রবিবার, ১৪ জুলাই ২০২৪, ১০:৫৪ অপরাহ্ন

ফুলবাড়ী পল্লীতে গভীর নলকূপ ভুয়া রেজুলেশন দেখিয়ে নিজ নামে করায় আদালতে মামলা

রিপোটারের নাম
  • আপডেট সময় : শনিবার, ৫ জুন, ২০২১
  • ১৬৩ বার পঠিত

দিনাজপুর (ফুলবাড়ী) প্রতিনিধি।- ফুলবাড়ী উপজেলার বেতদীঘি ইউপির ঝকঝকা কড়াই গ্রামের সাবেক ইউপি চেয়ারম্যান মৃত আব্দুল খালেক এর নামীয় গভীর নলকূপটির ভূয়া রেজুলেশন ও না দাবী তৈরি করে নিজের নামে নেওয়ার পায়তারা করছেন একই গ্রামের মোঃ হাফিজুর রহমান ও মোঃ এনামুল হক। একটি কুচক্রী মহল এর ষড়যন্ত্রের শিকার সাবেক ইউপি চেয়ারম্যান এর পুত্র মোঃ নুরুজ্জামান মিলন। দিনাজপুরের ফুলবাড়ী উপজেলার বেতদীঘি ইউপির মৃত আঃ খালেক এর মোঃ নুরুজ্জামান (মিলন) এর অভিযোগে জানা যায়, গত ১০/০২/২০১৩ ইং তারিখে জালিয়াতির মাধ্যমে হিসাব নং-৮০৫-৬১৪০ এর বৈদ্যুতিক সংযোগের মালিকানা/ নাম পরিবর্তন সংক্রান্ত্র বিষয়টি প্রমানিত হয়। এই বিষয়ে মৃত আব্দুল খালেক এর পুত্র ২২/০৩/২০২১ ইং তারিখে জেনারেল ম্যানেজার, দিনাজপুর পল্লী বিদ্যুৎ সমিতি-০২ এর বরাবর একটি লিখিত অভিয়োগ দায়ের করেন। উক্ত আবেদনের পরিপেক্ষিতে ২৫/০১/২০০৫ ইং তারিখে তার পিতার নামে উক্ত স্থানে স্থাপিত গভীর নলকূপটি পরিচালনার নিমিত্ত্বে পল্লীবিদ্যুৎ সমিতি থেকে ৩০ কিঃওঃ বিশিষ্ট বিদ্যুৎ সংযোগ গ্রহণ করেন । তার পিতা গত ০২/০২/২০১৩ ইং সালে মৃত্যুর পর মোঃ নুরুজ্জামান (মিলন) ফুলবাড়ী পল্লী বিদ্যুৎ সমিতিতে গিয়ে জানতে পারে যে, ঝকঝকা কড়াই গ্রামের হাফিজুর রহমান গভীর নলকূপটি তার নিজ নামে করে নেওয়ার জন্য না দাবী ও জাল কাগজ তৈরি করে ঝকঝকা গভীর নলকূপ সমিতি তৈরি করেন এবং মোঃ নুরুজ্জামান মিলনকে ম্যানেজার হিসাবে দেখানো হয়েছে। এই ঘটনার পরিপেক্ষিতে মৃত আব্দুল খালেক এর পুত্র মোঃ নুরুজ্জামান মিলান (৩০) কাগজপত্র জালিয়াতি করার পরিপেক্ষীতে বাদী হয়ে বিজ্ঞ সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিষ্ট্রেট আমলী আদালত-৫, ফুলবাড়ী, দিনাজপুর এ ৫ জনকে আসামী করে একটি মামলা দায়ের করেন। আসামীরা হলেন, ১। আবুল হোসেন (৪০) শিক্ষক, পিতা মৃত-অছির উদ্দীন, ২। আব্দুল মালেক (৫০) পিতা মৃত জসিম উদ্দীন, ৩। মোঃ তোজাম্মেল হক (৬০) পিতা মৃত তফিল উদ্দীন, ৪। আব্দুল কাদের (৫২) পিতা