বৃহস্পতিবার, ১৮ এপ্রিল ২০২৪, ০৫:২৫ অপরাহ্ন

ফুলবাড়ী শিবনগর ইউনিয়নে বয়স্ক ও বিধবা ভাতার কার্ড এর লটারি অনুষ্ঠিত 

রিপোটারের নাম
  • আপডেট সময় : বৃহস্পতিবার, ২২ ফেব্রুয়ারী, ২০২৪
  • ৩৮ বার পঠিত
দিনাজপুর (ফুলবাড়ী) থেকে মোঃ আশরাফুল আলম।-দিনাজপুরের ফুলবাড়ী উপজেলার শিবনগর ইউনিয়নে বয়স্ক ও বিধবা ভাতার কার্ড এর নামের তালিকা করতে স্বচ্ছতার লক্ষ্যে লটারি অনুষ্ঠিত হয়েছে। গতকাল বুধবার সকাল ১১টায় শিবনগর ইউনিয়ন পরিষদে বিধবা ও বয়স্ক ভাতার জন্য আবেদনকারীদের সামনে উন্মুক্ত লটারি করেন শিবনগর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান সামেদুল ইসলাম।
এ সময় উপস্থিত ছিলেন পরিষদের প্যানেল চেয়ারম্যান দিলীপ চন্দ্র রায়,মহিলা সদস্য মঞ্জুয়ারা বিউটি,সদস্য নুরুল ইসলাম নুরু সহ সকল সদস্যবৃন্দ ও পরিষদের কর্মকর্তা-কর্মচারীবৃন্দ। তথ্য নিয়ে জানা যায়, ২০২৪ সালের বয়স্ক ভাতার কার্ড শিবনগর ইউনিয়ন বরাদ্দ পেয়েছে ২৫ টি কিন্তু আবেদন করেছেন প্রায় ৪০০ জন। বিধবা ভাতার কার্ড বরাদ্দ পেয়েছে ৩১টি।আবেদন পড়েছে প্রায় ৩০০টি। সেজন্য নামের তালিকা প্রদানে স্বচ্ছতার লক্ষ্যে সবার সামনে উন্মুক্ত লটারি করা হয়।দিনাজপুরের ফুলবাড়ী উপজেলার শিবনগর ইউনিয়নে বয়স্ক ও বিধবা ভাতার কার্ড এর নামের তালিকা করতে স্বচ্ছতার লক্ষ্যে লটারি অনুষ্ঠিত হয়েছে। গতকাল বুধবার সকাল ১১টায় শিবনগর ইউনিয়ন পরিষদে বিধবা ও বয়স্ক ভাতার জন্য আবেদনকারীদের সামনে উন্মুক্ত লটারি করেন শিবনগর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান সামেদুল ইসলাম।এ সময় উপস্থিত ছিলেন পরিষদের প্যানেল চেয়ারম্যান দিলীপ চন্দ্র রায়,মহিলা সদস্য মঞ্জুয়ারা বিউটি,সদস্য নুরুল ইসলাম নুরু সহ সকল সদস্যবৃন্দ ও পরিষদের কর্মকর্তা-কর্মচারীবৃন্দ। তথ্য নিয়ে জানা যায়, ২০২৪ সালের বয়স্ক ভাতার কার্ড
শিবনগর ইউনিয়ন বরাদ্দ পেয়েছে ২৫ টি কিন্তু আবেদন করেছেন প্রায় ৪০০ জন। বিধবা ভাতার কার্ড বরাদ্দ পেয়েছে ৩১টি।আবেদন পড়েছে প্রায় ৩০০টি। সেজন্য নামের তালিকা প্রদানে স্বচ্ছতার লক্ষ্যে সবার সামনে উন্মুক্ত লটারি করা হয়। এবিষয়ে শিবনগর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান সামেদুল ইসলাম জানান,আমরা যা বরাদ্দ পেয়েছি তার চেয়ে অনেক গুণ বেশি আবেদন জমা পড়েছে। সে কারণে আমরা সকলে মিলে আলোচনা করে লটারির মাধ্যমে কার্ডের নামের তালিকা ফাইনাল করতে লটারির সিদ্ধান্ত নিয়েছি। যাতে করে কোন রকম অসচ্ছতা না থাকে। বিষয়টি নিয়ে কথা হয় ৭নং ওয়ার্ডের সদস্য নুরুল ইসলাম নুরুর সঙ্গে। তিনি জানান, চেয়ারম্যানের এই সিদ্ধান্ত অত্যন্ত সুন্দর হয়েছে।আমরা সকল সদস্যরা মিলে স্বচ্ছ ভাবে কার্ডের নাম গুলো ফাইনাল করতে চাই। এখানে যেন কোন রকম অসচ্ছতা না থাকে সেজন্যই এই লটারি অনুষ্ঠিত হয়েছে।এ বিষয়ে উপজেলা সমাজসেবা কর্মকর্তা আখতারুজ্জামান জানান, এটি একটি স্বচ্ছ প্রক্রিয়া। আমাদের বরাদ্দ কম। কিন্তু আবেদন অনেক বেশি। সেজন্য লটারির মাধ্যমে দেওয়াটা সঠিক সিদ্ধান্ত হয়েছে।
এ বিষয়ে ফুলবাড়ী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ইউএনও মীর মোঃ আল কামাহ তমাল জানান, যেহেতু সরকারের বরাদ্দ সীমিত, আবেদন অনেক বেশি, সেজন্য আমি মনে করছি লটারির প্রক্রিয়াটি অত্যন্ত সুন্দর এবং সঠিক সিদ্ধান্ত হয়েছে। এখানে অস্বচ্ছতার কোন সুযোগ নেই। যারা বাদ পড়েছেন পরবর্তী বরাদ্দতে তাদের দেওয়ার চেষ্টা করা হবে। এখন নতুন করে আর কোন সুযোগ নেই।

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই রকম আরো সংবাদ
© সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © 2020-2022 বজ্রকথা।
ডিজাইন ও কারিগরি সহযোগিতায়: Hostitbd.Com