বৃহস্পতিবার, ১৮ এপ্রিল ২০২৪, ০৪:০৮ অপরাহ্ন

দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে  বিজয়ীদের তথ্য উপস্থাপন ও সুজন-এর  পর্যবেক্ষণ 

রিপোটারের নাম
  • আপডেট সময় : শুক্রবার, ২৬ জানুয়ারী, ২০২৪
  • ৮৩ বার পঠিত
সুজন-সুশাসনের জন্য নাগরিক (২৫ জানুয়ারি, ২০২৪) ।-বাংলাদেশ নির্বাচন কমিশন ঘোষিত তফসিল অনুযায়ী, গত ৭ জানুয়ারি ২০২৪ তারিখে অনুষ্ঠিত হলো দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন। সর্বমোট ৩০০টি নির্বাচনী এলাকায় এই নির্বাচন অনুষ্ঠিত হওয়ার কথা থাকলেও নওগাঁ-২ এর স্বতন্ত্র প্রার্থী আমিনুল হকের মৃত্যুতে ৭ জানুয়ারি ২০২৪-এ ২৯৯টি আসনের নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়। ২৯৯টি আসনে নির্বাচন অনুষ্ঠিত হলেও ময়মনসিংহ-৩ আসনের একটি কেন্দ্রের ফলাফল বাতিল হওয়ায় প্রথমে ২৯৮টি কেন্দ্রের ফলাফল ঘোষিত হয়। পরে ১৩ জানুয়ারি তারিখে ময়মনসিংহ-৩ আসনের নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয় এবং এতে আওয়ামী লীগের প্রার্থী নিলুফার আনজুম পপি জয়ী হন। ইতোমধ্যেই ২৯৯ জন নবনির্বাচিত সংসদ শপথ গ্রহণ করেছেন এং নতুন মন্ত্রিসভাও গঠিত হয়েছে।
দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে মোট ভোটার ১১ কোটি, ৯৬ লাখ, ১৬ হাজার ৬৩৩ জন। মোট ভোটারের মধ্যে ৬ কোটি, ৭ লাখ, ৭১ হাজার ৫৭৯ জন পুরুষ; ৫ কোটি, ৮৯ লাখ, ১৯ হাজার ২০২ জন নারী এবং ৮৫২ জন তৃতীয় লিঙ্গের (হিজড়া) ভোটার। তবে ২৯৯ টি আসনে মোট ভোটারের সংখ্যা ছিল ১১ কোটি, ৯৩ লাখ, ৩৩ হাজার ১৫৭ জন। এর মধ্যে ৬ কোটি, ৫ লাখ, ৯২ হাজার ১৬৯ জন পুরুষ; ৫ কোটি, ৮৭ লাখ, ৪০ হাজার ১৪০ জন নারী এবং ৮৪৮ জন তৃতীয় লিঙ্গের (হিজড়া) ভোটার। মোট ভোটকেন্দ্র ছিল ৪২,০২৪টি।
এই নির্বাচনে ২৮টি রাজনৈতিক দল অংশগ্রহণ করে। নির্বাচন বর্জন করে ১৬টি নিবন্ধিত রাজনৈতিক দল। নির্বাচনে অংশগ্রহণকারী দলগুলো ছাড়াও বিপুল সংখ্যক স্বতন্ত্র প্রার্থী এই নির্বাচনে অংশ নেয়। ২৮টি রাজনৈতিক দল মনোনীত প্রার্থী এবং স্বতন্ত্র প্রার্থী মিলিয়ে মোট ১,৯৪৫ জন প্রার্থী ২৯৯টি আসনে প্রতিদ্বন্দ্বিতায় অংশ নেয়। উল্লেখ্য, এই নির্বাচনে ক্ষমতাসীন বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ জাতীয় পার্টি, জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দল (জাসদ), বাংলাদেশের ওয়ার্কার্স পার্টি এবং জাতীয় পার্টি-জেপিকে ৩২টি আসন ছেড়ে দেয়।
