1. admin@bwazarakatha.com : bwazarakatha com : bwazarakatha com
শুক্রবার, ১৭ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০১:৩২ অপরাহ্ন

বিদ্রোহী কবি কাজী নজরুল ইসলামের প্রয়াণ দিবস আজ

  • আপডেট সময় : বৃহস্পতিবার, ২৭ আগস্ট, ২০২০
  • ৬০ বার পঠিত

সুবল চন্দ্র দাস।- ‘গাহি সাম্যের গান/যেখানে আসিয়া এক হয়ে গেছে সব বাধা-ব্যবধান/যেখানে মিশছে হিন্দু-বৌদ্ধ-মুসলিম খ্রিষ্টান ।’ মহৎ এই বাণী যিনি অবলীলায় দৃঢ়কণ্ঠে উচ্চারণ করেছিলেন, তিনিই কাজী নজরুল ইসলাম। সাম্যবাদী, দ্রোহী, অথচ হৃদয়ে রোমান্টিক; এমন সম্মিলিত ভাব ধারার বিরল প্রতিভা বাংলা কবিতায় আর দেখা যায় না। মানবতার প্রতি তীব্র দরদি এমন কবি খুঁজে মেলাও ভার। ‘মানুষের চেয়ে বড় কিছু নয়, নহে কিছু মহীয়ান’ উচ্চারণকারী কাজী নজরুল ইসলাম আজীবন অন্তরে ধারণ করেছেন ‘এই হৃদয়ের চেয়ে বড় কোনো মন্দির কা’বা নাই।’ বাংলা সাহিত্যের অবিস্মরণীয় এক যুগ স্রষ্টা তিনি। অসা¤প্রদায়িক চেতনার নজরুল একদিকে লিখেছেন ইসলামী গজল, অপরদিকে লিখেছেন শ্যামা সংগীত। তার বিস্ময়কর প্রতিভার জাদুস্পর্শে কেবল বাংলা কবিতা নয়, সংগীতও হয়েছে সমৃদ্ধিশালী। গানের বুলবুল তিনি। লিখেছেন উপন্যাসও। সকলে তাকে বিদ্রোহী কবি হিসেবে মান্যতা করে, কিন্তু বাংলা শিশু সাহিত্যেও তার অবদান অপরিসীম। শিশুদের মনের কথা বুঝতে পারতেন তিনি। কচি-কাঁচাদের সঙ্গে অবলীলায় মিশে যেতেন। তার সমসাময়িক মুসলিম কবি-সাহিত্যিকরা নিজেদের সুনির্দিষ্ট গন্ডির বাইরে যেতে সক্ষম হননি। অথচ কাজী নজরুল তার শক্তিশালী লেখনীর মধ্য দিয়ে প্রতিনিয়ত নিজেকে ছড়িয়ে দিয়েছেন বিশ্ব চরাচরে। কোনো গন্ডির মধ্যে তার সৃজনশীল প্রতিভা সীমিত থাকেনি। আজ ১২ ভাদ্র তার ৪৪তম প্রয়াণ বার্ষিকী। ১৩০৬ বঙ্গাব্দের ১১ জ্যৈষ্ঠ অবিভক্ত বাংলার বর্ধমান জেলার চুরুলিয়ায় তিনি জন্মেছিলেন ‘জ্যৈষ্ঠের ঝড়’ হয়ে। সে ঝড় চিরতরে থেমে গিয়েছিল সেই সময়ের তৎকালীন পিজি হাসপাতালের কেবিনে ১৩৮৩ বঙ্গাব্দের ১২ ভাদ্রে, আজকের এই দিনে। অঙ্কের হিসাবে তার জীবনকাল ছিল ৭৭ বছর। জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলামের মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা পৃথক বাণী দিয়েছেন। বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরও আলাদা বাণী দিয়েছেন। রবীন্দ্রোাত্তর সাহিত্যে সম্পূর্ণ স্বতন্ত্র বৈশিষ্ট্যের অধিকারী ছিলেন কাজী নজরুল ইসলাম। তিনি তার কবিতায়, গানে, উপন্যাসে পরাধীন ভারতে বিশেষ করে অবিভক্ত বাংলায় সা¤প্রদায়িকতা, সামন্তবাদ, সা¤্রাজ্যবাদ ও উপনিবেশবাদের বিরুদ্ধে আজীবন সোচ্চার ছিলেন। আমাদের মহান মুক্তিযুদ্ধের সময় তার গান-কবিতা সাহস ও প্রেরণা জুগিয়েছে মুক্তিকামী মানুষকে। পশ্চিমবঙ্গ ও বাংলাদেশে কাজী নজরুলের গান ও কবিতা সমানভাবে সমাদৃত। বাঙালির হৃদয়ে তিনি ‘বিদ্রোহী কবি’ হিসেবে আসীন। কবিতা লিখে জেল খেটেছেন। দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের দামামা বাজলে লড়েছেন যুদ্ধের ময়দানে। তার রচিত ‘চল্? চল্? চল্?, ঊর্ধ্ব গগনে বাজে মাদল’ বাংলাদেশের রণসংগীত। সব্যসাচীর