বুধবার, ১৭ জুলাই ২০২৪, ০১:০৩ পূর্বাহ্ন
ব্রেকিং নিউজ :
কোটা বিরোধী আন্দোলনে নিহত শিক্ষার্থী সাঈদের বাড়ীতে শোকের মাতম নেটওয়ার্কের সক্ষমতা বাড়াতে এআই যুক্ত করার ঘোষণা হুয়াওয়ের রংপুরে কোটা বিরোধী আন্দোলন এক শিক্ষার্থী নিহত তৃণমূল পর্যায়ে চিকিৎসার মান উন্নত করলে বেসরকারি হাসপাতাল ও ক্লিনিক রোগী শুন্য হবে-স্বাস্থ্যমন্ত্রী   পার্বতীপুর প্রেসক্লাবের উদ্যোগে নবনির্বাচিত উপজেলা চেয়ারম্যান ও ভাইসচেয়ারম্যানদের সংবর্ধনা বন্যার পানিতে সাঁতরে বন্যার্তদের ত্রাণ সংগ্রহ পার্বতীপুর পৌরসভায় মৌসুমি ফল উৎসব বড় পুকুরিয়া কয়লা খনির কারণে ক্ষতিগ্রস্তদের মানববন্ধন পার্বতীপুর পৌরসভায়  ড্রেন নির্মান কাজের উদ্বোধন দিনাজপুর-বিরামপুর -ঘোড়াঘাট সড়কে প্রতিনিয়ত দুর্ঘটনা ঘটছে

বিরামপুর সীমন্তে ভারত বাংলা দুই দেশ মিলে একাকার

রিপোটারের নাম
  • আপডেট সময় : মঙ্গলবার, ১৩ জুলাই, ২০২১
  • ১২৭ বার পঠিত

বিরামপুর (দিনাজপুর) থেকে মো: আবু সাঈদ ।- ভারতীয় সীমন্তবর্তী দিনাজপুরের বিরামপুর উপজেলায় দিন দিন বাড়ছে করোনা সংক্রমণ। এর সঙ্গে পাল্টা দিয়ে বাড়ছে মৃত্যুর সংখ্যাও।

সীমান্ত এলাকায় দুই দেশের মানুষের অবাধ চলাফেরার কারণে এমনটি হচ্ছে। এই উপজেলার বেশ কয়েকটি গ্রামের লোকজন ভারতীয়দের সঙ্গে অনেকটাই মিলে মিশে বসবাস করছে। তারা ইচ্ছেমতো ভারতে প্রবেশ করছে, আবার ভারতীয়রা বাংলাদেশে আসছে। এ কারণে বিরামপুর উপজেলায় করোনা রোগীর সংখ্যা হু হু করে বাড়ছে।

সরকার এরই মধ্যে জনসমাগম নিষিদ্ধ করা, ভিনদেশিদের শরীরের তাপমাত্রা মাপাসহ নানা কর্মসূচি নিলেও এই এলাকার মানুষ এগুলো মানছে না। এই এলাকার অনেকের করোনা ভাইরাসের সম্পর্কে কোনো ধারণাও নেই। ফলে সংক্রমণের হার বেড়েই চলছে।

খোঁজ নিয়ে জানা যায়, বিরামপুর উপজেলার প্রায় ১৫ কিলোমিটার এলাকা সীমান্ত ঘেঁষা। এই ১৫ কিলোমিটারের মধ্যে সীমান্তের নজরদারির জন্য রয়েছে ৬টি বিজিবি ক্যাম্প। এর মধ্যে বেশ কিছু গ্রাম রয়েছে প্রায় উন্মুক্ত। শুধু একটি নালা, খাল কিংবা সীমান্তর পিলার বাংলাদেশ ও ভারতের মধ্যে পার্থক্যের চিহ্ন এঁকে দিয়েছে। গ্রামগুলোর ভারতীয় অংশে প্রায় ২০০ থেকে ৪০০ গজ ভারতের অভ্যন্তরে রয়েছে কাঁটাতারের বেড়া। এই কাঁটাতারের বেড়ার ফাঁক দিয়ে ভারতীয় মানুষ বাংলাদেশে এবং বাংলাদেশের মানুষ ভারতে অবাধে প্রবেশ করছে।

