বুধবার, ১৭ জুলাই ২০২৪, ০৩:০০ পূর্বাহ্ন
ব্রেকিং নিউজ :
কোটা বিরোধী আন্দোলনে নিহত শিক্ষার্থী সাঈদের বাড়ীতে শোকের মাতম নেটওয়ার্কের সক্ষমতা বাড়াতে এআই যুক্ত করার ঘোষণা হুয়াওয়ের রংপুরে কোটা বিরোধী আন্দোলন এক শিক্ষার্থী নিহত তৃণমূল পর্যায়ে চিকিৎসার মান উন্নত করলে বেসরকারি হাসপাতাল ও ক্লিনিক রোগী শুন্য হবে-স্বাস্থ্যমন্ত্রী   পার্বতীপুর প্রেসক্লাবের উদ্যোগে নবনির্বাচিত উপজেলা চেয়ারম্যান ও ভাইসচেয়ারম্যানদের সংবর্ধনা বন্যার পানিতে সাঁতরে বন্যার্তদের ত্রাণ সংগ্রহ পার্বতীপুর পৌরসভায় মৌসুমি ফল উৎসব বড় পুকুরিয়া কয়লা খনির কারণে ক্ষতিগ্রস্তদের মানববন্ধন পার্বতীপুর পৌরসভায়  ড্রেন নির্মান কাজের উদ্বোধন দিনাজপুর-বিরামপুর -ঘোড়াঘাট সড়কে প্রতিনিয়ত দুর্ঘটনা ঘটছে

বগুড়ার শেরপুরের ইউএনও’র গাড়িতে হামলা ও ভাংচুর মামলার আসামীরা পুনরায় বালু তুলছে

রিপোটারের নাম
  • আপডেট সময় : মঙ্গলবার, ৬ জুলাই, ২০২১
  • ১৫০ বার পঠিত
dav

উত্তম সরকার, বগুড়া প্রতিনিধি।- বাঙালী নদীতে খননযন্ত্র (শ্যালোমেশিন) বসিয়ে মামলার আসামীরা অবাধে পুনরায় বালু অবৈধ ভাবে বালু উত্তোলনে ব্যস্ত। উপজেলার খামারকান্দি ও খানপুর ইউনিয়নের নলডিঙ্গি ও গজারিয়া-বড়ইতলী গ্রামের বাঙালী নদী থেকে এ বালু তোলা হচ্ছে। বালু উত্তোলনকারীরা ইউএনও’র গাড়িতে হামলা ও ভাংচুর মামলার আসামী।

জানা যায়, গত বছর ২০২০ সালের ৩ অক্টোবর উপজেলার খামারকান্দি ইউনিয়নের নলডিঙ্গি গ্রামে বালু তুলতে বাঁধা দিতে এসে বালু দস্যুদের হামলায় শিকার হয়েছিল উপজেলার নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও)। ওই হামলায় ইউএনও’র ব্যবহারকারী গাড়ী ক্ষতিগ্রস্থ হয়। এসময় সাথে থাকা এক কর্মচারী আহত হয়েছিল। এ ঘটনায় একটি মামলা দায়ের করা হয়েছিল। সেই মামলার আসামীরাই আবার নতুন করে বাঙালী নদী থেকে বালু উত্তোলন করছে।

স্থানীয়রা জানায়, উপজেলার খামারকান্দি ইউনিয়নের নলডিঙ্গি গ্রামের মো. মিলন, রাজু ও শফিকুল ইসলাম এবং খানপুর ইউনিয়নের গজারিয়া গ্রামের মো. রুবেল বাঙালী নদীতে অবৈধভাবে বালু তোলার মেশিন বসিয়েছে। বাড়ি নির্মানের জন্য পুকুর ভরাটের জন্য প্রতিদিন তোলা হচ্ছে বালু। অন্তত দুই-তিনমাস ধরে উক্ত ব্যক্তিরা বাঙালী নদীতে ভাসমান নৌকার ওপর শ্যালো মেশিন বসিয়ে প্লাস্টিকের পাইপের মাধ্যমে নদীর ভূগর্ভস্থ থেকে বালু উত্তোলন করেছে।

তোলা বালুর স্তুপ করা হয়েছে নদী থেকে অনেক দূরে। এখান থেকে সহজেই তারা বিক্রি করতে পারছেন। বালু উত্তোলনকারী শফিকুল ইসলাম জানায়, তিনি তিন দিন আগে এই নদী থেকে বালু তোলা শুরু করেছেন। ব্যক্তিগত প্রয়োজনে তিনি নদীর মধ্যে শ্যালো মেশিন বসিয়েছেন। খননযন্ত্রটি ধুনট উপজেলার এলাঙ্গি ইউনিয়ন পরিষদের সদস্য মাসুদ রানার কাছ থেকে বালু উত্তোনের জন্য ভাড়া নিয়েছেন।

রাজু আহম্মেদ বলেন, তার আরো দুই সহযোগি মো. মিলন ও রুবেল বাঙালী নদী থেকে বালু তুলে স্থানীয় মানুষজনের কাছে বিক্রি করে আসছেন। তারা সব সময় বালু উত্তোলন করে না। মানুষের প্রয়োজন হলে তখনই তারা নদী থেকে বালু উত্তোলন করে।

এলাকাবাসীরা বলেন, বাঙালী নদী থেকে এভাবে বালু তোলা হলে নদীর পাশে ফসলি জমিগুলো ভেঙে নদীতে বিলীন হবে। এখন বর্ষার সময়। পানি নেমে যাওয়ার সাথে সাথে আমাদের ফসলি জমিও নদীগর্ভে বিলীন হয়ে যাবে। বালু ব্যবসায়ীরা প্রভাবশালী হওয়ায় তাদের বাঁধা দিতে ভয় পাচ্ছি।

এ ব্যাপারে উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) মোছা. সাবরিনা শারমিন বলেন, অবৈধভাবে বালু উত্তোলনকারীদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই রকম আরো সংবাদ
© সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © 2020-2022 বজ্রকথা।
ডিজাইন ও কারিগরি সহযোগিতায়: Hostitbd.Com