1. admin@bwazarakatha.com : bwazarakatha com : bwazarakatha com
শুক্রবার, ১৫ অক্টোবর ২০২১, ০৬:৩৭ পূর্বাহ্ন
ব্রেকিং নিউজ :
সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি বিনষ্টকারী ও পূজামন্ডপে হামলায় জড়িত কেউই ছাড় পাবে না : মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রী পলাশবাড়ীতে মোটর সাইকেল দূর্ঘটনায় যুবক নিহত বিশ্বসেরা গবেষকদের তালিকায় স্থান পেয়েছে রংপুর রোকেয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের ৭ শিক্ষক দিনাজপুরে দুর্গামন্ডপগুলোয় শহর আওয়ামীলীগের স্বাস্থ্য সুরক্ষা সামগ্রী বিতরণ অব্যাহত  ফুলবাড়ী সহকারী কমিশনার ভূমি অফিস ১০ বছরে মধ্যে জরাজীর্ণ বিরামপুরে দূর্যোগ প্রশমন দিবস পালিত বিরামপুরে ইঁদুর নিধন অভিযান শুরু সাপাহারে আন্তঃজেলা চোর চক্রের সক্রিয় ৩ সদস্য আটক সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতির সবচেয়ে বড় উদাহরণ বাংলাদেশ -এমপি মনোরঞ্জন শীল গোপাল পীরগঞ্জ উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতির মৃত্যুতে বিভিন্ন মহলের শোক

