1. admin@bwazarakatha.com : bwazarakatha com : bwazarakatha com
রবিবার, ১১ এপ্রিল ২০২১, ০৭:২৯ অপরাহ্ন
ব্রেকিং নিউজ :
সাপাহারের তরুণ উদ্যোক্তা শিবলীর সাফল্য:  ফল রক মেলন চাষের উজ্জল সম্ভাবনা দিনাজপুর পৌরসভায় স্বাস্থ্য সুরক্ষা সামগ্রী বিতরণ জেলা পরিষদের ফুলবাড়ী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের উন্নয়নমূলক কর্মকান্ডে সুন্দর্য বর্ধন সরকার ঘোষিত লকডাউনে জনশূন্য পার্বতীপুর রেলওয়ে জংশন বেষ্ট পেপার অ্যাওয়ার্ড পেয়েছেন পীরগঞ্জের কৃতি সন্তান রাজু দলীয় শৃংঙ্খলা ভঙ্গের অভিযোগে রংপুর জেলা ছাত্রদলের সভাপতিকে অব্যাহতি নবাবগঞ্জে মাইক্রোবাসের সাথে মটর সাইকেলের ধাক্কায় দুইজন আহত নবাবগঞ্জে গৃহবধূকে ধর্ষণের অভিযোগে গ্রেফতার ১ পীরগঞ্জে স্বেচ্ছাসেবক দলের সভাপতি রশিদ সম্পাদক বান্না পীরগঞ্জে শিক্ষক সমিতির মার্কেট নির্মাণ কাজ উদ্বোধন

বাঁধ রক্ষা ও পানিবন্দি মানুষের নিরাপত্তায় পুলিশ মোতায়েন

  • আপডেট সময় : মঙ্গলবার, ২১ জুলাই, ২০২০
  • ২৫ বার পঠিত

বগুড়া থেকে উত্তম সরকার।- বগুড়ার ধুনট উপজেলায় যমুনা নদীর বন্যা নিয়ন্ত্রণ বাঁধ রক্ষা ও পানিবন্দি পরিবারের লোকজনের নিরাপত্তার জন্য গ্রাম পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে। উপজেলা প্রশাসনের সিদ্ধান্ত মোতাবেক গোসাইবাড়ি ও ভান্ডারবাড়ি ইউনিয়নের ২৬ জন গ্রাম পুলিশ নিরাপত্তার দায়িত্ব পালন করছেন।

উজান থেকে নেমে আসা পাহাড়ি ঢল ও অবিরাম বর্ষণে ধুনট উপজেলায় যমুনা নদীর পানি বেড়ে বিপৎসীমার ওপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। পানি বেড়ে প্লাবিত হয়েছে উপজেলার গোসাইবাড়ি ও ভান্ডারবাড়ি ইউনিয়নের ১৪টি গ্রাম। এসব গ্রামের কমপক্ষে এক হাজার পরিবারের লোকজন পানিবন্দি হয়ে দুর্বিষহ জীবন-যাপন করছেন।

অন্যদিকে, যমুনার পানির তীব্র ¯্রােতে শুরু হয়েছে নদী ভাঙন। এতে করে বন্যা নিয়ন্ত্রণ বাঁধ হুমকির মুখে পড়েছে। এছাড়া তলিয়ে যাচ্ছে ঘরবাড়ি, রাস্তা-ঘাট। পানিবন্দি এলাকার অসংখ্য মানুষ ঘরবাড়ি ছেড়ে আশ্রয়কেন্দ্র, বন্যা নিয়ন্ত্রণ বাঁধসহ উঁচু জায়গাগুলোতে আশ্রয় নিয়েছেন। যমুনা চরে বসবাসকারী অনেকে ঘর-বাড়ি ভেঙে নৌকায় করে নদী তীরে চলে আসছেন। বন্যার দুর্যোগ থেকে স্থায়ী সমাধান খুঁজতে চরের পৈতৃক ভিটেমাটি ছেড়ে বাঁধে আসছেন তারা।

উপজেলার শহড়াবাড়ি থেকে মাধবডাঙ্গা পর্যন্ত সাত কিলোমিটার দীর্ঘ যমুনা নদীর বন্যা নিয়ন্ত্রণ বাঁধ। যমুনার পানি বাড়ার সঙ্গে বেড়েছে ¯্রােত। প্রবল চাপে বাঁধের একাধিক পয়েন্ট দিয়ে পানি চুইয়ে লোকালয়ে ঢুকেছে। ইঁদুরের গর্ত এবং দুর্বল অংশে পানি চুইয়ে পড়ার কারণে বাঁধ ঝুঁকির মধ্যে পড়ছে। লোকালয় অংশের চেয়ে নদীমুখ অংশের পানি বেশি উচ্চতায় প্রবল বেগে প্রবাহিত হওয়ায় বাঁধ ভেঙে যেকোনো মুহূর্তে লোকালয়ে পানি প্রবেশের আশঙ্কা রয়েছে। এছাড়া দুর্বৃত্তরা রাতের আঁধারে বাঁধ কেটে ক্ষতি করতে পারে। এমন আশঙ্কা থেকে বাঁধে গ্রাম পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে।

উপজেলার ভান্ডারবাড়ি ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আতিকুল করিম আপেল বলেন, বাঁধে আশ্রিত মানুষের জানমালের নিরাপত্তা ও বন্যা নিয়ন্ত্রণ বাঁধ রক্ষার জন্য গ্রাম পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে। প্রতিদিন সন্ধ্যা থেকে সকাল পর্যন্ত পালাক্রমে এই পাহারার ব্যবস্থা রাখা হয়েছে। ফলে বানভাসি মানুষগুলো নিরাপত্তার মাঝে রাত্রিযাপন করতে পারছেন।

ধুনট উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) সঞ্জয় কুমার মহন্ত বলেন, পানিবন্দি মানুষের জানমালের নিরাপত্তা ও বন্যা নিয়ন্ত্রণ বাঁধ রক্ষার জন্য গ্রাম পুলিশ দিয়ে রাতের বেলায় পাহারার ব্যবস্থা করা হয়েছে।

 

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এই রকম আরো সংবাদ

© All rights reserved © 2020 Bwazarakatha.Com
Design & Development By Hostitbd.Com