1. admin@bwazarakatha.com : bwazarakatha com : bwazarakatha com
বৃহস্পতিবার, ১৬ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১১:১৭ পূর্বাহ্ন
ব্রেকিং নিউজ :

পীরগঞ্জে ড্রেন নির্মাণ কাজে বাঁশ জনস্বাস্থ্য বিভাগ চুপ!

  • আপডেট সময় : শনিবার, ৩ জুলাই, ২০২১
  • ৩৩ বার পঠিত

পীরগঞ্জ (রংপুর) প্রতিনিধি ।- রংপুরের পীরগঞ্জে বৃষ্টির মাধ্যে পানিতেই বাঁশ দিয়ে গুতিয়ে গুতিয়ে ড্রেন নির্মান কাজ করলেও রহস্য জনক কারনে চুপ রয়েছে উপজেলা জনস্বাস্থ্য প্রকৌশল বিভাগের তদারকি কর্মকর্তা। পীরগঞ্জ পৌরসভায় ৮ কোটি টাকা ব্যয়ে ড্রেন নির্মানে অনিয়ম এবং দুর্নীতির ব্যাপারে একাধিক অভিযোগ থাকলে নিরব রয়েছে উপজেলা জনস্বাস্থ্য প্রকৌশল বিভাগ। উপজেলা জনস্বাস্থ্য প্রকৌশল বিভাগ সুত্রে জানা গেছে, পীরগঞ্জ পৌরসভায় পানি সরবরাহ ও স্যানিটেশন ব্যবস্থার উন্নীতকরণ প্রকল্পের অধীনে ৮ কোটি টাকা ব্যয়ে ৯ কিলোমিটার ড্রেন নির্মানের জন্য দরপত্র আহ্বান করা হয়। দরপত্র প্রক্রিয়া শেষে রাজশাহীর মেসার্স সারাহ এন্টারপ্রাইজ’ নামের ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান কাজটি পায়। ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠানটি ড্রেন নির্মান কাজের শুরুতেই ঘাপলার আশ্রয় নিলে সচেতন পৌরবাসী নানান বিষয়ে অভিযোগ তুলেন কিন্তু উপজেলা জনস্বাস্থ্য বিভাগের তদারকি কর্মকর্তা প্রকৌশলী আল মামুন পীরগঞ্জ কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারের পাশে ড্রেন নির্মান কাজ আটকে দেন। তার পরেও দফায় দফায় ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান নিম্ন মানের নির্মাণ সামগ্রী ব্যবহার করে ড্রেন নির্মান কাজ চালিয়ে যাচ্ছে।এ ব্যাপারে নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এলাকাবাসী বলেন প্রকাশ্য দিবালোকে উন্নয়ন কাজে যে দুর্নীতি চলছে সেটা মেনে নেয়া যায়না ।

এদিকে গত কয়েকদিন পৌরসভার বিভিন্ন ওয়ার্ড ঘুরে দেখা যায়, পীরগঞ্জ বাসষ্ট্যান্ড থেকে মাদারগঞ্জ সড়কে পৌরসভার ৭ নং ওয়ার্ডের ওসমানপুর গ্রামে ড্রেনের ঢালাইয়ের ওয়াল নির্মানে বাঁশ দিয়ে কমপ্যাক্ট করা হচ্ছে। অথচ ওই কাজটি ভাইব্রেটিং মেশিন দিয়ে করার কথা। পাশাপাশি কাজটি তদারকির দায়িত্বপ্রাপ্ত কর্মকর্তাকেও পাওয়া যায়নি। সেখানে জনস্বাস্থ্য প্রকৌশল বিভাগের কেউই ছিলেন না। লেবার ও ঠিকাদার কর্তৃক নিযুক্ত দালাল মিলে নিজেদের খেয়াল মত যা খুশি তাই করছে।

অপর দিকে অভিযোগ উঠেছে,কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারের পাশে পানির মাঝে ড্রেন নির্মাণকালে এলকাবাসী বাঁধা দিলে কাজটি সাময়িক বন্ধ করে দেন তদারকি কর্মকর্তা কিন্তু রহস্য জনক কারণে আবারো আগের ইষ্টাইলেই কাজ চলছে! ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠানটির ম্যানেজার রুবেল মিয়া প্রথমে বাঁশ দিয়ে কাজ করার কথা অস্বীকার করেন। পরে তিনি বলেন, ভাইব্রেটিং মেশিনটি নষ্ট হওয়ায় কিছু সময় বাঁশ দিয়ে কাজ করা হয়েছিল। এখন আর বাঁশ ব্যবহার করা হচ্ছে না। তিনি আরও বলেন, পৌরসভার বিভিন্ন ওয়ার্ডের কাউন্সিলররা উপস্থিত থেকে কাজ করিয়ে নিচ্ছেন। আর এখনকার মানুষ সচেতন, তারাই কাজ বুঝে নিচ্ছেন। এ ব্যাপারে উপজেলা জনস্বাস্থ্য প্রকৌশলী আল মামুন বলেন, জুন ক্লোজিংয়ে ব্যস্ত থাকায় আমরা কেউই কাজ মনিটরিং করতে পারছি না। তবে এখন আর কোন নিম্নমানের কাজ করতে দেয়া হবে না।

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এই রকম আরো সংবাদ

© All rights reserved © 2020 Bwazarakatha.Com
Design & Development By Hostitbd.Com