অর্থদন্ড ছাড়াও আসামিদের প্রত্যেককে নিহতের পরিবারকে দুই লাখ টাকা ক্ষতি পূরণ দিতে হবে। ক্ষতি পূরণের এই টাকা আগামী দুই সপ্তাহের মধ্যে পরিবারকে দিতে হবে এবং ক্ষতিপূরণ প্রশ্নে কোনো আপিল করা যাবে না। বিচারক তার রায়ে বলেছেন, ২০১৩ সালের নির্যাতন এবং হেফাজতে মৃত্যু (নিবারণ) আইনে কোনো মামলায় দেশে এটাই প্রথম রায়। আর তিন পুলিশ সদস্যকে যে শাস্তি দেওয়া হয়েছে, এ আইনে সেটাই সর্বোচ্চ সাজা। ২০১৪ সালের ৯ ফেরুয়ারী রাতে রাজধানীর মিরপুরে একটি বিয়ের অনুষ্ঠান থেকে দুই ভাই ইশতিয়াক হোসেন জনি এবং ইমতিয়াজ হোসেন রকিকে আটক করে পুলিশ। বড় ভাই জনির মৃত্যু হয় পুলিশ হেফাজতে। ইমতিয়াজ হোসেন রকি অভিযোগ করেন, ওই রাতে পুলিশ হেফাজতে নির্যাতনে মৃত্যু হয়েছিল। এ ঘটনায় মামলা করেন তিনি। ২০১৫ সালে মামলার তদন্ত প্রতিবেদন দাখিল করা হয়। ২০১৬ সালে বিচার শুরু হয়।

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এই রকম আরো সংবাদ
© সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © 2020-2022 বজ্রকথা।
ডিজাইন ও কারিগরি সহযোগিতায়: Hostitbd.Com