1. admin@bwazarakatha.com : bwazarakatha com : bwazarakatha com
শুক্রবার, ২৫ জুন ২০২১, ১২:০০ পূর্বাহ্ন
ব্রেকিং নিউজ :
বগুড়ার শিবগঞ্জে বাস্তবায়িত বিষমুক্ত নিরাপদ আম বাগান পরিদর্শন করেন ইউএনও  মুজিববর্ষে শেরপুরে আনছার ভিডিপি’র উদ্যোগে গাছের চারা বিতরণ ঠাকুরগাঁও ৭ দিনের লকডাউন পীরগঞ্জে আইন শৃঙ্খলা বাহিনীর কঠোর তৎপরতা ফুলবাড়ীতে হিজড়া সম্প্রদায়ের যাচাই বাছায়ের জন্য ও অবৈধ্য হিজড়া সম্প্রদায়ের বিরুদ্ধে অভিযোগ দায়ের আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় থাকলেই দেশের মানুষের কল্যাণ ও উন্নতি হয় -মনোরঞ্জন শীল গোপাল এমপি সাপাহারে ছাত্রাবাস থেকে গৃহবধূর লাশ উদ্ধার বীরগঞ্জে শর্ত অমান্য করে বালু উত্তোলন বগুড়ায় মোটরসাইকেল দুর্ঘটনায় আহতদের থেকে পাওয়া গেল ৫৯ বোতল ফেন্সিডিল অভিযোগ পীরগঞ্জের এক হুজুর আর এক হুজুরের টাকা কেড়ে নিয়েছে অন্যের আর্টিকেল নিজের নামে চালিয়ে গুগল রেডলিস্টে বেরোবি শিক্ষক সমালোচনার ঝড়

বাংলা ও বঙ্গবন্ধু

  • আপডেট সময় : বুধবার, ১২ আগস্ট, ২০২০
  • ১০১ বার পঠিত

-এ টিএমআশরাফুল ইসলাম সরকার (রাংগা)

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান আমাদের বাঙালি জাতির পিতা। আমাদের বাঙালি জাতির শ্রেষ্ঠ সন্তান, যার জন্য আমরা পেয়েছি আমাদের স্বাধীনতা, পেয়েছি বাংলাদেশ নামক একটি রাষ্ট্র। যার কারণে আমরা পৃথিবীর বুকে গর্ব করে বলতে পারি-আমরা স্বাধীন জাতি। যার জন্ম না হলে হয়তো আজও আমরা পরাধীনতার শিকলে আবদ্ধ থাকতাম।
বঙ্গবন্ধু ও বাংলদেশ যেন এখন দুটো আলাদা শব্দ নয়। এ দুটোকে এখন সমার্থক বলতে পারি। অর্থ্যাৎ, বঙ্গবন্ধুর অর্থ হচ্ছে বাংলাদেশ; আর বাংলাদেশ মানেই হচ্ছে বঙ্গবন্ধু। বাংলাদেশকে তিনি সারা বিশে^র দরবারে এমনভাবে পরিচয় করে দিয়েছিলেন যেন বিশ^জুড়ে বাংলা বঙ্গবন্ধুর দেশ হিসেবেই বেশি প্রসিদ্ধ। গোটা পৃথিবী মনে করে, বাংলাদেশ শব্দের মূলেই হলো শেখ মুজিব। অবশ্য এর বেশ কিছু যথার্থ কারণ রয়েছে। গোটা কয়েক তুলে ধরছি।
ডেভিট ফ্রস্টের সাথে দেয়া এক সাক্ষাৎকারে বঙ্গবন্ধু বলেছিলেন-
‘‘They have given everything for me because I was ready to give everything for them. I want to make them free. I have no objection to die. I want to see them happy. I become emotional when I feel the love and affection my people gave me.’’

