শুক্রবার, ০১ মার্চ ২০২৪, ০৭:২৭ অপরাহ্ন
ব্রেকিং নিউজ :
চিলমারী কল্যাণ সমিতির কমিটি গঠন পীরগঞ্জে পাটচাষীদের প্রশিক্ষণ অনুষ্ঠিত   দিনাজপুর শিশু একাডেমীর চিত্রাংকনসহ বিভিন্ন প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত ফুলবাড়ীতে নেসকো গ্রাহকদের নিয়েপিএলসির নেসকোর  গণশুনানী ফুলবাড়ী শিবনগর ইউনিয়নে বয়স্ক ও বিধবা ভাতার কার্ড এর লটারি অনুষ্ঠিত  পলাশবাড়ীতে দুই বাইকের সংঘর্ষে আহত স্বদেশ এর মৃত্যু এসএসসি পরীক্ষায় মোবাইলে  প্রশ্নপত্র ফাঁস এক শিক্ষকের কারাদন্ড রংপুরে শেখ রাসেল জাতীয় শিশু কিশোর পরিষদের ৩৬ তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী পালন “শেকড় ” এর সহয়োগীতায় বর্ণমালায় রোদ্দুর কবিতা পাঠের আসর বাংলাদেশ প্রেসক্লাব পীরগঞ্জ শাখার সম্মেলন ও কমিটি গঠন

বন্যার চেয়ে আফাল নিয়ে বেশি শংকিত কিশোরগঞ্জের হাওরবাসী

রিপোটারের নাম
  • আপডেট সময় : রবিবার, ২৬ জুলাই, ২০২০
  • ৫২৩ বার পঠিত

সুবল চন্দ্র দাস কিশোরগঞ্জ থেকে।- কিশোরগঞ্জে এবার বর্ষার শুরুতেই সবক’টি নদ নদী ও হাওরের পানি বেড়ে যাওয়ায় উজানের চারটি উপজেলাসহ পুরো হাওর এখন পাহাড়ি ঢল, অতিবৃষ্টি ও বানের পানিতে ভাসছে। বানের কারণে কয়েক দিন ধরে হাওরে আকস্মিক নদ-নদীর পানি বেড়ে গেছে। ফলে পুরো এলাকা এখন পানিতে টই টম্বুর ইতোমধ্যে হাওরের মিঠামইন, অষ্টগ্রাম, ইটনা ও নিকলীতে বেশকিছু গ্রামে ভাঙন দেখা দিয়েছে। কিন্তু হাওরের মানুষ এই পানিকে ভয় পাচ্ছে না। কারণ, প্রতিবছর পানির সঙ্গে যুদ্ধ আর সখ্য গড়ে তুলেই বেঁচে থাকতে হয় তাদের। কিন্তু এবার তাদের ভয়ের কারণ আফাল (বাতাসের ঢেউ)। কারণ বাতাসের কারণে ভাঙনের তীব্রতা বাড়ে। জেলার ইটনা উপজেলার শিমুলবাগ গ্রামের এবাদ মিয়া ও হযরত আলী এবং মিঠামইন উপজেলার হাতকুবলা গ্রামের হোসেন আলী ও ধন মিয়া জানান, টানা বৃষ্টি ও ঢলের পানিতে হাওর ভাসছে। বাতাস শুরু হলে ভাঙন শুরু হবে। ভাঙনের ভয়ে তারা আতঙ্কিত। কারণ, ইতোমধ্যে হাওরের ঢেউ ও বাতাসের তীব্রতা অন্য বছরের চেয়ে অনেক বেশি শক্তিশালী। উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা কার্যালয়, জেলার ত্রাণ অফিস ও অন্যান্য সূত্রে পাওয়া তথ্যে জানা গেছে, কিশোরগঞ্জের হাওর উপজেলা ইটনা, নিকলী, মিঠামইন, অষ্টগ্রাম সহ তাড়াইল, করিমগঞ্জ, কুলিয়ারচর ও বাজিতপুরে পানি বিপদসীমার ওপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। হাওরে বাতাস শুরু হলে ভাঙন পরিস্থিতি আরও মারাত্মক আকার ধারণ করবে। গত কয়েক দিনে হাওরে সামান্য বাতাসে বেশকিছু বাড়িঘর ও জিনিসপত্রের ক্ষতি হয়েছে। ইটনা উপজেলা চেয়ারম্যান চৌধুরী কামরুল হাসান জানান, হাওরবাসী বাতাস ও ঢেউয়ের আঘাতকে (স্থানীয় ভাষায় আফাল) ভয় করছেন। আফাল শুরু হলে তাদের রক্ষা নেই, এ ভয়ে তারা শঙ্কিত। মিঠামইন উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আছিয়া আলম জানান, মিঠামইন উপজেলা সদরের জেলে পাড়াসহ কয়েকটি গ্রাম প্রতিদিনই ভাঙছে। বাড়িঘর, বসতভিটা রক্ষা করার জন্য সাইল্যা ঘাস, কচুরিপানা, বাঁশ, বেত ইত্যাদি দিয়ে আপ্রাণ চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে হাওরবাসী।

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই রকম আরো সংবাদ
© সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © 2020-2022 বজ্রকথা।
ডিজাইন ও কারিগরি সহযোগিতায়: Hostitbd.Com