সোমবার, ১৫ জুলাই ২০২৪, ১২:১১ পূর্বাহ্ন

পরীমণি নাসির উদ্দিন সমাচার গ্রেফতার-৫

রিপোটারের নাম
  • আপডেট সময় : মঙ্গলবার, ১৫ জুন, ২০২১
  • ১৬৪ বার পঠিত

বজ্রকথা ডেক্স।- চিত্রনায়িকা পরীমণিকে ধর্ষণচেষ্টা ও হত্যাচেষ্টার অভিযোগে করা মামলায় ঢাকা মহানগর গোয়েন্দা পুলিশ মামলার প্রধান আসামি নাসির ইউ মাহমুদসহ তুহিদ সিদ্দিকী অমি, লিপি, সুমি ও স্নিগ্ধা এ পাঁচজনকে গ্রেফতার করেছে। ১৪ জুন/২১ খ্রি: বেলা ৩টার দিকে উত্তরা ১ নম্বর সেক্টরের ১২ নম্বর সড়কের ১৩ নম্বর বাসার তৃতীয় তলার একটি ফ্ল্যাট থেকে তাদের গ্রেফতার করা হয়। এই মামলার প্রধান আসামী নাসির ইউ আহমেদ জাতীয় পার্টির প্রেসিডিয়াম সদস্য। উত্তরা ক্লাবের সাবেক সভাপতি। ঢাকা বোট ক্লাবের প্রতিষ্ঠাতা সদস্য এবং সাংস্কৃতিক সম্পাদক।

১৩ জুন/২১খ্রি” রবিবার রাতে রাজধানীর বনানীর বাসায় সংবাদ সম্মেলনের পর ১৪জুন সাভার থানায় মামলা করেন চিত্রনায়িকা পরীমণি। ওই মামলায় সাভার থানার অনুরোধেই নাসির ইউ আহমেদসহ বাকিদের গ্রেফতার করা হয়েছে বলে জানিয়েছেন ডিবির (উত্তর) যুগ্ম-কমিশনার হারুন অর রশীদ। গ্রেফতারের সময় তাদের কাছ থেকে মাদকও জব্দ করা হয়েছে।

এদিকে পরীমণি রবিবার রাতে বনানীর নিজ বাসায় সাংবাদিকদের জানিয়েছিলেন, গত ৮ জুন রাতে পারিবারিক বন্ধু অমি ও ব্যক্তিগত রূপসজ্জাশিল্পী জিমির সঙ্গে বাইরে বের হন। বন্ধুটি তাদের নিয়ে যান আশুলিয়ার একটি ক্লাবে। সেখানে মদ্যপানরত কয়েকজনের সঙ্গে পরীমণির পরিচয় করিয়ে দেন অমি। ওই ব্যক্তিদেরই একজন হঠাৎ জোর করে তার মুখে পানীয়র গøাস চেপে ধরেন এবং ধর্ষণের চেষ্টা করেন। এ সময় মারধর করা হয় পরীর সঙ্গে থাকা জিমিকেও। তিনি দাবি করেন, জিমির মাধ্যমেই তার অমির সঙ্গে পরিচয় হয়। দুই বছর ধরে তারা ভালো বন্ধু। মূলত জিমিকে তার বাসায় পৌঁছে দেওয়ার জন্যই তারা উত্তরার দিকে গিয়েছিলেন। আর অমির পরামর্শেই তারা ওই রাতে বোট ক্লাবে প্রবেশ করেন। চিত্রনায়িকা পরীমণির অভিযোগ, ঘটনার পরপরই বনানী থানায় অভিযোগ করতে গিয়েছিলেন তিনি। তবে সে সময় দায়িত্বপ্রাপ্ত কোনো কর্মকর্তা তার অভিযোগ রেকর্ড করেননি। সেখান থেকে পুলিশ সদস্যদের নিয়ে হাসপাতালে যাওয়ার এবং সকালে এসে অভিযোগ করার পরামর্শ দেয়া হয়েছিল। এ সময় পুলিশের সাহায্যে পরীমণি হাসপাতাল পর্যন্ত গিয়েও আতঙ্কবশত চিকিৎসা না নিয়েই বাড়ি ফিরে যান।

অপরদিকে এই ঘটনা সম্পর্কে গ্রেফতারের আগে নাসির ইউ মাহমুদ বলেছেন, সেদিনের ঘটনায় প্রতিবেদন ক্লাবকে দেওয়া হয়েছিল। পরের দিনই আমাদের ক্লাবের নিয়ম অনুযায়ী রিপোর্ট করা হয়েছে। আমাদের স্টাফরা লিখিতভাবে সব রিপোর্ট দিয়েছে। সেদিন পরীমণি জোর করে দামি মদ নিতে গেলে বাধা দিয়েছিলেন তিনি,তাতে এই অভিনেত্রী উত্তেজিত হয়ে পড়েছিলেন। নাসির আরও বলেছেন, তারা তো নিতে পারেন না, তারা তো মেম্বার নন। আমি জাস্ট তাদের বাধা দিয়েছি, এটা নেওয়া যাবে না। এটা বিক্রিযোগ্য নয়। এরপরই তিনি (পরীমণি) উত্তেজিত হয়ে যান। তারপর তিনি আমাকে গালাগালি শুরু করেন। আমার স্টাফরা তাকে থামানোর চেষ্টা করেন। পরীমণির সঙ্গীদের দ্বারা আক্রান্ত হয়েছিলেন বলেও পাল্টা অভিযোগ নাসির ইউ মাহমুদের।

এ বিষয়ে বনানী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) নূরে আজম মিয়া ঢাকার একটি সংবাদপত্রকে জানিয়েছিলেন থানায় অবস্থানের সময় পরীমণি স্বাভাবিক ছিলেন না। নেশাগ্রস্ত ছিলেন। থানার সিসিটিভি ফুটেজেও এই দৃশ্য সংরক্ষিত রয়েছে। তাকে পরদিন স্বাভাবিক অবস্থায় থানায় গিয়ে অভিযোগ দেওয়ার পরামর্শ দেওয়া হয়েছিল। তবে তিনি আর থানায় যাননি।

তদন্ত সংশ্লিষ্ট একটি সূত্র বলছে, মঙ্গলবার রাতে ‘৯৯৯’ এ কল করেন পরীমণি। কল লোকেশন অনুযায়ী তার অবস্থান ছিল গুলশান এলাকায়। তবে রবিবার সন্ধ্যায় ফেসবুক পোস্টে পরীমণি অভিযোগ করেন, তাকে ধর্ষণ ও হত্যাচেষ্টা করা হয়েছে। ফেসবুক পোস্টে প্রধানমন্ত্রীকে ‘মা’ সম্বোধন করে বিচার দাবি করেন।

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই রকম আরো সংবাদ
© সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © 2020-2022 বজ্রকথা।
ডিজাইন ও কারিগরি সহযোগিতায়: Hostitbd.Com