রবিবার, ২৯ জানুয়ারী ২০২৩, ০১:৩৫ পূর্বাহ্ন
ব্রেকিং নিউজ :
রংপুরে ধর্মীয় ভাবগাম্ভীর্যের মধ্যদিয়ে সরস্বতী পূজা অনুষ্ঠিত ঘোড়াঘাটে চাচা-ভাতিজা হত্যা মামলার প্রধান আসামী গ্রেফতার নিরাপত্তা চেয়ে সদ্য বদলি  হওয়া পরিচালকের আবেদন স্বপ্ন পূরণ হচ্ছে ফুটবলার নাজমুল এর পীরগঞ্জে বাশিস এর নব-নির্বাচিত কমিটির শপথ গ্রহণ স্মার্ট পুলিশিং কার্যক্রম শিঘ্রই চালু করা হবে -রংপুরে অতিরিক্ত আইজি ঘোড়াঘাটে সড়ক দূর্ঘটনায় একই পরিবারের ২ জন নিহত আহত ৩ জন দেশ বিরোধী কর্মকান্ডকে রুখতে রংপুরে আওয়ামী লীগের শান্তি সমাবেশ দিনাজপুরে বঙ্গবন্ধু কন্যা প্রধানমন্ত্রী দেশরত্ন শেখ হাসিনার উপহার শীতবস্ত্র শনিবারে জেলা আঃলীগের নব-নির্বাচিত কমিটির সংবর্ধনা

নারায়ণগঞ্জে মসজিদ ট্রাজেডি: পাকুন্দিয়ার ফরিদ মৃত্যুর সাথে লড়াই করছেন হাসপাতালে

রিপোটারের নাম
  • আপডেট সময় : বুধবার, ৯ সেপ্টেম্বর, ২০২০
  • ২৩৩ বার পঠিত

সুবল চন্দ্র দাস।- কিশোরগঞ্জের পাকুন্দিয়া উপজেলার চরফরাদী ইউনিয়নের চরআলগী গ্রামের যুবক শেখ ফরিদ (২২)। তাঁর বাবা এমদাদ মিয়া পেশায় একজন কাঁচামাল বিক্রেতা। এ পেশার আয় দিয়েই চলছিল দুই ছেলে ও তিন মেয়েসহ সাত সদস্যের পরিবার। ৭-৮ মাস আগে নারায়ণগঞ্জের জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ে অফিস সহকারী কাম-কম্পিউটার মুদ্রাক্ষরিক পদে নিয়োগ পান পরিবারের বড় ছেলে শেখ ফরিদ। নিয়োগ পেয়ে নারায়ণগঞ্জ থেকে চাকরি করে আসছিলেন ফরিদ। এতে কিছুটা আশার আলো দেখছিল শেখ পরিবার। কিন্তু ভাগ্যের কি নির্মম পরিহাস। গত ৪ সেপ্টেম্বর নারায়ণগঞ্জের পশ্চিম তল্লা বায়তুস সালাত জামে মসজিদে এশার নামাজ পড়তে গিয়ে দগ্ধ হয়ে শরীরের প্রায় সব টুকুই পুড়ে গেছে ফরিদের। বর্তমানে তিনি ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের শেখ হাসিনা জাতীয় বার্ন ইনস্টিটিউটের নিবিড় পরিচর্যা কেন্দ্রে (আইসিইউ) চিকিৎসাধীন থেকে মৃত্যুর সঙ্গে লড়াই করছেন। ছটফট করছেন মৃত্যু যন্ত্রণায়। সন্তানের এমন পরিস্থিতিতে উদ্বেগ, উৎকণ্ঠা ও অজানা আতঙ্ক বিরাজ করছে শেখ ফরিদের পরিবারে। ঘটনার পর থেকেই ওই হাসপাতালে অবস্থান করছেন তাঁর মা-বাবা। প্রতি মূহুর্তে বিলাপ করছেন আর আল্লাহর কাছে দু’হাত তুলে দোয়া করছেন যেন প্রিয় সন্তানকে সুস্থ করে দেন। চরআলগী গ্রামের বাসিন্দারা জানান, শেখ ফরিদ খুবই বিনয়ী এক যুবক। তাঁর আচার-আচরণ, কথাবার্তা ও সুরেলা আজান গ্রামবাসীকে মুগ্ধ করে। গ্রামের সবাই তাঁর এমন অবস্থায় খুবই মর্মাহত। তারা আল্লাহর কাছে দোয়া করছেন, যেন মহান রাব্বুল আলামিন শেখ ফরিদকে সুস্থ করে দেন। শেখ ফরিদের বন্ধু বৎসল মামা সোহাগ মিয়া জানান, তিনি এখন হাসপাতালে রয়েছেন। ফরিদ আইসিইউ-তে আছেন। অবস্থা খুব একটা ভালো নয়। চিকিৎসকরা আল্লাহর কাছে দোয়া করতে বলেছেন। তাঁর (ফরিদ) মা-বাবা ভেঙে পড়েছেন। প্রতিনিয়ত কান্নাকাটি করছেন আর আল্লাহর সাহায্য চাচ্ছেন। মুখের একটু অংশ ব্যতিত প্রায় পুরো শরীরই পুড়ে গেছে ফরিদের। জ্ঞান ফিরলেও কথাবার্তা বলতে পারছেন না। শেখ ফরিদের জন্য দেশবাসী সকলের কাছে দোয়া চেয়েছে তাঁর পরিবার। সোহাগ মিয়া বলেন, গত ৪ সেপ্টেম্বর এশার নামাজ পড়তে নারায়ণগঞ্জের তল্লা মসজিদে যান ফরিদ। নামাজ শেষে জুতা আনতে মসজিদেও ভেতরে গেলে বিস্ফোরণের ঘটনা ঘটে। পরে এক রিকশাওয়ালা কোলে করে তাঁকে হাসপাতালে নিয়ে ভর্তি করেন। ঘটনার পর রাত ১২টার দিকে মুঠোফোনের মাধ্যমে শেখ ফরিদ দগ্ধ হওয়ার খবর জানতে পারেন তিনি। খবরটি তাঁর পরিবারকে জানানো হলে কান্নায় ভারী হয়ে উঠে ব্রহ্মপুত্র চরের চরআলগী গ্রামের আকাশ-বাতাস। চরআলগী গ্রামের সাবেক ইউপি সদস্য (মেম্বার) মো. আবদুর রাজ্জাক বলেন, ছেলেটি (শেখ ফরিদ) সম্পর্কে আমার নাতি। সে সব সময় চলতে ফিরতে এত সুন্দর আদব-কায়দা ছিল যা সবার নজরে পড়তো। খুব ইবাদত বন্দেগী করতো সে। বাড়িতে এলে মসজিদে আজান দিতো। তাঁর সুরেলা আজান সবাইকে মুগ্ধ করতো। নাতির সুস্থতার জন্য তিনি সকলের কাছে দোয়া চেয়েছেন।

 

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এই রকম আরো সংবাদ
© সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © 2020-2022 বজ্রকথা।
ডিজাইন ও কারিগরি সহযোগিতায়: Hostitbd.Com