মতো দু’হাতে লিখেছেন অগ্নিবীণা, বিষের বাঁশি, চক্রবাক, সঞ্চিতা, প্রলয় শিখা, মরু ভাস্কর, দোলনচাঁপা, ভাঙ্গার গান, সাম্যবাদী, পুবের হাওয়া, ব্যথার দান, রিক্তের বেদন, বাঁধনহারা, মৃত্যু ক্ষুধা, কুহেলিকা ইত্যাদি। ছেলেবেলায় ছিলেন দারিদ্র্যের কশাঘাতে জর্জরিত। তবুও কখনও মাথানত করেননি লোভ-লালসা, খ্যাতি, অর্থ, বিত্তবৈভবের কাছে। আজীবন সংগ্রাম করে গেছেন শোষিত-বঞ্চিত মানুষের মুক্তির জন্য। মানবতার মুক্তির পাশাপাশি সা¤প্রদায়িকতা, ধর্মান্ধতা, কুসংস্কার, কূপমন্ডুকতার বিরুদ্ধেও ছিলেন সোচ্চার। মুক্তবুদ্ধি ও চিন্তার পক্ষে কলম ধরেছেন নির্ভীক চিত্তে। ১৯৭২ সালের ২৪ মে স্বাধীন বাংলাদেশের তৎকালীন রাষ্ট্রপতি জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের উদ্যোগে ভারত সরকারের অনুমতি নিয়ে কবি নজরুলকে সপরিবারে বাংলাদেশে নিয়ে আসা হয়। বঙ্গবন্ধু তাকে বাংলাদেশের নাগরিকত্ব প্রদান করেন। তাকে দেওয়া হয় জাতীয় কবির মর্যাদা। বাংলা সাহিত্য ও সংস্কৃতিতে অবদানের জন্য ১৯৭৪ সালের ৯ ডিসেম্বর ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় কাজী নজরুলকে ডিলিট উপাধিতে ভূষিত করে। একই বছরের ২১ ফেব্রুয়ারি তাকে দেওয়া হয় একুশে পদক। ১৯৭৬ সালে মৃত্যুর পর কবির ইচ্ছানুসারে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্রীয় মসজিদের পাশে সমাহিত করা হয় তাকে। দিবসটি পালন উপলক্ষে বিভিন্ন সামাজিক ও সাংস্কৃতিক সংগঠন ও সংস্থা ভিন্ন ভিন্ন কর্মসূচি হাতে নিয়েছে। বাংলা একাডেমি ও নজরুল একাডেমির আলাদা কর্মসূচি রয়েছে। আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় নেতারা সকাল সাড়ে ৯টায় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় মসজিদ প্রাঙ্গণে কবির সমাধিতে শ্রদ্ধা নিবেদন করবেন। তারা সেখানে পুষ্পার্ঘ্য অর্পণ, ফাতেহা পাঠ ও দোয়া মাহফিলে অংশ নেবেন। আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী সংসদের নেতৃবৃন্দ, ঢাকা মহানগর উত্তর ও দক্ষিণ আওয়ামী লীগের সভাপতি, সাধারণ সম্পাদক এবং সহযোগী সংগঠনের সভাপতি, সাধারণ সম্পাদকরা এ কর্মসূচিতে অংশ নেবেন। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ আজ বৃহস্পতিবার সকাল সোয়া ৭টায় উপাচার্য অধ্যাপক ড. মো. আখতারুজ্জামানের নেতৃত্বে বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক, শিক্ষার্থী, কর্মকর্তা ও কর্মচারীরা শোভাযাত্রা সহকারে কবির সমাধিতে গিয়ে পুষ্পস্তক অর্পণ ও ফাতেহা পাঠ করবেন। সকাল সাড়ে ১০টায় উপাচার্যের সভাপতিত্বে প্রশাসনিক ভবনে অধ্যাপক আব্দুল মতিন চৌধুরী ভার্চুয়াল ক্লাসরুমে ভার্চুয়াল আলোচনা সভা অনুষ্টিত হয়। জাতীয় কবির মৃত্যু বার্ষিকী উপলক্ষে আগামীকাল বাদ ফজর ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের মসজিদুল জামিয়ায় কোরআনখানি হবে। সামাজিক দূরত্ব বজায় রেখে ও স্বাস্থ্যবিধি মেনে এসব কর্মসূচি পালিত হবে।

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এই রকম আরো সংবাদ

© All rights reserved © 2020 Bwazarakatha.Com
Design & Development By Hostitbd.Com