বৃহস্পতিবার, ২৯ সেপ্টেম্বর ২০২২, ১১:৪০ পূর্বাহ্ন

বিপন্ন জৈববৈচিত্র্য

রিপোটারের নাম
  • আপডেট সময় : মঙ্গলবার, ২৮ জুলাই, ২০২০
  • ১২৭ বার পঠিত

-এ.কে.এম. বজলুল হক

(পূর্ব প্রকাশের পর)

ডোডো কারা-মানুষ না ডোডোপাখি?
অনেক নবদম্পতি হানিমুনের স্বপ্ন দেখেন মরিশাসদ্বীপবে। পঞ্চদশ শতকের প্রথমদিকে পর্তুগেজ বণিকেরা পা রাখে এই দ্বীপপে এবং শেষভাগে আসে ওলন্দাজ। উড্ডয়নে অক্ষম পাখিগুলির সারল্যকে পর্তুগিজ নাবিকেরা বোকামি বলে ভাবতেন এবং এর থেকেই নাকি ‘ডোডো’ নামের সুত্রপাত। এর অর্থ বোকা। ঔ পনিবেশিকদের হাত ধরে দ্বীপয়ি বাস্তুতন্ত্রে হয়তো ঢুকে পড়ে কিছু মাংসাসি প্রাণী যারা সর্বোচ্চ শ্রেণীর খাদকের ভূমিকায় অবতীর্ণ হলে নয়তোবা তাদের শিকারে পরিণত হলে ধীরে ধীরে তারা প্রকৃতির বুক থেকে মুছে যায়। শুধু প্রাকৃতিক দুর্যোগ নয়, মানুষ যে এর কবর খুঁড়েছিল সে বিষয়ে কোনও সন্দেহ নইে। ‘ইকোভ্যা-ালিজম’-এর নির্মম উদাহরণ এই নিরীহ পাখি। মনুষ্যকৃষ্ট প্রাকৃতিক ভারসাম্যহীনতার প্রেক্ষিতে সকলকে অবগতির প্রয়োজন যে প্রকৃতি নিয়ে খেলায় তাদের অধিকারের সীমা কতখানি।

ওজন বাড়াতে গিয়ে ওজোন ছিদ্র ও অ্যাসিড বৃষ্টিঃ
সারা বিশ্বে পুঁজির ওজন বাড়াতে গিয়ে তাদেরই সৃষ্ট কলকারখানা ও শিল্পজাত দূষক নাইট্রিক অক্সাইড-এর ও সালফার ডাই অক্সাইড অ্যাসিড বৃষ্টি ঘটাচ্ছে এবং মাটি ও জলকে জৈব বৈচিত্র্যের বাসের অযোগ্য করে তুলছে। ঠিক একইভাবে ষ্ট্র্রাটোস্ফিয়ারে আল্ট্রাভায়োলেট প্রতিরোধী ওজোনের চাদরে, ওজোন হোল জম্ম নিচ্ছে। এ যেন ঘাতক সা¤্রাজ্যবাদের দল জৈববৈচিত্র্যের ঘাতকেরই আমন্ত্রণ জানাচ্ছে। ফলে সাধারণ নিরীহ, খেটে খাওয়া মানুষ দূরারোগ্য ব্যাধি এবং বিশেষ করে ক্যানসারে আক্রান্ত হচ্ছে। মুনাফাখোর পুঁজিপতি শ্রেণী রক্তচোষা বাদুড়, ভ্যাম্পায়ারের মতো শ্রকিশ্রেণীর রক্তচুষে খাচ্ছে। অ্যান্টার্কটিকার ওজোন ঞোলের কথা আমরা সবাই জানি যেখানে সমগ্র উত্তর আমেরিকা ডুবে যাবে। বর্তমানে অষ্ট্রেলিয়ার বেশ কিছু এলাকায় সকাল থেকে বিকেলের নির্দিষ্ট সময় পর্যন্ত জনগণের চলাচল বন্ধ বলে সরকারিভাবে ঘোষণা করা হয়েছে। কারণ ওজোন হোলের তা-ব নাকি সেখানে চলছে। পৃথিবীর বায়োম অর্থাৎ জলবায়ু নিয়ন্ত্রিত ভৌঘোলিক পরিবেশ পাল্টে যাচ্ছে দুষণের ফলে। ধ্বংস হচ্ছে বাস্তবতন্ত্র। সংকটের মূখে বহুজীব। এমনি একটি পাখি নাম তার ক্যাসোয়ারী। অষ্ট্রেলিয়াবাসী ক্যাসোয়ারীর সংখ্যা কুড়ি শতাংশ কমে গেছে বিগত ত্রিশ বছরের মধ্যে। এরা বর্ষাবনের ঝাড়–দার এবং বিভিন্ন রসালোফল ভক্ষণ করে বীজবিস্তারে সাহায্য করে। আমাদের পরিচিত সর্পন্ধা, খামআলু, একশৃঙ্গলগুন্ডার, বাঘ, ঈগল, শকুনির মতো কতো জীব বিপন্ন অস্তিস্বসম্পন্ন। এদের নাম আজ রেড ডাটা বুক-এর অন্তর্ভুক্ত। গ্রীণ ডাটা বুকেও দেখতে পায় এই রকম বহু উদ্ভিদ প্রাজাতির নাম।

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এই রকম আরো সংবাদ
© সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © 2020-2022 বজ্রকথা।
ডিজাইন ও কারিগরি সহযোগিতায়: Hostitbd.Com