1. admin@bwazarakatha.com : bwazarakatha com : bwazarakatha com
মঙ্গলবার, ১৯ জানুয়ারী ২০২১, ০৯:২১ অপরাহ্ন

ফল চাষে পীরগঞ্জে কৃষকদের আগ্রহ বাড়ছে

  • আপডেট সময় : মঙ্গলবার, ১২ জানুয়ারী, ২০২১
  • ১০ বার পঠিত

সুলতান আহমেদ সোনা।- ফল বাগান বা ফল চাষ খুব লাভজনক, এই বিশ্বাসকে ধারণ করে পীরগঞ্জে পুরাতন ধ্যান ধারনার চাষবাস বাদ দিয়ে ফল চাষে মন দিচ্ছে কৃষক। সাম্প্রতিক সময়ে উন্নত মানের আম,পেয়ারা,মালটা,চাইনিজ কমলা,পেঁপে, লটকন এর বেশ কিছু বাগান গড়ে উঠেছে এই উপজেলায়। ব্যক্তিগত উদ্যোগে ও কৃষি বিভাগের পরামর্শে কৃষকরা লাভজনক ফলবাগান করার দিকে মন দিয়েছেন।

কিন্তু পীরগঞ্জ উপজেলায় বানিজ্যিক দৃষ্টিকোন থেকে ৩ দশক আগে ফলবাগান কেউ করেনি। এখানে প্রধান ফল বলতে ছিল আম,কাঁঠাল, নারিকেল, কলা। আগে এই সব ফলের যোগান পাওয়া যেত আঁটি থেকে লাগনো বাপ-দাদার আমলের সেই গাছ থেকে। আর কলার যোগান ছিল রাস্তার পাশে বা বাড়ির পরিত্যাক্ত জায়গায় অযত্নে বেড়ে উঠা বিচি কলা,মনুয়া কলার থোপ থেকে। মৌসুমী ফলের মধ্যে ছিল জাম,আতা,তেঁতুল, দেশি ররই ইত্যাদি। যা প্রাকৃতিক ভাবে জন্মানো গাছ উপহার দিত সকাইকে। দামি ফল বলতে যা বোঝায় যেমন আপেল, আঙ্গুর,কমলা, নাশপাতি, খেজুর এসব আসতো বিদেশ থেকে আমদানীর মাধ্যমে।

এই উপজেলায় সাগর কলার মাধ্যমে ফলের বানিজ্যিক উৎপাদন শুরু হয়েছিল ১৯৯০ সালের শুরুর দিক। এই সময় কলা চাষ করে কৃষকরা বেশ লাভবান হয়েছে। কলাচাষ সম্প্রসারিত হওয়ায় ওই সময়ে পীরগঞ্জে রংপুর-ঢাকা মহাসড়কের উপর পর পর তিনটি কলার হাট বসেছিল। এই উপজেলায় প্রথম কলার হাট বসে শুকান চৌকিতে, পরে হাট বসে লালদিঘীতে; তৃতীয় হাটির জন্ম হয় পীরগঞ্জে উৎপাদিত কলাকে কেন্দ্র করে জামতলা নামক স্থানে। সে সময় এখানকার জামতলা কলার হাট থেকে প্রতি মাসে গড়ে ৩০ কোটি টাকার কলা দক্ষিণবঙ্গে রপ্তানী হতো। এখন কিনতু কলা চাষ হ্রাস পেয়েছে।

পীরগঞ্জ উপজেলায় ২০০৮ থেকে ২০১০ সালের দিকে আঁটির চারা ছেড়ে উন্নত জাতের কলম চারার মাধ্যমে আম বাগান শুরু করেন কিছু সৌখিন কৃষক। বর্তমানে অবস্থার পরিবর্তন ঘটেছে এখন হাড়িভাঙ্গাসহ নানা জাতের কলম চারা লাগিয়ে আম চাষ করছে এ প্রজন্মের চাষিরা। বারোমাসি আম চাষের দিকেও দৃষ্টি দিয়েছে কৃষক। ২০১০ সালের দিকে পীরগঞ্জের ১৫টি ইউনিয়নেই কম বেশি আপেল কুলের চাষ বেশ জনপ্রিয় হয়ে উঠেছিল । অবশ্য এখন আর আপেল কুলের চাষ হচ্ছে না। তবে ইদানিং থাই পেয়ারা , পেঁপের চাষ হচ্ছে। আপেল কুল না থাকলেও কাশ্মিরী কুল ও টেষ্টি কুল এর বাগান করছে কৃষকরা। এ প্রজন্মের কৃষকরা বারোমাসি আম, লটকন,মালটা,চানিজ কমলা চাষে আগ্রহী হয়ে উঠেছে । আজ পীরগঞ্জের একজন সফল ফলচাষির কথা বলবো। এই ফলচাষির নাম মিজানুর রহমান (৩০)। তার পিতার নাম মনুয়ার হোসেন (৫৫)।তার বাড়ি শীবপুর (আদর্শ) গ্রামে। মিজান এক সময় বিদেশে ছিল। মালয়েশিয়ায় মালির কাজ করতো। দেশে ফিরে এসে সে সুন্দর ফল বাগান করেছে।মিজানুর রহমান ২শ শতক জমিতে ফল বাগান করে সফলতার মুখ দেখেছে। ২০১৬ সালে মালটা দিয়ে ফল বাগান শুরু করেছে সে। ২০২০সালে মিজানুর ৮ লাখ টাকার মালটা বিক্রী করেছে। পীরগঞ্জের মাটিতে সুন্দর, রসেভরা মালটার চাষ হচ্ছে। বিষয়টা ভাবতেই পুলকিত হই। মিজানুর শুধু মালটা চাষ করেই বসে নেই, এখন সে চারাও উৎপাদন করছে। পাশা পাশি, বিভিন্ন জাতের কমলার চাষও শুরু করেছে। তার এই কাজে সহযোগিতা করছে ছোট ভাই প্যারামেডিক মাসুদ রানা। ফল বাগান নিয়ে মাসুদের অনেক স্বপ্ন রয়েছে। সে জানিয়েছে, ইউটিউবে কৃষিবিদ সাইখ সিরাজ সাহেবের প্রতিবেদন দেখে লাভজনক ফল চাষে আগ্রহী হয়েছে। সে মাল্টা,কমলার পাশাপাশি পরীক্ষা মূলকভাবে সৌদি খেজুর, চাইনিজ ও বারোমাসি কমলা, কুল, পেয়ারা, আঁখ, সাদা এলাচ এর চাষ শুরু করেছে। মিজানুর রহমান বিশ্বাস করে তার দেখা দেখি বেকার যুবকরা ফল বাগান করে সাবলম্বি হবে এবং ফল-পুষ্টিতে দেশকে সমৃদ্ধ করে তুলবে।

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এই রকম আরো সংবাদ

© All rights reserved © 2020 Bwazarakatha.Com
Design & Development By Hostitbd.Com