শুক্রবার, ১৯ এপ্রিল ২০২৪, ১১:২৭ অপরাহ্ন
ব্রেকিং নিউজ :
উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে অংশ নিতে ইউপি চেয়ারম্যান পদ হতে পদত্যাগ বিশ্বব্যাংকের অর্থায়নে কক্সবাজার-শাহপরীর দ্বীপ মহাসড়কে স্ট্রিট লাইট, সিসি ক্যামেরা ও ফুটওভার ব্রিজ স্থাপন জরুরী দিনাজপুরে ঐতিহাসিক মুজিবনগর দিবস পালিত বারুনী মেলায় জুয়া বসানোয় ইউপি সদস্যের বিরুদ্ধে মামলা বাঙালীর সংস্কৃতি চর্চা নতুন প্রজন্মদের কাছে বাড়াতে হবে -হুইপ ইকবালুর রহিম এমপি পীরগঞ্জে হেরোইন গাঁজাসহ ৩ ব্যক্তি গ্রেফতার কাল ১৬ এপ্রিল রংপুরে আসছেন মাননীয় স্পীকার পীরগঞ্জে উপজেলা প্রশাসনের উদ্যোগে বর্ষবরণ পলাশবাড়ীতে সাড়াশি অভিযানে মাদক ও জুয়া  অভিযোগে গ্রেফতার -৩ পলাশবাড়ীতে ১৯৯২ ব্যাচের বন্ধু ফোরামের ঈদ পুনর্মিলনী  

পীরগঞ্জ উপজেলায় এবছর সাড়ে ১১শ হেক্টর জমিতে পিঁয়াজ আবাদ হয়েছে

রিপোটারের নাম
  • আপডেট সময় : রবিবার, ২২ নভেম্বর, ২০২০
  • ১৮৭ বার পঠিত

সুলতান আহমেদ সোনা।- ২০২০ সালে পিঁয়াজের আকাল গেছে। বলা যায় পিঁয়াজের জন্য হাহাকার পেড়েছিল বাংলাদেশে। পিঁয়াজের সংকট দেখা দেওয়ায় ভোক্তা সাধারণ যেমন চটেছিলেন তেমনী বিরোধী দলগুলোও সরকারের সমালোচনায় ছিল সরব। দেশে যে পিঁয়াজ একেবারেই ছিল না তা কিনতু নয়। হাটে বাজারে আড়তে পিঁয়াজ থাকলেও দাম ছিল আকাশ ছোঁয়া। বাধ্য হয়ে ২৫ টাকা ৩০ টাকার পিঁয়াজ সাধারন মানুষ ৯০ টাকা থেকে ১০০ টাকা কেজি দরে কিনতে বাধ্য হয়েছে। অবশ্য বাংলাদেশে পিঁয়াজের ঘাটতি রয়েছে। যে ঘটতি প্রতি বছর ভারত থেকে পিঁয়াজ আমদানী করে মেটানো হলেও হঠাৎ করে প্রতিবেশী ভারত বাংলাদেশের মানুষকে অনেকটা বিপদে ফেলতেই যেন পিঁয়াজ রপ্তানী বন্ধ করে দিয়েছিল। ফলে বাধ্য হয়ে সরকার মিয়ানমার,পাকিস্তান থেকে পিঁয়াজ আমদানীর সিদ্ধান্ত নিয়ে পরিস্থিতি সামাল দেয়ার চেষ্টা করেছে। তার পরেও শেষ রক্ষা হয়নি মূল্য বেধে দিয়েও দাম কমানো যায়নি।
এদিকে যে সব কৃষকের ঘরে এবছর পিঁয়াজ ছিল তারা বেশ বাড়তি দাম পেয়েছিলেন। যে সব কৃষক বিগত দিনে পিঁয়াজ আবাদ ছেড়ে দিয়েছিলেন তারা কিন্তু আগামী দিনে বাড়তি দাম পাবেন এমনটা আশা করেই বুকে বেধে এবার পিঁয়াজ আবাদে মনযোগ দিয়েছেন। এদিক থেকে পীরগঞ্জের কৃষকরাও পিছেয়ে নেই। এবছর পীরগঞ্জ উপজেলায় প্রায় সাড়ে ১১শ হেক্টর জমিতে পিঁয়াজ এর আবাদ হয়েছে বলে জানা গেছে। উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা সাদেকুজ্জামান সরকার জানিয়েছেন, চলতি মৌসুমে পীরগঞ্জ উপজেলায় ৯শ ২০ হেক্টর জমিতে পিঁয়াজ আবাদের লক্ষ্যমাত্রা ছিল কিনতু পিঁয়াজ চাষে কৃষকরা লক্ষ্যমাত্রার অধিক জমিতে পিঁয়াজ আবাদ করেছেন। তিনি বলেন, কৃষি বিভাগের হিসেবে মতে সাড়ে ১১শ হেক্টর জমিতে পিঁয়াজ আবাদ হয়েছে। এবার ফলন কেমন আশা করছেন ? এমন প্রশ্নের জবাবে কৃষিবিদ সাদেকুজ্জামান বজ্রকথাকে জানান হেক্টর প্রতি সাড়ে ১০ টন আশা করা হচ্ছে। তিনি আরো জানান, এই হিসেবে মোট উৎপাদন হবে ১২ হাজার ৭৫ মেট্রিক টন। যার সাম্ভব্য মূল্য ৫০ টাকা কেজি হিসেবে ৬০ কোটি টাকা।

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই রকম আরো সংবাদ
© সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © 2020-2022 বজ্রকথা।
ডিজাইন ও কারিগরি সহযোগিতায়: Hostitbd.Com