রবিবার, ০২ অক্টোবর ২০২২, ০৬:৪৪ অপরাহ্ন

বানভাসিদের দুর্দশা বাড়ছে সাতক্ষীরা এলাকা ছাড়ছেন অনেকে

রিপোটারের নাম
  • আপডেট সময় : বৃহস্পতিবার, ২৭ আগস্ট, ২০২০
  • ১৬৩ বার পঠিত

নিজস্ব প্রতিবেদক।- যত দিন যাচ্ছে ততই সাতক্ষীরার উপকূলীয় উপজেলা আশাশুনির প্রতাপনগর, শ্রীউলা ও আশাশুনি ইউনিয়নের বানভাসি মানুষের দুর্দশা বাড়ছে। এই তিন ইউনিয়নের লক্ষাধিক মানুষ পানিবন্দি হয়ে পড়েছেন। বাড়িঘর ছেড়ে তারা উঠেছেন আশ্রয় কেন্দ্র বিভিন্ন সড়ক ও বাঁধের ওপর। জোয়ার-ভাটা চলছে প্রতাপনগর ইউনিয়নের ১৭টি, শ্রীউলা ইউনিয়নের ২২টি এবং আশাশুনি সদর ইউনিয়নের ৬টি গ্রামে। সেখানে এক খন্ড জমিও কোথাও শুকনো নেই। সবই পানিতে নিমজ্জিত। দুর্গত এলাকায় কেউ মারা গেলে দাফন করার মত জায়গাটুকু পর্যন্ত সেখানে নেই। তার ওপর প্রতিদিন প্লাবিত হচ্ছে নতুন নতুন এলাকা। বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়েছে সম্পূর্ণ যোগাযোগ ব্যবস্থা। ধসে পড়েছে শতাধিক কাঁচা ঘরবাড়ি। পানিতে ভেসে গেছে হাজার হাজার বিঘা জমির মৎস্য ঘের। রান্নাসহ গৃহস্থালির কোনো কাজ করতে না পারায় শুকনা খাবারেই মেটাতে হচ্ছে পেটের ক্ষুধা। ঘূর্ণিঝড় আম্পানের পর থেকে টানা তিন মাসেরও বেশি সময় পানিবন্দি হয়ে প্রতাপনগর ও শ্রীউলা ইউনিয়নের মানুষ মানবেতর জীবন যাপন করছেন। তার ওপর অস্বাভাবিক জোয়ারের চেয়ে ৩/৪ ফুট পানি বৃদ্ধি পাওয়ায় বিস্তৃীর্ণ এলাকা প্লাবিত হয়েছে। জোয়ার-ভাটা বইছে লোকালয় ও বাড়ির উঠানে। ভেঙে পড়েছে স্যানিটেশন ব্যবস্থা। এতে চরম স্বাস্থ্য ঝুঁকির মধ্যে লক্ষাধিক মানুষ। দেখা দিয়েছে সুপেয় পানির অভাব। অনেকে এলাকায় বসবাসের ভরসা ছেড়ে অন্যত্র চলে যাচ্ছেন। আশাশুনি উপজেলার প্রতাপনগর, শ্রীউলা ও শ্যামনগর উপজেলার গাবুরা ইউনিয়নের শত শত মানুষ এলাকা ছেড়ে চলে যাচ্ছেন। এদিকে, শ্যামনগরের গাবুরা ইউনিয়নের চেয়ারম্যানের নেতৃত্বে বুধবার সকাল থেকে আবারও হাজার হাজার এলাকাবাসী স্বেচ্ছা শ্রমে লেবুবুনিয়া গ্রামের ৬টি স্থানের রিংবাঁধ সংস্কারে কাজ করেন। চেয়ারম্যান মাসুদুল আলম জানান, তার ইউনিয়নে এখনও ১০টি গ্রাম পানির নিচে। সাতক্ষীরার জেলা প্রশাসক এসএম মোস্তফা কামাল শ্যামনগর উপজেলার গাবুরার লেবুবুনিয়া রিং বাঁধ সংস্কারের কাজ পরিদর্শন করেন। ইতোমধ্যে আশাশুনি ও শ্যামনগরের বন্যাদুর্গত মানুষের খাদ্য সহায়তার জন্য ২৯০ টন চাল ও ২ লাখ টাকা বরাদ্দ দেওয়া হয়েছে। চলতি বছরের ২০ মে ঘূর্ণিঝড় আম্পানের আঘাতে সাতক্ষীরার উপকূলীয় এলাকায় পানি উন্নয়ন বোর্ডের নিয়ন্ত্রণাধীন ৩০টি পয়েন্টে সাড়ে ৫৭ কিলোমিটার বেড়িবাঁধ ভেঙে বিস্তীর্ন এলাকা প্লাবিত হয়। সবচেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্থ হয় আশাশুনি ও শ্যামনগর উপজেলা। ওই সময় বেশকিছু স্থানে রিংবাঁধ দিয়ে পানি প্রবাহ বন্ধ করা করা হলেও আশাশুনি উপজেলার প্রতাপনগর ও শ্রীউলা ইউনিয়নের বড় একটি অংশের লোকালয়ে গত তিন মাস ধরে চলছে জোয়ার-ভাটার খেলা। কিছু এলাকায় মানুষ রিংবাঁধ দিয়ে পানি বন্ধ করে ধীরে ধীরে ঘুরে দাঁড়াতে শুরু করলেও গত অমাবস্যায় জোয়ারের পানি অস্বাভাবিকভাবে বেড়ে যাওয়ায় তলিয়ে যায় নতুন নতুন এলাকা।

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এই রকম আরো সংবাদ
© সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © 2020-2022 বজ্রকথা।
ডিজাইন ও কারিগরি সহযোগিতায়: Hostitbd.Com