বৃহস্পতিবার, ২৯ সেপ্টেম্বর ২০২২, ১০:০৩ পূর্বাহ্ন

দুই বাসের মুখোমুখি সংঘর্ষে প্রাণ গেল ৯জনের

রিপোটারের নাম
  • আপডেট সময় : মঙ্গলবার, ৬ সেপ্টেম্বর, ২০২২
  • ১৫ বার পঠিত

হারুন উর রশিদ।-রংপুরের তারাগঞ্জ উপজেলার খারুভাজ সেতুতে দুই যাত্রীবাহী বাসের মুখোমুখি সংঘর্ষে প্রাণ ঝড়ছে নয়জনের। এঘটনায় আহত হয়েছে অর্ধশতাধিক। আহতরা বর্তমানে রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল ও তারাগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি রয়েছেন। এর মধ্যে আহত তিন জনের অবস্থা আশংকাজনক বলে জানিয়েছে চিকিৎসকরা। রং সাইডে বেপরোয়া গাড়ি চালানো আর নেশার ঘোরের কারণে এ দুর্ঘটনা ঘটেছে বলে যাত্রীরা অভিযোগ করেন।সোমবার দিবাগত রাত সাড়ে ১২টার দিকে রংপুর-দিনাজপুর আঞ্চলিক সড়কের তারাগঞ্জ উপজেলার শলেয়াশাহ এলাকার খারুভাজ সেতুর কাছে এ দুর্ঘটনা ঘটে। এদিকে সোমবার সকালে ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন পুলিশের রংপুর রেঞ্জ ডিআইজি মোহা: আব্দুল আলীম মাহমুদ। হাসপাতালে গিয়ে খোঁজ খবর নিয়েছেন জেলা প্রশাসক মো: আসিব আহসান। জেলা প্রশাসন জানিয়েছে, নিহতদের পরিবারকে ২০ হাজার টাকা ও আহতদের চিকিৎসার খরচ বহন করা হবে। তারাগঞ্জের উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা রাসেল মিয়াকে প্রধান করে তিন সদস্যের কমিটি গঠন করা হয়েছে। আগামী পাঁচ কার্যদিবসের মধ্যে তদন্ত প্রতিবেদন জমা দেয়ার নির্দেশ দিয়েছে জেলা প্রশাসন। আহতদের পাশে দাড়িয়েছে জেলা ছাত্রলীগ নেতাকর্মীরা। এঘটনার পরেই বাস চালক-হেলপার পালিয়ে গেলেও বাস দুটি জব্দ করা হয়েছে। সড়ক আইনে মামলা দায়ের করা হয়েছে।নিহতদের মধ্যে পাঁচজন ঘটনাস্থলে এবং চারজন রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যান।এর মধ্যে ৭ জনের পরিচয় পাওয়া গেছে। বাকি দুইজনের পরিচয় এখনও নিশ্চিত হওয়া যায়নি। নিহতরা হলেন, নীলফামারী সৈয়দপুর উপজেলা ছাত্রলীগের দপ্তর সম্পাদক ও উপজেলার কামারপুকুর এলাকার মৃত রায়হান আলীর ছেলে অলিউল হোসেন জুয়েল (২৭), একই উপজেলার কুন্দল পূর্বপাড়া গ্রামের মকবুল হোসেনের ছেলে মহসিন হোসেন সাগর (৪২) জোয়ানা পরিবহনের চালকের সহকারী ও রংপুরের তারাগঞ্জ উপজেলার ঝাকুয়াপাড়া গ্রামের মৃত মজিবুর রহমানের ছেলে আনোয়ার হোসেন (৩৫), তৃপ্তি পরিবহনের হেলপার তারাগঞ্জের উপজেলার পলাশবাড়ী গ্রামের ধনঞ্জয় সেনের ছেলে বিনোদ সেন (৪৫), ইসলাম পরিবহনের হেলপার একই উপজেলার লক্ষœীপুর রায়পুর গ্রামের নয়ন ইসলাম (২৬), তারাগঞ্জের সয়ার কাজীপাড়া গ্রামের মৃত কছিম উদ্দিনের ছেলে আনিছুর রহমান (৪৮) এবং গাইবান্ধা জেলার উত্তর কিদারী এলাকার সাদেক আলী (৫৬)।এদিকে সোমবার সকাল রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে আহতদের দেখতে যান জেলা প্রশাসক আসিব আহসান। এ সময় আহতদের চিকিৎসার খোঁজখবর নেন এবং চিকিৎসার খরচ জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে দেওয়ার ঘোষণা দেন। একই সঙ্গে নিহতদের দাফন সম্পূর্ণ করতে প্রত্যেকের পরিবারকে ২০ হাজার করে টাকা বরাদ্দ দেন। দুর্ঘটনার খবর পেয়ে রাতেই বৈরী আবহাওয়া উপেক্ষা করে হাসপাতালে ছুটে যান রংপুর জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি এস এম সাব্বির আহমেদ ও সাধারণ সম্পাদক এ কে এম তানিম আহসান চপলের নেতৃত্বে জেলা ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা। এসময় তারা আহতদের রক্ত, প্রয়োজনীয় ঔষধ, স্যালাইন ও খাবার পানি সরবরাহ করেন। এসময় ছাত্রলীগ সাধারণ সম্পাদক তানিম আহসান নিজেও রক্ত দান করেন। রংপুর রেঞ্জ ডিআইজি মোহা: আব্দুল আলীম মাহমুদ দুর্ঘটনা কবলিত ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন। চালক-হেলপার পালিয়ে গেলেও বাস দুটি জব্দ করা হয়েছে। সড়ক আইনে মামলা দায়ের করা হয়।রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের জরুরি বিভাগের চিকিৎসক মোঃ ফরহাদুজ্জামান জানান, রাতে ও ভোরে চিকিৎসাধীন অবস্থায় চার জনের মৃত্যু হয়েছে। আহত বাকিদের মধ্যে আরো দু’জনের অবস্থা আশঙ্কাজনক।
পুলিশ ও স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, প্রবল বৃষ্টির মধ্যে সোমবার দিবাগত রাত সোয়া ১২টার দিকে রংপুর-দিনাজপুর মহাসড়কের তারাগঞ্জ উপজেলার শলেয়াশাহ খারুভাজ সেতুর কাছে জোয়ানা পরিবহনের একটি বাসের সাথে ইসলাম পরিবহনের একটি বাসের মুখোমুখি সংঘর্ষ হয়। দুর্ঘটনার খবর পেয়ে পুলিশ, ফায়ার সার্ভিস ও স্থানীয়রা উদ্ধারকাজে অংশ নেয়।যাত্রীদের অভিযোগ, বেপরোয়া গাড়ি চালানো আর নেশার ঘোরে এ দুর্ঘটরা ঘটেছে। রং সাইডে গাড়ি চালোনোর কারণে এ দুর্ঘটনা বলেও অভিযোগ তাদের।দুর্ঘটনার প্রত্যক্ষদর্শী মোস্তফা হোসেন (৫০)। তার বাড়ি ঠাকুরগাও জেলায়। তিনি জানান, রোববার রাতে ঠাকুরগাঁও থেকে ইসলাম পরিবহনে উঠেন। রাত ১২টার দিকে মুষলধারে বৃষ্টি হচ্ছিল। গাড়িও চলছিল দ্রæগতিতে। হঠাৎ বিকট শব্দ। মুহূর্তের মধ্যে কী যে ঘটে গেল, কিছুই বুঝতে পারলাম না।রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন আব্দুর রহিম (২২) বলেন, রাত সাড়ে ১১টার দিকে রংপুর নগরীর সিও বাজার থেকে জোয়ানা পরিবহনের বাসে উঠি তারাগঞ্জ যাওয়ার জন্য। ওই সময় বৃষ্টি হচ্ছিল। বাসে ওঠার আধা ঘণ্টার মধ্যে দুর্ঘটনা ঘটল। এরপর আর কিছু বলতে পারি না। তারাগঞ্জ ফায়ার সার্ভিস অ্যান্ড সিভিল ডিফেন্সের ভারপ্রাপ্ত স্টেশন ইনচার্জ খতিবুর রহমান বলেন, দুর্ঘটনায় আহত ব্যক্তিদের উদ্ধার করে তারাগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স এবং রংপুর মেডিক্যাল কলেজ (রমেক) হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। এছাড়া ঘটনাস্থল থেকে পাঁচজনের লাশ উদ্ধার করে মর্গে পাঠানো হয়।তারাগঞ্জ হাইওয়ে থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) শেখ মোহাম্মদ মাহবুব মোর্শেদ বলেন, রাত সোয়া ১২টার দিকে রংপুর-দিনাজপুর আঞ্চলিক সড়কের শলেয়াশাহ খারুভাজ সেতুর কাছে যাত্রীবাহী জোয়ানা পরিবহনের সাথে ইসলাম পরিবহনের একটি বাসের সংঘর্ষ হয়। এতে ঘটনাস্থলেই পাঁচজন নিহত হয়। দুর্ঘটনায় অন্তত অর্ধশতাধিক। দুর্ঘটনার খবর পেয়ে পুলিশ, ফায়ার সার্ভিস ও স্থানীয় ব্যক্তিরা উদ্ধার কাজ শুরু করেন। হতাহত ব্যক্তিদের উদ্ধার করে হাসপাতালে পাঠানো হয়। হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় আরো চারজনের মৃত্যু হয়েছে বলে জানান। লাশগুলো মর্গে রয়েছে।রংপুরের জেলা প্রশাসক আসিব আহসান জানান, আহতদের চিকিৎসার খরচ জেলা প্রশাসন থেকে বহন করা হচ্ছে। মেডিকেল ডিআরও রয়েছেন। নিহতদের পরিবারকে ২০ হাজার করে টাকা দেওয়া হবে। আহতদের চিকিৎসা খরচও বহন করা হবে। জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে সার্বিক সহযোগিতা আব্যাহত রয়েছে। তিন সদস্য বিশিষ্ট কমিটি গঠন করা হয়েছে।

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এই রকম আরো সংবাদ
© সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © 2020-2022 বজ্রকথা।
ডিজাইন ও কারিগরি সহযোগিতায়: Hostitbd.Com