বৃহস্পতিবার, ২৫ জুলাই ২০২৪, ০৩:০১ পূর্বাহ্ন
ব্রেকিং নিউজ :
পার্বতীপুরে গুরুত্ব ও সচেতনতা বিষয়ক কর্মশালা পার্বতীপুরের রেলওয়ে কেন্দ্রীয় লোকোমোটিভ কারখানায় স্বল্প জনবল দিয়েই চলছে নির্ধারিত কার্যক্রম রাজাকাররা কোটার নামে দেশে নৈরাজ্য সৃষ্টির চেষ্টা করছে -হুইপ ইকবালুর রহিম এমপি বড়পুকুরিয়ায় ১২টি গ্রাম  ক্ষতিপূরণের দাবিতে মানববন্ধন পার্বতীপুরের বড়পুকুরিয়া জীবন ও সম্পদ রক্ষা কমিটির মানববন্ধন পীরগঞ্জ সাঈদের দাফন সম্পন্ন কোটা বিরোধী আন্দোলনে নিহত শিক্ষার্থী সাঈদের বাড়ীতে শোকের মাতম নেটওয়ার্কের সক্ষমতা বাড়াতে এআই যুক্ত করার ঘোষণা হুয়াওয়ের রংপুরে কোটা বিরোধী আন্দোলন এক শিক্ষার্থী নিহত তৃণমূল পর্যায়ে চিকিৎসার মান উন্নত করলে বেসরকারি হাসপাতাল ও ক্লিনিক রোগী শুন্য হবে-স্বাস্থ্যমন্ত্রী  

নদী গবেষণা পরিকল্পনা প্রকল্প বাস্তবায়নে নতুন করে মনযোগ দিতে হবে

রিপোটারের নাম
  • আপডেট সময় : রবিবার, ৯ আগস্ট, ২০২০
  • ৫৬৫ বার পঠিত

হাজার নদীর দেশ বাংলাদেশ। আমরা উত্তরাধিকার সুত্রে পেয়েছি এই নদ নদী, নালা ,খাল, বিল। নদ-নদী ছড়িয়ে আছে এই বদ্বীপে, বাংলাদেশ নামক ভুখন্ডের সারা দেহে। খাল বিল নদী নালা গুলো শিরা-উপশিরার মত ছড়িয়ে আছে ভমির দেহে। এই সব নদ নদী খাল বিলের কারনেই বাংলার মাটি সরস,উর্বর তেফসলা,শস্য শ্যামলা। আমরা জানি অধিকাংশ নদীর জন্ম হিমালয়ে। ফলে প্রায় সব নদ নদী ভারত, নেপাল, ভুটান,চীনা ভুখন্ডের ভিতর থেকে বাংলায় প্রবেশ করেছে। বাংলাদেশ ভাটি অঞ্চলে হওয়ায় নদী গুলো যে জল বয়ে আনে সেটা আসে উজান থেকে। সে কারনে উজানে বরফ গললে, বৃষ্টিপাত বাড়লে ঢল আসে বাংলাদেশে, প্রতিবেশি দেশ গুলো জলবায়ু একই মতন হওয়ায় বর্ষাকালে ঢলে আর বৃষ্টির জলে ভাসে বাংলাদেশ। দুই প্রান্তের পানি মিলে বন্যা দেখা দেয় এখানে। এই বন্যার কারনে নদীভাঙ্গন দেখা দেয়। মানুষ গৃহহারা হয়। নদী গ্রাস করে বসত ভিটা, ঘর বাড়ি, গ্রাম, জনপদ, ফসলী জমি। অতিত বলে প্রতি দশ বছর অন্তর একবার বড় বন্যা হয়। বন্যায় নদী ভাঙ্গনের কারনে প্রতিবছর ভুমি হারাচ্ছে মানুষ। উদ্বাস্ত হচ্ছে শত শত নাগরিক। শুধু যে বর্ষার জলেই বন্যা হচ্ছে তা নয়। নদ নদীর উজানে বাধ দেওয়ার কারনেও বাংলাদেশ ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে বর্ষা কালে। আবার শুস্ক মৌসুমে বাধে জল আটকানোর ফলে বাংলাদেশের নদীগুলো জল শুন্য হয়ে যাচ্ছে। তাতে মরে যাচ্ছে নদী। এই সব সমস্যার সামাধান দরকার। আমরা মনে করি বন্যা নিয়ন্ত্রণ, নদীশাসনে পানি উন্নয়ন বোর্ডের মাধ্যমে যা করা হচ্ছে তা যথেষ্ট নয়। নদী গবেষণা, পরিকল্পনা,প্রকল্প বাস্তবায়নে নতুন করে মনযোগ দেয়ার কথা বলছি আমরা।এই কাজে হাত দেয়ার আগে যে কাজটা করতে হবে তা হলো,পানি উন্নয়ন বোর্ডের নাম পরিবর্তন করে নদী শাসন বিভাগ করা জরুরী। নদী শাসন বিভাগের কাজ,গবেষণা,পরিকল্পা বিভাগের কাজ ভাগ করে দিতে হবে। সময়ের প্রয়োজনে আমরা নদী শাসনে সল্প মেয়াদী,খন্ডকালিন এবং দীর্ঘ মেয়াদী পরিকল্পনার অধীনে নদী শাসন কার্যক্রম পরিচালনার উপর গুরুত্ব দেয়ার কথা বলছি। আমরা লক্ষ্য করছি যে, যখন বন্যা আসে ,ভাঙ্গন শুরু হয় তখনই কোটি কোটি টাকায় বালির বস্তা নদীতে ফেলা হয়। নদী পড়ে সাজানো বিছানো ব্লক ভেসে যায় জলে। বালি দিয়ে তৈরী বাধ ভেঙ্গ যায়। বাধ কেন ভাঙ্গে ক্ষতিয়ে দেখা উচিত। নদী খনন সঠিক ভাবে হয় কিনা  খতিয়ে দেখে ব্যবস্থা নিতে হবে। ড্রেজিং কিভাবে হয় তাও দেখা উচিত। রাষ্ট্রের অর্থ প্রতি বছর জলে ভেসে যাবে তাতো হতে পারে না। দেশকে এগিয়ে নিতে চাইলে দেশ প্রেম, নিষ্টা দক্ষতার সাথে কাজ করতে হবে। অনিয়ম , দুর্নীতি, লুটপাটও বন্ধ করতে হবে। দীর্ঘ মেয়াদি পরিকল্পনার অধীনে টেকসই ব্যবস্থাপনায় নদীকে শাসন করেত হবে। আমরা বিষয়টি ভেবে দেখার কথা বলছি।

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই রকম আরো সংবাদ
© সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © 2020-2022 বজ্রকথা।
ডিজাইন ও কারিগরি সহযোগিতায়: Hostitbd.Com