‘তারা আমার জন্য সবকিছু দিয়েছিল তাই আমিও তাদের জন্য সর্বস্ব উজাড় করে দিতে প্রস্তুত ছিলাম। আমি তাদেরকে মুক্ত করতে চেয়েছিলাম। মৃত্যুকেও আমি পরোয়া করিনি। আমি তাদেরকে সুখী দেখতে চেয়েছিলাম। আমার মানুষের ভালোবাসা ও আন্তরিক তার কথা ভাবলে আমি আবেগ তাড়িত হয়ে যাই।’
বাংলা এবং বাংলার সর্বস্তরের মানুষের জন্য বঙ্গবন্ধুর এ কথাগুলো বাংলা থেকে আলাদা করে কীভাবে দেখি?
পাকিস্তান পার্লামেন্টের সদস্য হিসেবে তিনি যখন ভাষণ দিতেন, তখন কখনই পূর্ব পাকিস্তান বলতেন না, বলতেন পূর্ব বাংলা। বাংলার বঞ্চিত মানুষের জন্য জাতির জনকের এ দরদ কি বাংলা থেকে ভিন্ন ? নিশ্চই নয়।
মার্কিন কুটনৈতিক আ্যার্চার ব্ল্যাড তার গ্রন্থে লিখেছেন- শেখ মুজিব ছিলেন পূর্ব পাকিস্তানের মুকুটহীন স¤্রাট। হ্যাঁ। মুকুটহীন সম্রাট-ই ছিলেন বটে! একটু গভীরভাবে চিন্তা করে দেখি, বঙ্গবন্ধুর রাজনীতি কিন্তু ক্ষমতার লোভের বা ক্ষমতা লাভের রাজনীতি ছিলনা। তিনি ছিলেন একেবারেই নিঃস্বার্থ, নির্লোভ একজন মানুষ। তাঁর পোশাকে, চলনে বলনে কথা-বর্তায় সেই সাধা-সিধে ভাবটাই দেখতে পাই। ০৭ মার্চের ভাষণে তিনি স্পষ্ট করেই তা জানিয়ে দিয়ে ছিলেন এভাবে- “ আমি প্রধান মন্ত্রীত্ব চাই না। আমরা এদেশের মানুষের অধিকার চাই।” তাঁর এই ভাষণ থেকে বোঝা যায়, তিনি সাধারন মানুষের দুঃখ-কষ্ট নিয়ে ভাবতেন। তিনি দুঃখী মানুষের ভাগ্যের পরিবর্তন আর তাদের অধিকার নিয়ে ভাবতেন। তাঁর ভাবনা ছিল- কী ভাবে এ জাতির ভাগ্য পরিবর্তন করা যায়। তিনি তাঁর ভাষণে আরও উল্লেখ করেন- “সাত কোটি মানুষকে দাবায়ে রাখতে পারবানা। আমরা যখন মরতে শিখেছি, তখন কেউ আমাদের দাবায়ে রাখতে পারবেনা।” এই সাত কোটি মানুষ কোন দেশের, নিজেকে একবার প্রশ্ন করে দেখুন তো? এরা হলেন বাংলার জনগণ। এদের জন্যই পাকিস্তানের রক্ত চক্ষুকে উপেক্ষা করে, শত অত্যাচার-অবিচার, নিপীড়ণ-নির্যাতন দাঁতে দাঁত কেটে সহ্য করে, বাংলার মানুষের অধিকার আদায়ের আন্দোলন করতে-করতে তিনি হয়ে ওঠের সারা বাংলার নয়নের মণি,সাধারন মানুষের সাধনার ধন। বাংলা ও বাঙালির দুর্দিনের কান্ডারি। একজন পিতার সাথে একজন সন্তানের যে অবিচ্ছেদ্য বন্ধন, জাতির জনকের সাথে বাংলার যেন সেই বন্ধনের কথাই এখানে প্রমাণ করিয়ে দেয়।
১৯৭১- এর নির্বাচনের পূর্বে ঘুর্ণিঝড় ও জলোচ্ছ্বাসে অনেক মানুষের প্রাণহানী ঘটে। দূর্গত এলাকা পরিদর্শন শেষে ২৬ নভেম্বর ঢাকায় তিনি এক সংবাদ সম্মেলনে উল্লেখ করেন- “বাংলাদেশ আজ জেগেছে। বানচাল করানা হলে বাংলার মানুষ নির্বাচনের মাধ্যমে তাদের রায় ঘোষণা করবে……। ” তিনি কিন্তু তার প্রেসব্রিফিং-এ গোটা বিশে^র কথা বলেননি। বলেছেন বাঙালি জাতির কথা। বাঙালি জাতীয়তাবাদের কথা। এখান থেকে বোঝা যায় যে, বঙ্গবন্ধুর অপরিসীম আত্মত্যাগের ফসলই হচ্ছে আজকের বাংলাদেশ।
