বৃহস্পতিবার, ০৬ অক্টোবর ২০২২, ০৬:১৭ পূর্বাহ্ন

বাজিতপুরে চাঞ্চল্যকর অটোরিকশাচালক হত্যা মামলার আসামী গ্রেফতার

রিপোটারের নাম
  • আপডেট সময় : শনিবার, ১৮ জুলাই, ২০২০
  • ১২৭ বার পঠিত

কটিয়াদী থেকে সুবল চন্দ্র দাস / রনবীর সিংহ।- কিশোরগেঞ্জর বাজিতপুরে চাঞ্চল্যকর অটো রিকশাচালক মো. রাব্বী (১৮) হত্যা মামলার কাইয়ুম (২০) নামে এক আসামিকে প্রেপ্তার করেছে পুলিশ। ১৫ জুলাই বিকালে উপজেলার সরারচর বাজারে অগ্রণী ব্যাংকের সামনে থেকে তাকে গ্রেপ্তার করা হয়। গ্রেপ্তারকৃত কাইয়ুম উপজেলার পিরিজপুর ইউনিয়নের হাফানিয়া গ্রামের রমজান মিয়ার ছেলে। সে মামলার এজাহারভুক্ত আসামি। মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা বাজিতপুর থানার পরিদর্শক (তদন্ত) মো. সারোয়ার জাহান বিষয়টির সত্যতা নিশ্চিত করেছেন। মো. সারোয়ার জাহান কিশোরগঞ্জ জানান, ১৪ জুলাই দুপুরে রাব্বীর লাশ উদ্ধারের পর রাতে নিহতের বড় ভাই সাদেক বাদী হয়ে সাচ্চুকে প্রধান আসামি করে ৮ জনের নামোল্লেখ ও অজ্ঞাতদের বিরুদ্ধে বাজিতপুর থানায় মামলা দায়ের করেন। আসামিদের ধরতে পুলিশ গোয়েন্দা তৎপরতাসহ বিভিন্ন স্থানে অভিযান পরিচালনা করছে। এর অংশ হিসেবে বুধবার বিকাল সোয়া ৫টার দিকে সরারচর বাজারে অগ্রণী ব্যাংকের সামনে তারা অভিযান পরিচালনা করেন। অভিযানে মামলার এজাহারভুক্ত আসামি কাইয়ুমকে গ্রেপ্তার করা হয়। এ সময় তার কাছ থেকে একটি স্যামসাং মোবাইল ফোন ও ৩টি সীমকার্ড উদ্ধার করা হয়। কাইয়ুমের মোবাইল থেকে নিহত রাব্বীর নিখোঁজের আগে ও পরে কয়েকটি কল রয়েছে বলেও জানান এই তদন্তকারী কর্মকর্তা। প্রসঙ্গত, বাজিতপুর উপজেলার পিরিজপুর ইউনিয়নের রোস্তমপুর গ্রামের বাড়ি থেকে গত ৭ জুলাই বিকালে অটোরিকশা নিয়ে বেরিয়ে নিখোঁজ হয় রাব্বী। পরিবারসহ আত্মীয়-স্বজন ও বন্ধুবান্ধব খোঁজ করেও তার কোন সন্ধান না পেয়ে পরদিন ৮ জুলাই বাজিতপুর থানায় জিডি দায়ের করেন। ব্যাটারিচালিত অটোরিকশাসহ নিখোঁজ হওয়ার এক সপ্তাহ পর ১৪ জুলাই দুপুরে পার্শ্ববর্তী হাফানিয়া গ্রামের একটি বাড়ির সেপটিক ট্যাংকি থেকে রাব্বীর লাশ উদ্ধার করা হয়। রাব্বী নিখোঁজ হওয়ার পরই পরিবারের পক্ষ থেকে অভিযোগ করা হয়, হাফানিয়া গ্রামের বাদল মিয়ার ছেলে সাচ্চু (১৮) অটো রিকশাসহ রাব্বীর নিখোঁজের ঘটনায় জড়িত রয়েছে। গত ৭ জুলাই বিকালের দিকে সাচ্চু অটো রিকশাটিকে রিজার্ভ হিসেবে ভাড়া করে রাব্বীকে শহরে নিয়ে যায়।

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এই রকম আরো সংবাদ
© সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © 2020-2022 বজ্রকথা।
ডিজাইন ও কারিগরি সহযোগিতায়: Hostitbd.Com