মঙ্গলবার, ০৫ জুলাই ২০২২, ১০:৫০ অপরাহ্ন

বঙ্গবন্ধুর আদর্শ ভাষণ পথ দেখাবে জাতিকে

রিপোটারের নাম
  • আপডেট সময় : রবিবার, ১৬ আগস্ট, ২০২০
  • ৯১ বার পঠিত

অভিশপ্ত জীবনের নাম পরাধীনতা,মস্তক নিচু করে কুর্নিশ করার নাম পরাধীনতা। দাসত্বের নাম পরাধীনতা,স্বপ্নহীন নিদ্রার নাম পরাধীনতা,শৃংখলিত ইচ্ছার নাম পরাধীনতা,পদানত হয়ে চাবুক হজম করার নাম পরাধীনতা, আঙ্খাকে বিসর্জন দেয়ার নাম পরাধীনতা। সমস্ত জুলম, অন্যায় অবিচার মুখবুঝে মেনে নেয়ার নাম পরাধীনতা। আমার পিতামহ, প্রপিতা পরাধীন ছিলেন। আমার পিতা ছিলেন পরাধীন দেশের নাগরিক, আমিও একটি পরাধীন দেশে জন্মগ্রহন করেছিলাম। তবে আমি ভাগ্যবান যে,পরাধীনতার কলঙ্কের দাগ মুছে ফেলতে পেরেছি। আর সেটা সম্ভব হয়েছে হাজার বছরের শ্রেষ্ট বাঙালি,বাংলার অবিসংবাদিত নেতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের কারনে।নেতা আমাদের শুভক্ষণে জন্মগ্রহন করেছিলেন বলেই আজ স্বাধীন দেশের নাগরিক হিসেবে মাথা তুলে দাড়াতে পেরেছি আমরা; স্বাধীন জাতি হিসেবে গর্ববোধ করছি আমরা। চিৎকার করে বলতে পারি,আমাদের দেশের নাম বাংলাদেশ। আমাদের অহংকার আকাশ স্পর্শ করেছে। সারাবিশ্বে আমাদের পরিচয় বিশ্বমানচিত্রে স্থায়ী হয়ে গেছে। আমাদের নিজস্ব পতাকা আছে,লাল সবুজের পতাকা, সেই পতাকা উড়ে আসমান জুড়ে আহংকারের বাতাসে। আমাদের জাতীয় সঙ্গীত আছে। লাখ কন্ঠে আমারা গাই ‘আমার সোনার বাংলা আমি তোমায় ভালোবাসি’। আমাদের মাতৃভাষা আন্তর্জাতিক ভাষা হিসেবে সকল মানুষের ভাষা হিসেবে প্রতিষ্ঠা লাভ করেছে। দেশ স্বাধীন হয়েছে বলেই,এই আমরা যা খুশি তাই কইতে পারি, যা খুশি তাই লিখতে পারি,প্রাণখুলে গান গাইতে পারি, কবিতায় দেশ মাতাতে পারি। ক্যানভাসে রং ছিটাতে পারি। খুশিতে সব ভাসাতে পারি। আমার দেশ আমার মা। মায়ের ভাষাই আমাদের শক্তিশালী অস্ত্র।বঙ্গবন্ধু আমাদের আদর্শ,স্বাধীনতা আমাদের অস্তিত্ব। মাটি -মা- মানুষ আমাদের শক্তি। কিন্ত আমাদের এখন অনেক কিছু থাকার পরেও মনে হয় আমরা সর্বহারা। অনেক অহংবোধের গল্পের আসরে আমাদের মাথা নিচু হয়ে আসে। আমি,আমরা লজ্জিত হই বিশ্বসভায়। কারণ বাংলার মহান নেতা ,স্বাধীন বাংলাদেশের স্থপতি, জাতির পিতা শেখ মুজিবুর রহমানকে হত্যা করেছে এই দেশেরই কিছু কুলাঙ্গার। বিষয়টি আমরা মেনেনিতে পারিনা।এ কারনেই মনে হয় শুধু শেখ হাসিনা নয় গোটা বাংলাই এতিম এবং শোকাগ্রস্ত, অসহায়। তবে এই শোককে শক্তিতে পরিণত করতে হবে। ঘুরে দাড়াতে হবে জাতিকে। ভয় নেই,বঙ্গবন্ধুর আদর্শ আছে, ভাষণ আছে, আমরা মনে করি,বঙ্গবন্ধুর আদর্শের পথ অনুস্মরণ আর তার ভাষণ বিশ্লেষণ করলেই জাতি অন্ধকারে,সংকটে খুঁজে পাবে পথ। সতর্ক থাকতে হবে,যাতে আর কোন মীরজাফর জন্মানোর সুযোগ না পায়। আর ষড়যন্ত্র করার সুযোগ দেয়া যাবে না। সকল খুনিদের পাওনা শাস্তি মিটিয়ে দিতে হবে। ষড়যন্ত্রের পথ চিরতবে বন্ধ করতে হবে ।

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এই রকম আরো সংবাদ
© সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © 2020-2022 বজ্রকথা।
ডিজাইন ও কারিগরি সহযোগিতায়: Hostitbd.Com