মৃত অফুর উদ্দীন, ৫। ফয়েজ উদ্দীন (৫৩) পিতা মৃত মছ উদ্দীন সর্ব সাং-৪ নং বেতদীঘি ইউপির ঝকঝকা কড়াই গ্রামে। যাহার মামলা সিআর-১৮/২০(ফুলবাড়ী), ধারা-৪২০/৪৬৭/৪৬৮/৪৭১/৩৪ দ:বি:। তারিখ-০৮/০৪/২০২০ ইং। বিজ্ঞ আদালত মামলাটি আমলে নিয়ে রাজশাহী ফরেনসিক ল্যাবরেটরি, পুলিশ সিআইডি দপ্তরে পাঠানো হলে পরীক্ষার পর কাগজপত্রে সমস্ত জালিয়াতি বলে ফরেনসিক রিপোটে প্রমান মেলে। এর পর বিজ্ঞ আদালত গত ১০-০৩-২০২১ ইং তারিখে ঐ ৫ জননের বিরুদ্ধে গ্রেফতারি পরোয়ানা জারি করেন। ফুলবাড়ী থানার পুলিশ ওয়ারেন্ট অনুযায়ী ১ জনকে আটক করলেও বাকিরা জামিন নেন। বর্তমান মৌজার নাম পরিবর্তন করে জালিয়াতি চক্রের হোতা মোঃ এনামুল হক ঝকঝকা গভীর নলকূপ সমিতি তৈরি করে নিজ নামে গভীর নলকূপটি চালাচ্ছেন। পূর্বে ছিল হরগোবিন্দপুর মৌজা, দাগনং-২৫৬, খতিয়ান-৪৫, জেএলল নং-১১৯, জমির পরিমান-৩ একর ২৬ শতক এর মধ্যে গভীর নলকূপটি স্থাপিত। প্রথম সংযোগ গ্রাহণ করেন গত ২৫-০১-২০০৫ ইং সালে মোঃ আব্দুল খালেক। আব্দুল খালেক এর মৃত্যুর পর ১০-০২-২০১৩ ইং তারিখে জালিয়াতি চক্ররের হোতা মোঃ হাফিজুর রহমান ২য় সংযোগটি গ্রহণ করেন। ৩য় সংযোগটি গ্রহণ করান আব্দুল খালেক এর মৃত্যুর তার পুত্র মোঃ নুরুজ্জামান মিলনকে ম্যানেজার হিসাবে দেখান ২২-০৫-২০১৩। এই মর্মে দিনাজপুর পল্লীবিদ্যুৎ সমিতি-০২ এর জেনারেল ম্যানেজার মোঃ আজাদ হোসেন ১১-০৩-২০২১ ইং তারিখে মোঃ নুরুজ্জামান মিলন কে একটি পত্র দ্বারা অবগত করেন। গত ১৮-০৪-২০২১ ইং তারিখে মামলা চলাকালীন অবস্থায় সংযোগের নাম পরিবর্তন করা যাবেনা মর্মে আর একটি পত্র প্রদান করেন। এতে প্রতিয়মান হয় প্রতিপক্ষদের পক্ষ নিয়ে প্রকৃত গভীর নলকূপের মালিককে হয়রানি করা ছাড়া আর কিছু নয়। এই বিষয়ে গভীর নলকূপের প্রকৃত মালিক মোঃ নুরুজ্জামান মিলন বলেন, জাল, ভূয়া কাগজপত্র সৃষ্টি করায় তাদের বৈদ্যুতিক লাইন এর নাম বাতিল করে আমার নামে বৈদ্যুতিক লাইন দেওয়ার জন্য পল্লী বিদ্যুৎ সমিতির চেয়ারম্যানর এর তদন্ত সাপেক্ষে আসু-হস্তক্ষেক কামনা করছেন।

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই রকম আরো সংবাদ
© সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © 2020-2022 বজ্রকথা।
ডিজাইন ও কারিগরি সহযোগিতায়: Hostitbd.Com