বৃহস্পতিবার, ২৯ সেপ্টেম্বর ২০২২, ১০:৩৮ পূর্বাহ্ন

নৈশ্য আড্ডায় কথার তুবড়ি

রিপোটারের নাম
  • আপডেট সময় : রবিবার, ১৯ ডিসেম্বর, ২০২১
  • ৮১ বার পঠিত
 ফরিদুজামান ।- নৈশ আড্ডায় কথার তুবড়ি ছুটিয়ে উজির নাজির মারা কি বাঙালির আদি বৈশিষ্ট্য বহন করে? তা না হলে রক্ত পরম্পরায় সম্মিলনে প্রাণ জমে ওঠানোর আকাঙ্ক্ষা অনিবার্য হবে কেনো? আড্ডায় প্রাণ জমে ওঠানোর মুন্সিয়ানা কারো ভেতর স্বাবলীল হয়ে উঠলে তিনি আড্ডার মধ্যমণি হয়ে ওঠেন। এমনই দুই মধ্যমণি (১) কবি অসীম সাহা দাদা ও ছড়াকার আসলাম সানী ভাইয়ের মধ্যিখানে আজকের আড্ডায় এ অধম অবস্থান নিয়ে বাংলা প্রবাদের ‘কতো ধানে কতো চাল’ এর অর্থ হাড়ে হাড়ে টের পেয়েছি। আমি বরাবরই শোনাউল্লার দলে। বকাউল্লা ধাঁচের সাথে চলনসই না হওয়ার দুর্নাম আমার অনেক দিনের। তাই ‘বোবার শত্রুর নাই’ কে শিরোধার্য করে চুপচাপ বসে থাকা ভিন্ন গত্যান্তর নাই। স্থানটা কবি মাহবুবা লাকীর প্রকাশনা হাউজ ‘চিরদিন প্রকাশনী’, কনকর্ড এম্পোরিয়াম বেসমেন্ট, কাঁটাবন, ঢাকা। ফটো ক্রেডিট: কবি মোস্তাক মুকুল।
আড্ডা সম্পর্কে যৎকিঞ্চিত পদ্যে গদ্যে বন্ধুদের সাথে নিম্নে শেয়ার করলাম:
আড্ডা জমে
. . . . . . .ফরিদুজ্জামান :
বৃষ্টি হলে ঘনাঘমে চায়ের কাপে
ঝড়ের মাপে আড্ডা জমে
তারুণ্যের এক চিলতে লনে ইস্টিশনে
ঝমাঝমে আড্ডা জমে।
জলকলকল বাড্ডা বাঁধে ছেলে বুড়োর
সমাগমে আড্ডা জমে
বিতর্কটা উথলে ওঠে রোজ সকালে
রমারমে আড্ডা জমে।
স্নায়ু ঝড়ের সপ্তঋষি কলার সাধন
দমে দমে আড্ডাজমে
গল্পদাদুর গল্প শেষে জমজমাটে
থির কদমে আড্ডা জমে।
ক্যাম্পাসে বা খেলার মাঠে আকুল মনে
অনুপমে আড্ডা জমে।
আড্ডার সময়টায় মানুষ সংসারের ভাবনা চিন্তা, ব্যক্তিগত দুঃখ-কষ্ট ভুলে হাল্কা মনে বা ফুরফুরে মেজাজে থাকে। কবিদের জন্য আড্ডা জরুরী। আড্ডা তাদের জন্য ভাবনার নতুন নতুন দরজা খুলে দিতে পারে। একে অন্যের সঙ্গে ভাব ও জমানো ভাবনা বিনিময়ের ফলে অনেক বিষয় সহজ হয়ে ধরা দেয়, আবার অনেক সময়ই নতুন ও ভাল কবিতা লেখার প্রেরণা পাওয়া যায় এইসব আড্ডা থেকে।
কবিরা কোথায় আড্ডা দেন? তাদের আড্ডার ধরন ধারণই বা কেমন। কবিদের প্রতি সাধারণ মানুষের শ্রদ্ধা যেমন আছে তেমনি আছে কৌতূহলও প্রচুর। কবিদের আড্ডার জায়গাগুলো সঙ্গত কারণেই হয়ে ওঠে কৌতূহলোদ্দীপক ও বিশেষভাবে উল্লেখ করার মতো।
বাংলা কবিতা বাঁক বদলের ধারা বীক্ষণে কবিতার আড্ডার আইডিয়া একটি কার্যকর পদ্ধতি। কবিরা তাঁদের অন্তর বাজিয়ে কাব্য সুন্দরকে বাজাতে থাকেন। এমনই সুন্দরের স্পর্শে শ্রোতা কবিরা নিজকে শুধরে নেওয়ার অবকাশ খুজেঁ পান। এ ধরনের আড্ডাকে আনুষ্ঠানিক আড্ডা বলা যেতে পারে।
কবি উন্মুখ থাকে নতুন নতুন চিত্রকল্পের জন্য। তার ভেতর একই সঙ্গে ক্রিয়া করে ধ্যানের স্বভাব এ অস্থিরতার পদচারণা। কবিতার প্রয়োজনে, কিংবা বলা যায় মনের ভেতর জন্ম নেয়া প্রতিদিনকার তৃষ্ণা মেটাবার প্রয়োজনে, কবি ছুটে আসেন আড্ডায়। আড্ডা যেন নির্মল বাতাস, কবিতা নামক মাছগুলোর জন্য একান্ত প্রয়োজনীয় জল যেন একেক দিনের আড্ডা।
বাংলাদেশের কবিতার কেন্দ্র অবশ্যই ঢাকা। স্বাধীনতার পর থেকে ঢাকা কেন্দ্রিক সাহিত্যই প্রাধান্য পেয়ে আসছে। অর্থাৎ একজন কবি দেশের যে কোন অঞ্চলের চেয়ে ঢাকাকে অধিক উপযুক্ত মনে করেন কবিতা চর্চার জন্য।

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এই রকম আরো সংবাদ
© সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © 2020-2022 বজ্রকথা।
ডিজাইন ও কারিগরি সহযোগিতায়: Hostitbd.Com