রবিবার, ০২ অক্টোবর ২০২২, ০৭:৪২ অপরাহ্ন

পীরগঞ্জে ঘটকদের একাল-সেকাল!

রিপোটারের নাম
  • আপডেট সময় : মঙ্গলবার, ১৭ নভেম্বর, ২০২০
  • ৫৯ বার পঠিত

পীরগঞ্জ (রংপুর) প্রতিনিধি।- কিছু কিছু মানুষের কর্ম এক হলেও কেউ পেশায়, কেউ নেশায় আবার কেউবা সখের বসে করে থাকেন। এ তিন ধরণের অনুভূতি প্রতিটি মানুষের কম-বেশী আছে, ছিল ভবিষ্যতেও থাকবে। তবে কিছু কিছু পেশায় একজন চলে যাবে, আরেক জন আসবে এটাই স্বাভাবিক। মানুষের এ তিন ধরণের ভিন্ন ভিন্ন মত হলেও বেশীর ভাগেই তারা উপকার করে থাকেন। ক্ষতি করার মানুষের সংখ্যা অতি নগন্য। যারা মানুষের উপকার করে তাদের সংসার জীবনের কেউ কি কখনও খোঁজ রাখে বা ভাবে। অর্জুন গাছের ছাল থাকে না। কারণ গাছটির ছাল দিয়ে মানুষের বেশ কয়েকটি রোগের উপকার হয়। আর এ কারণেই বলা হয়ে থাকে উপকারী গাছের ছাল থাকে না। ৩ জন ঘটক চিন্তায় মগ্ন থাকেন পীরগঞ্জের এক চা এর দোকানে। এদেরকে কেউ বলে ম্যারেজ মিডিয়াম্যান, ম্যারেজ মেকার ইত্যাদি। ছবির বাম থেকে শাহাবুল, মজিবর, জাহিদ মিয়া, ফুল মিয়া তাদের ৩ জনের উপজেলার রায়পুর ইউনিয়নে বাড়ী তাদের। এরা তিনজন কেউ পেশা, নেশা কেউ বা সখের বসে ঘটকির কাজ করেন। ফলিরবিল বাজারের ফুল মিয়া ম্যারেজ মেকার বা ঘটক মজিবর রহমান বলেন, তিনি প্রায় ২০ বছর ধরে এ পেশায় আছ্ েআগের মত এখন আর ঢাক-ঢোল পিটিয়ে পছন্দের জন্য ছেলে-মেয়ে দেখাদেখি হয় না। এখন শহরের বড় বড় নামি দামী হোটেল রেস্টুরেন্ট বা কোন দোকানে মালামাল ক্রয় করতে গিয়ে দেখা দেখি হয়। এরপর পছন্দ হলে শুরু হয় বাড়ী-ঘর দেখা দেকি, যৌতুক নির্ধারণ, দেনমোহর, লোক সংখ্যা ও বিয়ের দিন তারিখ। তিনি এ যাবৎ প্রায় শতাধিক ছেলে মেয়েদের বিয়ে দিয়েছেন। তবে এদের মধ্যে ভিআইপি পরিবারের সংখ্যা বেশী। তাছাড়া যৌতুক বিহীন বিয়েও দিয়েছেন তিনি। যারা সামাজিক মানুষ তাদের সন্তানের বিয়ে হলে খুশি মনে আমাকে (ঘটককে) ১৫-২০ হাজার টাকাও বকশিস বা উপহার দিয়েছেন। তারা মাঝে মধ্যে আমাদের (ঘটকের) খোজ-খবর নেন। তার সংসার জীবনে মা, স্ত্রী এক ছেলে ও এক মেয়ে আছে। সামান্য কয়েক শতক আবাদি জমি আছে তা দিয়ে কোন মতে কয়েক মাস চলে আরকি। বিয়ে অনুষ্ঠানে ছেলে পক্ষ মেয়েকে বিয়ের আসরে বসেই দেনমোহর পরিশোধ করেছেন এমন সংখ্যা ২-৩ জন। তিনি ক্ষোভের সাথে বলেন বর্তমান ডিজিটাল যুগে মোবাইল ফোন এসে তাদের এ পেশা বা সখ শতকরা পঞ্চাশ ভাগ কমে গেছে। ছেলে বা মেয়ে পক্ষ মোবাইল নম্বর পেলেই তারা আর ঘটকের সাথে যোগাযোগ না করে সরাসরি তারা নিজেরাই যোগাযোগ করেন। আর যদি মেয়েরা ছেলের মোবাইল ফোন নম্বর পায় তাহলে তো কোন কথাই নাই তখন আর ঘটক ভাইয়ের খাওয়া থাকে না। খুব শিঘ্রই ঘটকদের একটি সংগঠনের আত্ম প্রকাশ হতে যাচ্ছে। এ সংগঠনের মাধ্যমে তারা আগামীতে ছেলে বা মেয়ে পক্ষের লোকজনের সাথে চুক্তি করবেন অথবা ঠিকানা ও মোবাইল ফোন নম্বর বিক্রি করবেন। এদিকে এ তিন ঘটক ছাড়াও পীরগঞ্জে অসংখ্য ঘটক রয়েছে। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক ঘটক বলেন, বড় বড় উচ্চ শিক্ষিত পরিবারের মাঝে যৌতুকের প্রথা খুব বেশী। তবে গরীবদের মাঝে অবস্থা বা ছেলে কর্মের উপর কত টাকার যৌতুক দেয়া যাবে তা নির্ভর করে। গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকার ও এ সমাজের কাছে সচেতন মহলের প্রশ্নঘুনে ধরা এ সমাজ থেকে যৌতুক প্রথা কবে নাগাদ বন্ধ হবে।

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এই রকম আরো সংবাদ
© সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © 2020-2022 বজ্রকথা।
ডিজাইন ও কারিগরি সহযোগিতায়: Hostitbd.Com