শুক্রবার, ৩১ মে ২০২৪, ০৩:৪৫ পূর্বাহ্ন
ব্রেকিং নিউজ :
পীরগঞ্জ উপজেলার কমিউনিটি ক্লিনিক ও উপ-স্বাস্থ্য কেন্দ্রে মেডিকেল সরঞ্জাম বিতরণ রিমেলে ক্ষতিগ্রস্ত পটুয়াখালী পরিদর্শনে গেছেন প্রধানমন্ত্রী শিক্ষকের বিরুদ্ধে দুর্নীতির অভিযোগ মোস্তফা মহসিন সুন্দরগঞ্জে উপজেলা পরিষদের নির্বাচনে চেয়ারম্যান নির্বাচিত দিনাজপুর সার্কেলের ড্রাইভিং লাইসেন্স পরীক্ষা সম্পন্ন দিনাজপুরে জাতীয় ভিটামিন ‘এ’ প্লাস ক্যাম্পেইন উদযাপনে এ্যাডভোকেসী দিনাজপুরে বিআরটিএ’র  রিফ্রেসার প্রশিক্ষণ সম্পন্ন রংপুরে উপজেলা  চেয়ারম্যান প্রার্থীর উপর হামলার অভিযোগ দিনাজপুরে দুর্নীতি প্রতিরোধ বিষয়ক রচনা ও বির্তক প্রতিযোগীতা   রংপুর বিভাগের নব নির্বাচিত উপজেলা চেয়ারম্যান- ভাইস চেয়ারম্যানের শপথগ্রহণ

পার্বতীপুরের মধ্যপাড়া পাথর খনিতে ৫ মাসে পাথর বিক্রির রেকর্ড

রিপোটারের নাম
  • আপডেট সময় : মঙ্গলবার, ২২ সেপ্টেম্বর, ২০২০
  • ৪৬০ বার পঠিত

এম এ আলম বাবলু,পার্বতীপুর (দিনাজপুর) প্রতিনিধি।- করোনার কারণে প্রায় সাড়ে চার মাস বন্ধ থাকার পর দিনাজপুরের পার্বতীপুরে মধ্যপাড়া পাথর খনিতে স্বাস্থ্যবিধি মেনে উৎপাদন কার্যক্রম শুরু করে খনির ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান জামার্নীয়া-টেস্ট কনসোর্টিয়াম (জিটিসি)।

গত ১৬ আগস্ট নতুন উদ্যোমে পাথর উত্তোলন শুরু হওয়ায় মুখরিত হয়ে উঠেছে পাথর খনি এলাকা। স্বস্তি ফিরে এসেছে খনি ভিত্তিক নানা পেশায় জড়িত শ্রমজীবি মানুষের মাঝে। করোনার কারণে উৎপাদন বন্ধ থাকা সত্বেও গত ২৯ এপ্রিল থেকে ২১ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত বিক্রি হয়েছে প্রায় ৬ লাখ ৫০ হাজার মেট্রিক টন পাথর। যার বিক্রয় মুল্য প্রায় ১৫৫ কোটি টাকা।

সোমবার পর্যন্ত খনি ইয়ার্ডে আরও প্রায় ১ লাখ মেট্টিক টন পাথর মজুদ রয়েছে। শুধু গত ১ সেপ্টম্বর থেকে ২১ সেপ্টম্বর ৭৩ হাজার ৫শ’ মেট্টিক টন পাথর উত্তোলন করা হয়। করোনা পূর্বকালে জিটিসি এ খনি থেকে প্রতিদিন গড়ে প্রায় সাড়ে ৫ হাজার মেট্রিক টন পাথর উত্তোলন করে খনির উৎপাদন ইতিহাসে নতুন রেকর্ড গড়ে। এর ফলে পাথর খনিটি লোকসানী প্রতিষ্ঠানের ধারা থেকে বেরিয়ে লাভজনক প্রতিষ্ঠানে পরিণত হয়।

খনি সূত্র জানায়, দেশে নির্মানধীন বিভিন্ন মেগা প্রকল্পে মধ্যপাড়ার উন্নতমানের পাথর ব্যবহারের কথা চিন্তা করে করোনাকালীন সময়ে স্বাস্থ্যবিধি মেনে পাথর উৎপাদন শুরু করতে ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান জিটিসিকে অনুরোধ করে খনি কর্তৃপক্ষ।

মধ্যপাড়া গ্রানাইট মাইনিং কোম্পানি লিমিটেডের ব্যবস্থাপনা পরিচালক (এমডি) এবিএম কামরুজ্জামান বলেন, বিশ্বব্যাপী করোনা সংক্রমণ বিস্তারের ফলে অন্য কোন উৎস থেকে উন্নতমানের পাথর সরবরাহ না পাওয়ায় দেশের বিভিন্ন সরকারি মেগা প্রকল্পের পাথরের চাহিদা পূরনের জন্য এ খনির বিশ্বমানের পাথর নেয়ার জন্য সকল প্রতিষ্ঠান আগ্রহী হয়ে ওঠে।
এছাড়াও মধ্যপাড়ার পাথর ব্যবহারে জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ মন্ত্রণালয়ের উদ্যোগে সাড়া দিয়ে রূপপুর পারমানবিক বিদ্যুৎ কেন্দ্র, রেলপথ ও সড়ক সেতু মন্ত্রনালয়সহ বহু সরকারি প্রতিষ্ঠান তাদের নির্মাণ কাজে মধ্যপাড়ার পাথর ব্যবহারের সিদ্ধান্ত গ্রহণ করেছে। এ ঘটনা মধ্যপাড়ার পাথরের চাহিদা ও বিক্রি বৃদ্ধিতে ইতিবাচক প্রভাব ফেলেছে বলে তিনি জানান৷

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই রকম আরো সংবাদ
© সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © 2020-2022 বজ্রকথা।
ডিজাইন ও কারিগরি সহযোগিতায়: Hostitbd.Com