রবিবার, ২৯ জানুয়ারী ২০২৩, ০২:৫১ পূর্বাহ্ন
ব্রেকিং নিউজ :
রংপুরে ধর্মীয় ভাবগাম্ভীর্যের মধ্যদিয়ে সরস্বতী পূজা অনুষ্ঠিত ঘোড়াঘাটে চাচা-ভাতিজা হত্যা মামলার প্রধান আসামী গ্রেফতার নিরাপত্তা চেয়ে সদ্য বদলি  হওয়া পরিচালকের আবেদন স্বপ্ন পূরণ হচ্ছে ফুটবলার নাজমুল এর পীরগঞ্জে বাশিস এর নব-নির্বাচিত কমিটির শপথ গ্রহণ স্মার্ট পুলিশিং কার্যক্রম শিঘ্রই চালু করা হবে -রংপুরে অতিরিক্ত আইজি ঘোড়াঘাটে সড়ক দূর্ঘটনায় একই পরিবারের ২ জন নিহত আহত ৩ জন দেশ বিরোধী কর্মকান্ডকে রুখতে রংপুরে আওয়ামী লীগের শান্তি সমাবেশ দিনাজপুরে বঙ্গবন্ধু কন্যা প্রধানমন্ত্রী দেশরত্ন শেখ হাসিনার উপহার শীতবস্ত্র শনিবারে জেলা আঃলীগের নব-নির্বাচিত কমিটির সংবর্ধনা

নতুন কিছু করতে হলে পুরাতনকে ভাঙ্গতে হয়

রিপোটারের নাম
  • আপডেট সময় : রবিবার, ১২ জুলাই, ২০২০
  • ২৬৭ বার পঠিত

নতুন কিছু করতে হলে পুরাতনকে ভাঙ্গতে হয়। এই কথাটা আমরা মানি। চিন্তায় চেতনায় যারা যুগের সাথে তাল মেলাতে পারেন, তারাই আধুনিক মানুষ। যারা প্রগতিশীল তারা সময় ও যুগকে অস্বীকার করেন না। বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী একজন প্রগতিশীল মানুষ তাই, তার পক্ষে আধুনিক ভাবনায় দেশের পাটকলগুলোকে এগিয়ে নেবার চ্যালেঞ্জটা গ্রহন করা সহজ হয়েছে। আমরা কথা বলছি, পাটকল বন্ধ করা নিয়ে। আমরা মনে করি, পাটকল সাময়িকভাবে বন্ধ করার সিদ্ধান্তটা সঠিক হয়েছে। লোকসানী লক্কর ঝক্কর প্রতিষ্ঠানে শ্রমিকদের বসিয়ে বসিয়ে বেতন দেয়া হলো আত্মঘাতী পদক্ষেপ। তাই যে যাই বলুন, রাষ্ট্র কেন বছরের পর বছর লোকসান গুণবে ! আমরা মনে করি, পাটকলগুলোকে আধুনিক করার যে ভাবনা মাননীয় প্রধানমন্ত্রী নিয়েছেন, আগামী দিনে এই ভাবনা ফল দেবে। লোকসানী কোন শিল্প প্রতিষ্ঠান রাখা বুদ্ধিমানের কাজ নয়। বুড়ো কারখানা জিয়ে রেখে শ্রমিকদের বসিয়ে রেখে বেতন দেওয়া বোকামি। দেশের পাটকলগুলো ৫০ ও ৬০ এর দশকে স্থাপন করা হয়েছিল।এ গুলো চলছে না। এই প্রতিষ্ঠানগুলো লোকসান দিচ্ছে। অতএব, পাটকল বন্ধ করে সৎ, নিষ্ঠাবান, দক্ষ, অভিজ্ঞ ব্যবস্থাপনার মাধ্যমে নতুন উদ্যমে শুরু করা গেলে আগামীতে অবশ্যই পাটকল লাভের মুখ দেখবে। আমরা সবাই জানি এবং মানি পাট অর্থকরী ফসল। সারাবিশ্বে আবার পাটের চাহিদা বৃদ্ধি পেয়েছে। পাটকল আপাতত বন্ধ হওয়া মানে পাটচাষ বন্ধ হওয়া নয়। আমরা বিশ্বাস করি, আগামী দিনে কাঁচাপাট রপ্তানী করেও বাংলাদেশ লাভবান হবে। বিশ্বাস আছে, প্রধানমন্ত্রী যা বলেন সেটা তিনি করেন। তিনি শ্রমিকদের স্বার্থে বকেয়া পরিশোধের উদ্যোগ নিয়েছেন, এটা খুব ভালো সিদ্ধান্ত। তাদের মূলধন রক্ষার লক্ষ্যে সঞ্চয়পত্রে বিনিয়োগের যে সুযোগ করে দিয়েছেন, তাতে করে শ্রমিকরা তিন মাস পর পর অর্থ পাবে এতে তাদের সংসারে আর্থিক সংকট হবে না। নিকট ভবিষ্যতে দক্ষ, সৎ কর্মীরা কাজের সুযোগ নিতে পারবেন। আমরা মনে করি, পাটকল বন্ধের সিদ্ধান্তে বহুপাক্ষিক স্বার্থ রক্ষা হয়েছে। এই সিদ্ধান্তের ফলে শ্রমিকদের বকেয়া পরিশোধ করা সম্ভব হলো। শ্রমিকরা প্রাণ খুলে নিঃশ্বাস নিতে পারবে। লোকসানী প্রতিষ্ঠানে রাষ্ট্রকে ভর্তুকি দিতে হবে না আর। পাটকলগুলোকে আধুনিক করার ফলে ভবিষ্যতে চাপমুক্ত থাকবে সরকার। দক্ষ ব্যবস্থাপনার মাধ্যমে উৎপাদনে গেলে লক্ষ্যমাত্রা অর্জিত হবে, রপ্তানী ও মুনাফা বৃদ্ধিপাবে। সময়মত পাটকল বন্ধের সিদ্ধান্ত নেওয়ায় মাননীয় প্রধানমন্ত্রীকে ধন্যবাদ জানাচ্ছি আমরা।

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এই রকম আরো সংবাদ
© সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © 2020-2022 বজ্রকথা।
ডিজাইন ও কারিগরি সহযোগিতায়: Hostitbd.Com