বুধবার, ০৬ জুলাই ২০২২, ০৪:১০ পূর্বাহ্ন

বাঁশ চাষ ও ঝাড় বৃদ্ধির দিকে মনোযোগ দেয়া দরকার

রিপোটারের নাম
  • আপডেট সময় : বৃহস্পতিবার, ২৪ সেপ্টেম্বর, ২০২০
  • ১২৮ বার পঠিত

সুলতান আহমেদ সোনা।- একটা সময় বাঁশ, বেত মানুষের নানা প্রয়োজন মিটিয়েছে। মানুষের সকল প্রকার কাজে ব্যবহার হয়েছে বাঁশ। হাজার হাজার বছর আগে মানুষের প্রয়োজনের কথা হিসেবে করেই যেন প্রকৃতি মানব জাতিকে বাঁশ উপহার দিয়েছে। নানা কারনে অবশ্য বাঁশকে নিয়ে ব্যাঙ্গ বিদ্রুপ ও রসিকতা করা হলেও যুগে যুগে বাঁশ ছিল সারা পৃথিবীর মানুষের নিত্যসঙ্গী,অনুসঙ্গ। বাঁশের অপকারের দিকে নেই বল্লেই চলে। তবে বাঁশ উপকারী উদ্ভিদ। বাঁশ পৃথিবীর সব চাইতে দ্রুত বর্ধনশীল উদ্ভিদ।বাঁশ আসলে ঘাস।গুচ্ছ আকারে জন্মে বাঁশ। এই গুচ্ছকে ঝাড় বলি আমরা। প্রায় সারা দু’নিয়ায় বাঁশ আছে। সব খানেই নানা প্রকার বাঁশ পাওয়া যায় । বাংলাদেশে দেশে ২৮ প্রজাতির বাঁশ আছে বলে শোনা যায়। তবে আমাদের উত্তরাঞ্চলে ৪/৫ প্রকাশ বাঁশ পাওয়া যায়। স্থানীয় ভাবে আকার ও প্রকার ভেদে এই সব বাঁশের নাম করণ করা হয়েছে, যেমন তরলা বাঁশ, বড়বাঁশ, মাকলা বাঁশ, আল্লী বাঁশ। এই সব বাঁশের আবার কয়েকটি জাতও আছে।পাহাড়ী অঞ্চলে অনেক রকম বাঁশ পাওয়া যায়। বাঁশ অর্থকারী উদ্ভিদ। আজ থেকে শত বছর আগে গ্রাম গঞ্জে বাঁশের ব্যাপক প্রচলন ছিল। গৃহস্থলী কাজে বাঁশ নিত্যসঙ্গী ছিল। সকল গৃহস্তের বাঁশঝাড় ছিল। সে সময় কাশ ও বাঁশ ছাড়া চলার উপায় ছিল না। বাঁশ দিয়ে কি না হতো ।ঘরের খুঁটি, ঘরের বেড়া, টাটি, ছ্যাচা, বাড়ির ঘেড়া, ঘরের বরগা,ধর্না, পাড়, রুয়া, চ্যাকার, সাঁকো, ছাঁদ,পুল, ঘরের চালা তৈরীর বাতা, আত্ম রক্ষার লাঠি, লড়াইয়ের অস্ত্র, ফলা, বল্লম, কোচা, বাট ড্যাট, নৌকার বৈঠা, চৌড়, হাল, নৌকার ছৈ, গরুর গাড়ী, গাড়ীর টাবর, জাতের খুঁটি-ছড়, ডাব, টার, খঁচা, পলোই, হ্যাংগা, ওংক্যা, ঠুঁসি,ছিপ,দাড়কি, ডেড়–, দোড়ং, মাছ রাখা জিনাই,খলই, খাড়ি। চালা, চালুন, বানা, দোংগড়, , লাঙ্গলের ইস, জোয়াল, লাংলীর ফলা, খুটা, খুট,ফাইড়ার বাট, ভার বহনের বাংকুয়া, কুয়ার ডাব-ছড়া, আলনা, র‌্যাকেট, খাট, সোফা, চেয়ারসহ আরো কতকিছুই না তৈরী