ফ্রান্সে যা করা হচ্ছে তা গ্রহনযোগ্য নয়

  • আপডেট সময় : বুধবার, ২৮ অক্টোবর, ২০২০
  • ৪৫ বার পঠিত

-সুলতান আহমেদ সোনা

স্পষ্ট করে বলছি, ধর্মপালনের বিষয়টি প্রতিটি মানুষের একান্ত নিজস্ব ব্যাপার। সেই সাথে বলতে চাই, বিবেক সম্পন্ন কোন মানুষ যেন কোন ধর্মকে ছোট করে না দেখেন। কেউ যেন কোন ধর্মের প্রবর্তক বা ধর্মীয় গুরুকে কোনভাবেই হেয় না করেন।
বলছি, পৃথিবীর সকল সুস্থ মানুষ জানেন এবং মানেন সারা পৃথিবীতে ইসলামের অনুসারী মুসলমানরা বৃহত একটি গোষ্ঠি। যারা হযরত মুহাম্মদ (সাঃ) কে তাদের পথ প্রদর্শক হিসেবে শ্রদ্ধাকরেন এবং একজন নবী ও রাসুল হিসেবে তাকে অনুস্মরণ করেন। এই বিষয়টি মুসলমানদের একান্ত ব্যক্তিগত ব্যাপার। মুসলমানদের মধ্যে যে ধর্মীয় বিশ্বাস ও অনুভুতি কাজ করে, সেখানে আঘাত করা উচিত নয়। তাই বলছি, মত প্রকাশের স্বাধীনতার নামে ফ্রান্সে যা করা হচ্ছে তা গ্রহনযোগ্য নয়।
আমরা অনেক সময় লক্ষ্য করেছি, একশ্রেণীর মানুষ যারা অন্য ধর্মের অনুসারী তারা মুসলমান, বিশেষ করে ইসলামের অনুসারীদের উত্তপ্ত, উত্ত্যক্ত করেন বা খোঁচা দিয়ে মজাপান। তারা ইসলামকে হেয় করতে চান, মহানবী হযরত মুহাম্মদ (সাঃ)কে হেয় করতে উদ্যোগী হয়ে থাকেন। তাদের সংখ্যা কিন্তু ফ্রান্সে বেশী।
বিশেষ করে ফ্রান্সের বিতর্কিত সাময়িকী শার্লি এবদো এ কারনে ব্যাপক ভাবে সমালোচিত! সম্প্রতি ফ্রান্সে স্যামুয়েল প্যাটি নামের ইতিহাস ও ভূগোলের এক শিক্ষক ক্লাসে মহানবী (সা.)-এর ব্যঙ্গচিত্র প্রদর্শন করেছিলেন; শার্লি এবদো মোহাম্মদ (সা.)-এর যেসব ব্যঙ্গচিত্র প্রকাশ করে বিশ্বজুড়ে বিতর্ক সৃষ্টি করেছে, সেই ব্যঙ্গচিত্রগুলোর কয়েকটি ক্লাসে মতপ্রকাশের স্বাধীনতা নামে প্রদর্শন করেছিলেন স্যামুয়েল। এ কারণে কয়েকজন মুসলিম অভিভাবক স্কুল কর্তৃপক্ষের কাছে লিখিত অভিযোগও করেছিলেন, কিন্তু কাজ হয়নি। ওই ব্যঙ্গচিত্র প্রদর্শনের পর থেকে স্যামুয়েল হত্যার হুমকি পাচ্ছিলেন। এদিকে ওই স্কুলে ব্যঙ্গচিত্র প্রদর্শনের ঘটনায় ক্ষুব্ধ হয়ে ফ্রান্সের রাজধানী প্যারিসে ১৮ বছর বয়সী চেচেন বংশোদ্ভূত ফরাসি এক হামলাকারী ওই শিক্ষককে গলা কেটে হত্যার ঘটনা ঘটায়। প্যারিসের উত্তর-পশ্চিমের শহরতলী এলাকার রাস্তায় স্যামুয়েলকে ছুরি দিয়ে গলা কেটে হত্যা করা হয়, হামলাকারীও সঙ্গে সঙ্গে পুলিশের গুলিতে নিহত হয়। এ ঘটনায় ৯ জনকে গ্রেফতার করা হয়েছে। এর মধ্যে স্যামুয়েলের স্কুলের এক শিক্ষার্থীর বাবা-মাও রয়েছেন বলে জানা গেছে।
এ হত্যার ঘটনাকে ‘ইসলামী সন্ত্রাসী হামলা’ বলে অভিহিত করেছেন ফরাসি প্রেসিডেন্ট ইমানুয়েল ম্যাক্রোঁ। তিনি ঘটনাস্থল পরিদর্শ করেছেন এবং বলেছেন ‘মতপ্রকাশের স্বাধীনতার’ শিক্ষা দিচ্ছিলেন বলে ওই শিক্ষককে হত্যা করা হয়েছে। শিক্ষক হত্যার ঘটনা এমন সময় ঘটল, যখন ২০১৫ সালে শার্লি এবদো পত্রিকার অফিসে হামলার বিচার চলমান। ওই হামলার ঘটনাও ঘটেছিল মহানবী (সা.)-এর ব্যঙ্গচিত্র প্রকাশের কারণে।জানা যায় দেশটিতে ঘোষণা দিয়ে মহানবী (সাঃ)-এর ব্যঙ্গচিত্র প্রকাশ করা হয়। বিষয়টিকে তারা মতপ্রকাশের স্বাধীনতা বলে থাকে। ওই ঘটনার পর অন্তত ৫০টি মসজিদ ও মুসলিম-অধ্যুষিত এলাকায় ভয়াবহ অভিযান চালায় দেশটির নিরাপত্তা বাহিনী। দুঃখজনক হলেও সত্য মহানবী (সা.)-এর ব্যঙ্গচিত্র প্রকাশ অব্যাহত রাখার ঘোষণা দিয়েছেন দেশটির প্রেসিডেন্ট ইমানুয়েল ম্যাক্রোঁ। তার এই ঘোষণা ইসলামের বিরুদ্ধে যুদ্ধ ঘোষনার সামিল !
তার এ ঘোষণায় মুসলিম বিশ্বে তীব্র প্রতিক্রিয়া তৈরি হয়েছে। ইসলামের প্রতি এমন মানসিকতার জন্য ম্যাক্রোঁর মানসিক চিকিৎসা দরকার বলে মন্তব্য করেছেন এরদোয়ান। মহানবী (সাঃ)-এর ব্যঙ্গচিত্র প্রকাশ করার কারনে সারা দুনিয়ার মুসলমানরা ক্ষুব্ধ হয়ে উঠেছে। প্রতিবাদের ঝড় উঠেছে।
দ্দধু তাই নয় ফ্রান্স সরকার সে দেশের ৭৩টি মসজিদ ও স্কুল বন্ধ করে দিয়েছে। অপরদিকে মুসলিম দেশগুলো ফরাসি পণ্য বর্জনের আহবান জানিয়েছে।
এখন কথা হচ্ছে,বিবেকবান মানুষরা নিশ্চয় একমত হবেন ধর্ম নিয়ে এমন দ্ব›দ্ব বাধায় তারা আসলে ধার্মিক নয়। ফ্রান্সে ইসলামকে যে ভাবে অবমাননা করা হচ্ছে সেটা মানা যায় না। এটা চলতে থাকলে সারা দুনিয়ায় শান্তি বিঘিœত হবে। আরো অনাকাঙ্খিত ঘটনা ঘটতে থাকবে। অনাকাঙ্খিত ঘটনা কারো কাম্য নয়। আমরা শান্তিতে বিশ্বাসী, সকল ধর্মমতের মানুষের সহাবস্থানে বিশ্বাসী। আমি মতপ্রকাশের স্বাধীনতায় বিশ্বাসী কিন্তু অন্যের স্বাধীনতা হরণ করা, অন্যের বিশ্বাস নিয়ে ব্যঙ্গ বিদ্রæপ করার মানে তো মতপ্রকাশের স্বাধীনতা নয় ! নবী মুহাম্মদ (সাঃ)কে নিয়ে যা করা হচ্ছে ফ্রান্সে, সেটা স্পটতই মুসলিম বিদ্বেষ! ইসলাম বিরোধী কর্মকান্ড, এসব ধর্মীয় অনুভুতিতে চরম আঘাত। এটা মানা যায় না গ্রহন যোগ্য নয়।
আমরা মনে করি ফ্রান্সের উচিত সকল ধর্মের প্রতি শ্রদ্ধা প্রদর্শন করা। সকল মানুষের ধর্মীয় স্বাধীনতা ও ধর্মপালনের অধীকার নিশ্চিত করা। প্রেসিডেন্ট ইমানুয়েল ম্যাক্রোঁ এই বিষয়ে আন্তরিক ও উদার হলে এবং সকল নাগরিকের নিরাপত্তায় নিশ্চিত করতে পারলেই তিনি সকলের কাছে একজন ভালো মানুষ, ধার্মিক, এবং সুস্থ মানুষ হিসেবে, শ্রদ্ধার পাত্র হিসেবে গণ্য হবেন। নইলে ইতিহাসের পাতায় তার নাম লেখা থাকবে ইসলাম বিদ্বেষি ঘৃর্নিত মানুষ হিসেবে। আমরা চাইবো ফ্রান্স সরকার বিশেষ করে প্রেসিডেন্ট ইমানুয়েল ম্যাক্রোঁর বোধদোয় হবে এবং তিনি সে দেশে ইসলাম বিরোধী কর্মকান্ড বন্ধ করবেন, কোন কথা বলার সময় হিসেব করে বলবেন।

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এই রকম আরো সংবাদ

© All rights reserved © 2020 Bwazarakatha.Com
Design & Development By Hostitbd.Com