মঙ্গলবার, ০৯ অগাস্ট ২০২২, ০৩:৫৭ পূর্বাহ্ন

বিরামপুরে টাকা হাতিয়ে নিয়ে প্রতারক চক্রের উল্টো মামলা

রিপোটারের নাম
  • আপডেট সময় : মঙ্গলবার, ২৭ অক্টোবর, ২০২০
  • ৬৫ বার পঠিত

মোঃ আশরাফুল আলম, দিনাজপুর (ফুলবাড়ী) প্রতিনিধি।- বিরামপুর উপজেলা বিনাইল ইউপির বিনাইল গ্রামের মৃত মোজাফ্ফর হোসেন এর পুত্র মোঃ ফরহাদ হোসেন (৩০) কে প্রতারক চক্ররা স্ট্যান্ডার্ড ব্যাংকে চাকুরী দেওয়ার কথা বলে ৩ লক্ষ টাকা হাতিয়ে নেয়। টাকা চাইতে গেলে প্রতারক চক্র মুরাদুল হক ভূঁইয়া উল্টো মা ছেলের বিরুদ্ধে ১১ লক্ষ টাকার মিথ্যা মামলা দায়ের করে আদালতে।

বিরামপুর উপজেলার বিনাইল গ্রামের মৃত মোজাফ্ফর হোসেনের পুত্র মোঃ ফরহাদ হোসেন এর অভিযোগে জানা যায়, গত ১৮ জুলাই ২০১৮ ইং সালে দিনাজপুরের রাজবাড়ী এলাকার স্থায়ী বাসিন্দা মকবুল হক ভুঁইয়ার পুত্র দু’সম্পর্কের মামা মোঃ মুরাদুল হক ভূঁইয়া (সুমন) ও তার স্ত্রী মোছাঃ সেলিনা আক্তার সুমি (৩০) এবং দু’সম্পর্কের খালা জোৎস্না আক্তার (৪০) তারা বিনাইল গ্রামে এসে ঐ তারিখে ফরহাদ হোসেনের বাড়িতে বেড়ানোর জন্য আসেন এবং ফরহাদ হোসেন যেহেতু বেকার সেহেতু তাকে স্ট্যান্ডার্ড ব্যাংকে চাকুরী দেওয়ার কথা বলেন।

সাদাসিধা গ্রামের অসহায় মোঃ ফরহাদ হোসেন তাদের কথা শুনে অনেক কষ্টে টাকা যোগাড় করে ৩ লক্ষ টাকা প্রতারক চক্র মুরাদুল হক ভূঁইয়া কে প্রদান করেন। মুরাদুল হক ভূঁইয়া ও তার স্ত্রী মোছাঃ সেলিনা আক্তার সুমি বলেন স্ট্যান্ডার্ড ব্যাংকে চাকুরী নিতে গেলে আগাম ব্ল্যাংক চেক দিতে হবে। তাদের কথামত ডাচ-বাংলা ব্যাংকে ফরহাদ হোসেন ও তার মা মোছাঃ ফরিদা বেগমকে হিসাব নম্বর খুলে দেন। পুত্রের সঞ্চয়ী হিসাব নম্বর ১৭২.১৫১.২৩৩৪৮৭ ও তার মা এর সঞ্চয়ী হিসাব নম্বর- ১৭২.১৫১.২৩০৮৮০।

এই দুটি হিসাব নম্বর ছেলে ও মায়ের। হিসাব নম্বর খোলার পর ঐ প্রতারক চক্র ১৫/০৪/২০১৯ ইং তারিখে মা এর নিকট ডাচ-বাংলা ব্যাংকের ফাঁকা চেক নেন, যাহার মায়ের চেক নং- ও ছেলের চেক নং – ।একই তারিখে পুত্রের নিকটও ফাঁকা চেক নেন। পরবর্তীতে প্রতারক চক্র টাকা না দিয়ে মৃত মোজাফ্ফর হোসেনের পুত্র ফরহাদ হোসেনের বিরুদ্ধে দিনাজপুর বিজ্ঞ সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিষ্ট্রেট আমলী আদালত-১ (সদর) এর নিকট চেক প্রতারণার মামলা করেন।

যাহার মামলা নং- সিআর-৪১৪/১৯ কোতয়ালী, তারিখ- ০৩/৬/২০১৯ ইং। গত ১৬/০৬/২০২০ ইং তারিখে প্রতারক চক্র মুরাদুল হক ভূঁইয়া মৃত মোজাফ্ফর হোসেনের স্ত্রী মোছাঃ ফরিদা বেগমের বিরুদ্ধেও চেক জালিয়াতির মামলা করেন। যাহার মামলা নং-৪৪৪, তারিখ- ১৬/০৬/২০১৯ ইং। মোছাঃ ফরিদা বেগম জানান, আমরা গ্রামের সরল মানুষ।

প্রতারক মুরাদুল হক ভূঁইয়া ও তার স্ত্রী এবং মোছাঃ জোৎস্না আমার ছেলেকে চাকুরী দিবে বলে ডার্চ-বাংলা ব্যাংক, দিনাজপুর এ হিসাব খোলান এবং সেই হিসাব নম্বরে ফাঁক চেক আমার ও আমার ছেলের নেন। চেকে ইচ্ছেমত টাকা বসিয়ে ব্যাংকে চেক ডিসওনার করে আমাদের বিরুদ্ধে আদালতে চেক জালিয়াতির মিথ্যা মামলা করেন। এ ব্যাপারে ফরিদা বেগম প্রশাসনের তদন্ত স্বাপেক্ষে ন্যায় বিচারের দাবি জানান।

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এই রকম আরো সংবাদ
© সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © 2020-2022 বজ্রকথা।
ডিজাইন ও কারিগরি সহযোগিতায়: Hostitbd.Com