হয় এই বাঁশ থেকে। বর্তমান সময়ে লোহা, ইষ্টিল, প্লাষ্টিকের আববাস পত্র ব্যাপক ভাবে সমাজের নানা স্তরে ব্যবহৃত হচ্ছে। পরিবেশ রক্ষা ও ঝড়-বাতাশ প্রাকৃতিক দুর্যোগ থেকে রক্ষার ক্ষেত্রে বাঁশের অবদান অনস্বীকার্য। নদীর তীর রক্ষা, বাঁধ রক্ষা ও ভুমির ক্ষয়রোধে কাজ করে বাঁশ। আধুনিক সমাজ ব্যবস্থায় কাঠের পাশাপাশি লোহা, ইষ্টিল, প্লাষ্টিকের দাপট চলছে। তার পরেও বাঁশ কোন ভাবেই পরাজিত হয়নি। এখন আধুনিক কিছু মানুষ আবারো তাদের প্রয়োজনে যত্ন সহকারে ব্যবহার করছে বাঁশের উপকরণ, আসবাবপত্র। বাঁশ যে পরিবেশ বান্ধব সেকথা বলার অপেক্ষা রাখে না। বর্তমানে বাঁশের চাহিদা বাড়ছে। কিন্তু বাঁশের ফলন , বাঁশ চাষ বাড়ছে না। উল্টো কৃষি বিভাগ, বন বিভাগ বাঁশকে অবজ্ঞা করায় , গুরুত্ব না দেয়ায় দিন দিন বাঁশ ঝাড় উজাড় হচ্ছে । বলাই বাহুল্য এখনো বাংলাদেশের শত শত মানুষ বাঁশ শিল্পের সাথে জড়িত। তাদের পরিবারের আয় উপার্জনের ক্ষেত্র হচ্ছে বাঁশ কেন্দ্রীক পণ্য উৎপাদন। বিশেষ করে ক্ষুদ্র নৃগোষ্ঠির একটা বড় অংশ বাঁশের কাজ করে, তারা উৎপাদন করে নানা রকম গৃহস্থালি উপকরণ এবং শো-পিস। অনেকেই বাঁশের জিনিস পত্র তৈরী করে বিক্রি করে সংসার চালায়। কিনতু দিন দিন বাঁশের দাম বাড়ায়, বাঁশের যোগান না মেলায় তাদের ব্যবসায় মন্দা যাচ্ছে। তা ছাড়া এই শিল্প পণ্য তৈরীর জন্য যে সব বাঁশ দরকার হয় তার অভাব দেখা দিয়েছে। অপর দিকে বাঁশ কাঁচামাল হিসেবে বিভিন্ন শিল্প কারখানায় ব্যবহার হয়ে আসছে । আজ অনেক ইন্ডাষ্ট্রি কাঁচা মালের অভাবে বন্ধ হয়ে যাচ্ছে যেগুলোতে বাঁশ কাঁচা মাল হিসেবেও ব্যবহার হত। বাঁশ দিয়ে শুধু কাগজ নয়, ফার্নিচারও বনানো হচ্ছে এখন। ফিলিপাইন ও ইন্দোনেশিয়ায় বাঁশের গুড়ার সাথে সিমেন্ট মিশিয়ে বাড়ির দেয়ালও বানানো হচ্ছে। এই পদ্ধতি বাংলাদেশেও চালু করা যেতে পারে। তাই অভিজ্ঞা মহলের মতে বাঁশকে সংরক্ষণ, বাঁশ চাষ বৃদ্ধি ,ঝাড় সৃষ্টিতে মন যোগ দেওয়া উচিত।

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এই রকম আরো সংবাদ
© সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © 2020-2022 বজ্রকথা।
ডিজাইন ও কারিগরি সহযোগিতায়: Hostitbd.Com