সীমান্তে ভারতীয় অংশের গ্রামগুলো হলো উচাগোবিন্দপুর, কোঁচপাড়া, নিচা গোবিন্দপুর, জামালপুর, ছিরামপুর, ভীমপুর, হামলাকুড়ি, কৌতাড়া ও চাপড়া। অন্যদিকে বাংলাদেশ অংশের গ্রামগুলো হলো চৌঘরিয়া, দক্ষিণ দামোদরপুর, গোবিন্দপুর, দক্ষিণ দাউদপুর, পলিখিয়ার মামুদপুর, খিয়ারমামুদপুর, ভাইগড়, হামলাকুড়ি, খিয়ার দুর্গাপুর ও চাপড়া।

সরেজমিন উপজেলার কাটলা ইউনিয়নের দক্ষিণ দাউদপুর, গোবিন্দপুর ও খিয়ারমাহমুদপুর এলাকা ঘুরে দেখা গেছে, সেখানে বাংলাদেশের মানুষ ভারতে ও ভারতের মানুষ বাংলাদেশে অবাধে যাতায়াত করছে।

সীমান্তের শূন্যরেখা থেকে বিজিবির সীমান্তরক্ষা পোস্ট মাত্র ১০০ গজ দূরে। আর ভারতীয় সীমান্তরক্ষী বাহিনীর (বিএসএফ) পোস্ট রয়েছে কাটাতাঁরের বেড়ার ওপারে। দক্ষিণ দাউদপুরের একেবারে সীমান্ত ঘেঁষে ভারতের অভ্যন্তরে নামাজের জন্য তৈরি করা হয়েছে মসজিদ। সেখানে উভয় দেশের মানুষ একসঙ্গে নামাজ আদায় করছে।

স্থানীয়রা জানায়, এসব এলাকার অনেক বাংলাদেশি ভারতীয় নাগরিকের সঙ্গে এবং ভারতীয়রা বাংলাদেশি নাগরিকদের সঙ্গে বিয়ে বন্ধনে আবদ্ধ হচ্ছেন। শুধু তাই নয়, ভারতের অনেক ছেলে-মেয়ে বাংলাদেশের প্রাথমিক বা মাধ্যমিক শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে পড়াশোনা করছে।

এই উপজেলায় মোট ১০ জনের মৃত্যু হয়েছে। এমনকি এক দিনেই শনাক্ত হয়েছেন ২৩, ২৯ ও ৩২ জন। এটি করোনার শুরু থেকে সর্বোচ্চ শনাক্ত বলে জানা গেছে। তা ছাড়া এক সপ্তাহের ব্যবধানে মারা গেছে চারজন করোনা রোগী। এ নিয়ে এই এলাকায় মৃত্যুর সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ১০ জনে।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে বিরামপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের চিকিৎসক ডা. শাহারিয়ার ফেরদৌস হিমেল বলেন, ‘ভারতীয় সীমান্তবর্তী উপজেলা হওয়ায় এখানে করোনা সংক্রমণের হার দিন দিন বাড়ছে। তা ছাড়াও এলাকার মানুষ চলাফেরায় অনেক উদাসীন। তবে করোনা থেকে নিরাপদে থাকতে হলে স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলার পাশাপাশি তাঁদের সচেতন হওয়ার বিকল্প নেই।’

এবিষয়ে বাংলাদেশ ২৯ বর্ডার গার্ড ব্যাটালিয়নের অধিনায়ক লে. কর্নেল শরিফ উল্লাহ আবেদ বলেন, ‘বিরামপুর সীমান্ত এলাকাটি অবশ্যই ঝুঁকিপূর্ণ। তবে আমরা সর্বোচ্চ সতর্ক অবস্থানে রয়েছি। ওই সব এলাকা দিয়ে কোনো ভারতীয় নাগরিক বাংলাদেশে প্রবেশ করলে সঙ্গে সঙ্গেই আমরা তাঁদের আইনের আওতায় নিয়ে আসছি।

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই রকম আরো সংবাদ
© সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © 2020-2022 বজ্রকথা।
ডিজাইন ও কারিগরি সহযোগিতায়: Hostitbd.Com