তবে এই নির্বাচনের একটি অভিনব বিষয় ছিল ক্ষমতাসীন দল থেকে বিপুল পরিমাণে স্বতন্ত্র ও ডামি প্রার্থী হওয়া। পরবর্তীতে এই স্বতন্ত্র প্রার্থীরাই হয়ে উঠেছিলেন বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ এবং তার জোটসঙ্গীদের মূল প্রতিদ্বন্দ্বী। উল্লেখ্য, এই স্বতন্ত্র প্রার্থীদের মধ্যে ছিলেন মন্ত্রিসভার সদস্য, একাদশ সংসদের জাতীয় সংসদ সদস্য এবং বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের বিভিন্ন স্তরের প্রভাবশালী নেতা। সেকারণে বলা যায়, নির্বাচনে স্বতন্ত্রদের মধ্যে যারাই জয়লাভ করেছেন, তারা প্রায় সবাই ক্ষমতাসীন দলের নেতা। তাই কিছু আসনে নৌকা প্রতীকের পরাজয় কিংবা স্বতন্ত্রদের জয়ে ক্ষমতাসীনদের কোনো ক্ষতি হয়নি। মূলত কৃত্রিমভাবে প্রতিদ্বন্দ্বিতার আবহ সৃষ্টি করার জন্যই দলীয় নেতৃবৃন্দকে স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে প্রতিদ্বন্দ্বিতার ব্যাপারে শীর্ষ নেতৃত্ব থেকে সম্মতি প্রদানের কৌশল গ্রহণ করা হয়েছিল।
এই নির্বাচনে ৩০০টি সংসদীয় আসনে প্রার্থী মনোনয়নের ব্যাপারে ক্ষমতাসীন দল ও জোটসঙ্গীদের মধ্যে আসন বণ্টন করা হয়েছিল, যা ছিল নিুরূপ:
* বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ: ২৬৮টি
* জাতীয় পার্টি: ২৬টি
* জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দল (জাসদ): ৩টি
* বাংলাদেশের ওয়ার্কার্স পার্টি: ২টি এবং
* জাতীয় পার্টি-জেপি: ১টি।
তবে বরিশাল-৪ আসনের বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের প্রার্থী জনাব শাম্মী আহমেদ এবং কক্সবাজার-১ আসনের জনাব সালাহউদ্দিনের মনোনয়নপত্র বাতিল হওয়ায় উক্ত আসন দুটিতে দলটির এবং স্থানীয় নেতা-কর্মীদের সমর্থন পান এবং জয়লাভ করেন একাদশ জাতীয় সংসদে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ থেকে নির্বাচিত সংসদ সদস্য এবং দ্বাদশ জাতীয় নির্বাচনের স্বতন্ত্র প্রার্থী পংকজ নাথ ও বাংলাদেশ কল্যাণ পার্টির চেয়ারম্যান মেজর জেনারেল (অবঃ) সৈয়দ মুহাম্মদ ইবরাহিম বীর প্রতীক। এছাড়াও চট্টগ্রাম-১৬ আসনে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ থেকে প্রতিদ্বন্দ্বিতাকারী প্রার্থী মোস্তাফিজুর রহমানের মনোনয়ন আচরণবিধি ভঙ্গের দায়ে বাতিল করা হয়। সুজন-এর আঞ্চলিক কার্যালয় থেকে প্রাপ্ত তথ্যানুযায়ী, এই আসন বণ্টনের বাইরে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় ও স্থানীয় পর্যায়ের ৩১৭ জন নেতা স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেন; যাঁদের মধ্যে ১৮২ জন অত্যন্ত প্রভাবশালী (হেভিওয়েট)। উল্লেখ্য, বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থীদের মধ্যে নতুন মুখ ছিলেন ১০৪ জন (যাঁরা একাদশ সংসদে ছিলেন না) এবং প্রথমবারের মতো দলীয় মনোনয়নপ্রাপ্ত ছিলেন ৬৫ জন।
২৯৯টি আসনের ফলাফলে দেখা যায় যে, এই নির্বাচনে যারাই জয়লাভ করেছেন তাঁরা প্রায় সকলেই আওয়ামী লীগ মনোনীত বা আওয়ামী লীগ বা আওয়ামী লীগের কোনো অংশের সমর্থনপুষ্ট অথবা আশির্বাদপ্রাপ্ত। ২৯৯টি আসনে দলভিত্তিক আসন প্রাপ্তির চিত্র নিুরূপ:
* বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ: ২২৩টি
* জাতীয় পার্টি: ১১টি
* জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দল (জাসদ): ১টি
* বাংলাদেশের ওয়ার্কার্স পার্টি: ১টি এবং
* বাংলাদেশ কল্যাণ পার্টি: ১টি।
* স্বতন্ত্র প্রার্থী: ৬২টি (যাঁদের মধ্যে ৫৯ জনই আওয়ামী রাজনীতির সাথে যুক্ত, কয়েকজন রয়েছেন একাদশ সংসদের সদস্য)।প্রেস বিজ্ঞপ্তি
১০১ জন নারী এবং ২ জন তৃতীয় লিঙ্গের প্রার্থী এই নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেন। ফলাফলে দেখা যায় যে, তাঁদের মধ্য থেকে ২০ জন জন নারী নির্বাচিত হয়েছেন; যাদের মধ্যে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ থেকে ১৬ জন এবং স্বতন্ত্র হিসেবে ৪ জন (তালিকা সংযুক্ত)। উল্লেখ্য, বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ থেকে ২০ জন এবং স্বতন্ত্র হিসেবে ২৯ জন এই নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেছিলেন।
বিশেষ দ্রষ্টব্য: ১৯৭৩ সালে অনুষ্ঠিত প্রথম জাতীয় নির্বাচনে কোনো নারী সাধারণ আসনে জয়লাভ করেননি। দ্বিতীয় সংসদে একজন নারী উপ-নির্বাচনে জয়ী হন।
ধর্মীয় ও জাতিগত সংখ্যালঘু প্রার্থীদের ফলাফলের দিকে দৃষ্টি দিলে দেখা যায় যে, মোট ৮১ জন প্রার্থী ৮২টি আসনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করে বিজয়ী হয়েছেন ১৪ জন; যাদের মধ্যে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ থেকে ১২ জন এবং স্বতন্ত্র হিসেবে ২ জন (তালিকা সংযুক্ত)। উল্লেখ্য, বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ থেকে ২০ জন এবং স্বতন্ত্র হিসেবে ১৫ জন সংখ্যালঘু সম্প্রদায়ের মানুষ এই নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেছিলেন।
নির্বাচনের পূর্বে সুজন-এর পক্ষ থেকে আমরা প্রতিদ্বন্দ্বিতাকারী প্রার্থীদের তথ্যের বিশ্লেষণ গণমাধ্যমের সহায়তায় তুলে ধরেছিলাম। আজকের এই সংবাদ সম্মেলন থেকে আমরা বিজয়ীদের হলফনামার তথ্যের বিশ্লেষণ নিুে তুলে ধরছি; তাতে থাকছে, শিক্ষাগত যোগ্যতা, পেশা, ফৌজদারি মামলা, নিজের ও নির্ভরশীলদের বার্ষিক আয়, নিজের ও নির্ভরশীলদের স¤পদ, দায়-দেনা ও ঋণ এবং আয়কর সংক্রান্ত তথ্য। নির্ধারিত তথ্য ছকে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ, জাতীয় পার্টি ও স্বতন্ত্র হিসেবে বিজয়ীদের তথ্য পৃথকভাবে থাকলেও বাংলাদেশের ওয়ার্কার্স পার্টি, জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দল (জাসদ) ও বাংলাদেশ কল্যাণ পার্টির নবনির্বাচিত ৩ জন সংসদ সদস্যের তথ্য একটি কলামে ‘অন্যান্য রাজনৈতিক দল’ শিরোনামে সন্নিবেশিত হয়েছে।
একটি বিষয় মনে রাখতে হবে যে, এটি কোনো গবেষণা প্রতিবেদন নয়; এটি বিজয়ী সংসদ সদস্যগণ কর্তৃক মনোনয়নপত্রের সাথে দাখিলকৃত তথ্যের বিশ্লেষণ। এই তথ্যগুলো তাঁদের নিজেদেরই দেওয়া।