বাংলাদেশ ও বঙ্গবন্ধুর জন্য আরেকটি গৌরবোজ্জ্বল ঘটনা ১৯৭৪ সালের ২৫ সেপ্টেম্বর। সদস্য লাভের মাত্র আট দিনের মাথায় জাতিসংঘের ২৯ তম সাধারন অধিবেশনে তিনি বাংলাদেশ ও এ দেশের সর্বস্তরের মানুুষের পক্ষে বাংলায় ভাষণ প্রদান করেন। বিশ^ পরিসরে এর আগে এমন করে বাংলাকে কেউ পরিচয় করিয়ে দেয়নি। রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর ১৯১৩ সালে বাংলা সাহিত্যে নোবেল পেয়ে বাংলাকে পরিচয় করিয়ে দিয়ে ছিলেন বটে, কিন্তু বিশ্বাঙ্গনে তিনি কখনও বাংলায় বক্তব্য প্রদান করেননি। ১৯৯৮ সালে অমর্ত্য সেন অর্থনীতিতে দ্বিতীয় বাঙালি নোবেল বিজয়ী। কিন্তু তিনিও তার বক্তব্যটি রেখে ছিলেন ইংরেজিতে। ২০০৬ সালে শান্তিতে নোবেল পুরস্কার পান ড. ইউনুস। তিনিও ইচ্ছে করলে তার বক্তব্যটি বাংলায় দিতে পারতেন,কিন্তু তিনি তা করেন নি। তার ৩৫ মিনিটের বক্তব্যে মাত্র তিনি দেড় মিনিট বাংলায় কথা বলেন। অথচ আমাদের বাংলার হিরো, জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে যখন ইংরেজিতে ভাষণ প্রদানের জন্য আহবান করা হলো, তখন তা নাকচ করে দিয়ে তিনি বললেন-“আমি মাতৃ ভাষা বাংলায় বক্তব্য রাখতে চাই।”ওনার সেই অনুরোধ টুকু রক্ষিত হলো। তিনি বাংলায় বাংলার কথা বললেন। বাংলার সাধারন মানুষের সুখ-দুঃখের কথা জানালেন। যেহেতু এই অধিবেশনটি ছিল আন্তর্জাতিক পর্যায়ের, তাই সকলের বোধগম্য করার জন্য ভাষণ টির তাৎক্ষণিক ইংরেজিতে অনুবাদ করে পাঠ করেন-ডেপুটি হাইকমিশনার ফারুক চৌধুরী। একজন খাাঁটি বাঙালি হিসেবে এর চেয়ে আর গর্বের বিষয় কি হতে পারে। আর এই গর্বের গর্বিত সন্তান যিনি, তিনি হলেন আমাদের স্বাধীনতার স্থপতি বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান। তাঁরই ধারাবাহিকতায় বঙ্গবন্ধুর আদরের কন্যা, আমাদের বাংলাদেশের বর্তমান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা, তিনিও জাতি সংঘের অধিবেশনে বাংলাতেই বক্তব্য প্রদান করে আসছেন।
বঙ্গবন্ধু জেলে গেছেন বাংলা ভাষার জন্য। এই আন্দোলনের ধারাবাহিকতায় তিনি বাংলাদেশ গঠনের স্বপ্ন দেখেছেন। হাজার বছর ধরে বাঙালি জাতি নিজেদের ভূমির জন্য সংগ্রাম করেছে। একটি স্বাধীন দেশের জন্য লাখ লাখ মানুষ প্রাণ বিসর্জন দিয়েছে। সেই জাতির জন্য একটি দেশ এনে দিয়েছে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান। তাই বঙ্গবন্ধু মানেই বাংলাদেশ। তিনি ছিলেন, তিনি আছেন, তিনি থাকবেন। ভাবনায়, চেতনায়-বিশ্বাসে তিনি মিশে আছেন বাঙালির প্রত্যেকটি শ্বাস-প্রশ্বাসে। আমাদের জাতীয় সত্ত্বর উন্মেষ ঘটে ছিল তারই নেতৃত্বে। বঙ্গবন্ধু ও বাংলাদেশ তাই এক ও অভিন্ন। ইতিহাসের এক হিরণ¥য় নাম বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান। এ বছরেই অর্থাৎ ২০২০ সালে বাংলার এইসর্ব কালের সর্ব শ্রেষ্ঠ সন্তানের জন্মের একশত বছর পূর্ণ হয়েছে। এবারে এই আপোষহীন নেতার জন্মশত বার্ষিকী। তাই, আজ বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের নতুন বাংলাদেশ গড়ার শপথ নেয়ার দিন। আমার এই দিনে তাঁর আদর্শকে শ্রদ্ধা জানাই।

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এই রকম আরো সংবাদ

© All rights reserved © 2020 Bwazarakatha.Com
Design & Development By Hostitbd.Com