শনিবার, ০২ মার্চ ২০২৪, ০৫:১৫ অপরাহ্ন
ব্রেকিং নিউজ :
চিলমারী কল্যাণ সমিতির কমিটি গঠন পীরগঞ্জে পাটচাষীদের প্রশিক্ষণ অনুষ্ঠিত   দিনাজপুর শিশু একাডেমীর চিত্রাংকনসহ বিভিন্ন প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত ফুলবাড়ীতে নেসকো গ্রাহকদের নিয়েপিএলসির নেসকোর  গণশুনানী ফুলবাড়ী শিবনগর ইউনিয়নে বয়স্ক ও বিধবা ভাতার কার্ড এর লটারি অনুষ্ঠিত  পলাশবাড়ীতে দুই বাইকের সংঘর্ষে আহত স্বদেশ এর মৃত্যু এসএসসি পরীক্ষায় মোবাইলে  প্রশ্নপত্র ফাঁস এক শিক্ষকের কারাদন্ড রংপুরে শেখ রাসেল জাতীয় শিশু কিশোর পরিষদের ৩৬ তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী পালন “শেকড় ” এর সহয়োগীতায় বর্ণমালায় রোদ্দুর কবিতা পাঠের আসর বাংলাদেশ প্রেসক্লাব পীরগঞ্জ শাখার সম্মেলন ও কমিটি গঠন

পীরগঞ্জের বেগম এর জীবনের করুণ কাহিনী

রিপোটারের নাম
  • আপডেট সময় : মঙ্গলবার, ২২ সেপ্টেম্বর, ২০২০
  • ৪৩৩ বার পঠিত

আবু তারেক বাঁধন,পীরগঞ্জ ঠাকুরগাঁও প্রতিনিধি।- কবি জসিমউদ্দীনের আসমানী কবিতার ভাষার মত করে বলতে হয় ‘আসমানীরে দেখতে যদি তোমরা সবে চাও, বেগমের ভাঙ্গা বাড়ি সিংগারোল (দহপাড়া) যাও’ ‘বাড়ি তো নয় পাখির বাসা ভেন্না পাতার ছানি, একটুখানি বৃষ্টি হলে গড়িয়ে পড়ে পানি’ ‘একটু খানি হাওয়া দিলেই ঘড় নড়বড় করে, তারি তলে বেগম থাকে বছর ভরে। রসুলপুরের আসমানী এখন আর নেই কিন্তু ঠাকুরগাঁয়ের পীরগঞ্জ সিংগারোল (দহপাড়া) তে সেই আসমানীর মতই জীবন নিয়ে বেঁচে আছে বেগম।

কবি জসিমউদ্দীন তার শ্বশুরবাড়ীতে বেড়াতে গিয়ে যেমন আসমানীর খোঁজ পেয়ে কবিতা রচনা করেন তেমনি পীরগঞ্জের উদীয়মান তরুণরা সিংগারোল (দহপাড়া) বেড়াতে গিয়ে এই বেগমের সন্ধান পেয়েছেন। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে এই সন্ধ্যারানীকে নিয়ে লেখালেখি করায় স্থানীয় জনপ্রতিনিধির নজরে আসে। এরই মধ্যে উপজেলা ৭নং হাজীপুর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান সিদ্দিকুর রহমান বেগমের কে বিধবা ভাতা করে দেওয়ার আশ্বাস দেন।

দীর্ঘ দিন ধরে মাটির দোয়ালের ঘর করে থাকা অবস্থায় স্বামীর মৃত্যুতে আঁধার নেমে আসে ২ সন্তানের জননী বেগমের জীবনে। তার দুই ছেলে। ছেলে দুটিকে নিয়ে তিনি ঠাকুরগাঁও জেলার পীরগঞ্জ উপজেলার হাজীপুর ইউনিয়নের সিংগারোল (দহপাড়া) মহল্লায় স্বামীর রেখে যাওয়া সেই কোঠা (মাটির) ঘরটিতেই পেয়েছিল মাথা গোঁজার ঠাঁই। কিন্তু সা¤প্রতিক অতিবৃষ্টিরপানিতে তার মাটির ঘরটি ভেঙ্গে পরে যায়। কোনো ঠিকানা না থাকায় সন্তান সহ নিজের জীবনের ঝুঁকি নিয়ে ঐ ঘরেই চরম কষ্টে পার করছেন তার জীবনের কঠিন মুহুর্ত্য গুলো। মৌলিক চাহিদার গুলোই যখন পূরণ হয় না তখনও ২ ছেলেকে স্কুলে পড়ানোর ভাবনা ছিল তার মাথায় । এক ছেলে এবার এসএসি পরীক্ষার্থী ।
স্থানীয় কয়েকজনের সাথে কথা বলে জানা যায়, বেগম নামে ঐ বিধবার থাকার খুব সমস্যা। তার এমন কঠিন দারিদ্র মুহুর্তেও তিনি ভিক্ষা না করে মানুষের বাসাতে দিনমজুরের কাজ করেন। বর্তমানে করোনা ভাইরাসের প্রাদুর্ভাবের কারণে কাজ-কর্ম সব বন্ধ। ফলে বেশির ভাগ সময় ধার দেনা করে চলতে হয় তাকে। কোনো কোনো দিন সন্তান নিয়ে না খেয়েও কাটাতে হয় দিন। ঘর তৈরি করবে কি দিয়ে। তাই হাত পা গুটিয়ে বসে রয়েছে বেগম। ইউনিয়ন পরিষদ থেকে অনেকেই সহায়তা পেলেও বেগম কিছুই পায়নি। বর্তমানে সে মানবেতর জীবনযাপন করছে।

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই রকম আরো সংবাদ
© সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © 2020-2022 বজ্রকথা।
ডিজাইন ও কারিগরি সহযোগিতায়: Hostitbd.Com