১. শিক্ষাগত যোগ্যতা
রাজনৈতিক দলের নাম এসএসসি’র নীচে এসএসসি এইচএসসি স্নাতক স্নাতকোত্তর উল্লেখ নেই মন্তব্য
বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ ৫ ৫ ২৪ ৮৪ ১০৫ ০ ২২৩ স্বশিক্ষিত ৩ জন
২.২৪%২.২৪%১০.৭৬%৩৭.৬৭%৪৭.০৯%০১০০%১.৩৪%
জাতীয় পার্টি ০০৩৫৩০১১
২৭.২৭%৪৫.৪৫%২৭.২৭%০১০০%
অন্যান্য রাজনৈতিক দল০০১০২০৩
০০৩৩.৩৩%০৬৬.৬৭%০১০০%
স্বতন্ত্র ২ ২ ৯ ২২ ২৬ ১ ৬২ স্বশিক্ষিত ২ জন
৩.২২%৩.২২%১৪.৫১%৩৫.৪৮%৪১.৯৩%১.৬১%১০০%৩.২২%
সর্বমোট ৭ ৭ ৩৭ ১১১ ১৩৬ ১ ২৯৯ স্বশিক্ষিত ৫ জন
২.৩৪%২.৩৪%১২.৩৭%৩৭.১২%৪৫.৪৮%০.৩৩%১০০%১.৬৭%
 নবনির্বাচিত ২৯৯ জন সংসদ সদস্যের মধ্যে ৮২.৬০% (২৪৭ জন)-এর শিক্ষাগত যোগ্যতা স্নাতক বা স্নাতকোত্তর। বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ থেকে নির্বাচিতদের মধ্যে এই হার শতকরা ৮৪.৭৫% (১৮৯ জন), জাতীয় পার্টি থেকে নির্বাচিতদের মধ্যে এই হার ৭২.৭২% (৮ জন), অন্যান্য দল থেকে নির্বাচিতদের মধ্যে এই হার ৬৬.৬৭% (২ জন) এবং স্বতন্ত্র হিসেবে নির্বাচিতদের মধ্যে ৭৭.৪২% (৪৮ জন)। উচ্চশিক্ষার হার বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ থেকে নির্বাচিতদের মধ্যে সবচেয়ে বেশি।
 নবনির্বাচিত ২৯৯ জন সংসদ সদস্যের মধ্যে স্বল্প শিক্ষিত অর্থাৎ মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের গণ্ডি না পেরুনো সংসদ সদস্যদের শতকরা হার ২.৩৪% (৭ জন)। এই ৭ জনের মধ্যে ৫ জন (৭১.৪৩%) বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ থেকে এবং ২ জন (২৮.৫৭%) স্বতন্ত্রদের মধ্য থেকে নির্বাচিত। এই ৭ জনের মধ্যে ৫ জন শিক্ষাগত যোগ্যতার ঘরে ‘স্বশিক্ষিত’ উল্লেখ করেছেন।
 সকল প্রার্থীর মধ্যে শতকরা ৫৯.৯২% উচ্চশিক্ষিত (স্নাতক বা স্নাতকোত্তর) প্রার্থী নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করে নির্বাচিত হয়েছেন ৮২.৬০%। অপরদিকে মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের গণ্ডি না পেরুনো ২০.১৫% প্রার্থী এই নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করে নির্বাচিত হয়েছেন ২.৬৭%।
 বিশ্লেষণে দেখা যায় যে, ভোটাররা উচ্চশিক্ষিতদের যেমন অধিক হারে গ্রহণ করেছেন, তেমনি স্বল্পশিক্ষিতদের বর্জনও করেছেন। বিষয়টি নিঃসন্দেহে ইতিবাচক।
 একাদশ জাতীয় সংসদে উচ্চশিক্ষিতের (স্নাতক বা স্নাতকোত্তর) হার ছিল শতকরা ৮১% (২৪৩ জন); দ্বাদশ জাতীয় সংসদে যা সামান্য বৃদ্ধি পেয়েছে (৮২.৬০%)। এই বিষয়টিও ইতিবাচক।

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই রকম আরো সংবাদ
© সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © 2020-2022 বজ্রকথা।
ডিজাইন ও কারিগরি সহযোগিতায়: Hostitbd.Com