শনিবার, ০১ অক্টোবর ২০২২, ১১:১৪ পূর্বাহ্ন

বৃক্ষ অক্সিজেনের ফ্যাক্টুরী – সুলতান আহমেদ সোনা

রিপোটারের নাম
  • আপডেট সময় : রবিবার, ১২ জুলাই, ২০২০
  • ২৫১ বার পঠিত

বৃক্ষ বা গাছ মূল্যবাদ সম্পদ, বৃক্ষ প্রকৃতির অলংকার। এক একটি বৃক্ষ এক একটি অক্সিজেনের ফ্যাক্টরী। বৃক্ষ, লতা-পাতা, ঝাউ-জঙ্গল, ঝোপ-ঝাড় মিলেই সবুজ প্রকৃতি। এই প্রাকৃতিক পরিবেশের মধ্যেই আমরা বেঁচে আছি, আমাদের বেঁচে থাকা। গাছ ছাড়া পৃথিবীর কোন প্রাণীই বেঁচে থাকতে পারবে না। একটি ভূখন্ডের ৪০ শতাংশ বন সম্পদ থাকা উচিত। কারণ আমাদের বেঁচে থাকার স্বার্থেই গাছপালা দরকার। গাছ তো শুধু অক্সিজেনই দেয়না, আমাদেরকে অনেক কিছু দেয়। গাছ তাপমাত্রা নিয়ন্ত্রণ করে, জলবায়ু, ঋতুর বৈচিত্র্য রক্ষা করে। ঝড়, প্রাকৃতিক দূর্যোগ থেকে আমাদেরকে নিরাপত্তা দেয়। বজ্রাঘাত নিয়ন্ত্রণ করে। মানুষদের জন্য পুষ্টি ও খাদ্যের যোগান দিয়ে থাকে; পশু পাখিদের খাদ্যের যোগ ও আশ্রয় দিয়ে থাকে। মাটির খাদ্য, জৈব সারের উৎস গাছের পাতা। ছাল, বাকল, জ্বালানি ও চাহিদামত কাঠের যোগান পাই এই বৃক্ষ থেকে। আমরা দেখে আসছি প্রাকৃতিক নিয়মেই বনজঙ্গল সৃষ্টি এবং এর বিস্তার ঘটলেও মানুষও নিজেদের প্রয়োজনে বন সৃজন করে থাকে। বৃক্ষের প্রয়োজন আছে, সে কারণে আমরা দেখি মানুষ বাড়ির আশে পাশে পতিত জমিতে গাছ লাগায়। রাস্তার পাশে, নদীর ধারে গাছ লাগিয়ে থাকে। কেউ কেউ সখের বশে বাগান করে। কেউ কেউ বানিজ্যিক ভাবনা থেকেও ফলজ কিংবা বনজ বাগান গড়ে তোলেন। আমরা শোভা বর্ধনের জন্য গাছ লাগাই, সৌন্দর্য প্রিয়তা থেকে ফুল বাগান করি। আবার রোগ শোক থেকে রক্ষা পেতে ঔষধি বৃক্ষ, লতাপাতা, গুল্মের চাষ করি বা লাগাই। প্রকৃতি বলি আর সৃষ্টি কর্তা বলি, এই দুনিয়ায় মানুষের যা কিছু দরকার তার সব কিছুই উপহার দিয়েছে প্রকৃতি। তাই প্রকৃতির উপর হাত তোলা উচিত নয়। প্রকৃতির দানকে ধ্বংশ করা অন্যায় কর্ম। বিশেষজ্ঞরা বলেন, মানুষ প্রকৃতির সাথে বিরূপ আচরণ করছে কারণেই আজ পৃথিবী ঝুঁকির মধ্যে আছে, মানুষ ও প্রাণিকুল মহাসংকটে পড়েছে। আমরা লক্ষ্য করছি কিছু অপরিনাম দর্শী মানব সন্তানের কারণে বন ধ্বংস হচ্ছে, গাছপালা উজার হচ্ছে। অনেক প্রাণি বাসস্থান হারাচ্ছে। পাখিরা দেশ ত্যাগ করছে। বিষয়টি একবার মানবিক দৃষ্টিকোণ থেকে ভেবে দেখার কথা বলছি আমরা। এই পৃথিবীর অংশীদার শুধু একাই আমরা নই সব পাখি, প্রাণি, কিট পতঙ্গ, সকলেরই অধিকার আছে প্রকৃতি ও পরিবেশের উপর, এই জমিনের উপর। তাই বৃক্ষ সম্পদ ধ্বংসের বিরোধিতা করছি আমরা। ইদানিং দেখছি পীরগঞ্জ উপজেলার কজন চেয়ারম্যান, গাছ খেকো কিছু মানুষ দেশের প্রকৃতি পরিবেশের ক্ষতি করছে। তারা নির্বিচারে বৃক্ষ কর্তন করে চলেছে। লেখালেখি, আপত্তি, অভিযোগের পরেও উপজেলা প্রশাসন, বন বিভাগ কোন গুরুত্ব দিচ্ছে না! গাছ কাটার অনুমতি দিচ্ছে। এখন গাছ লাগানোর মৌসুম কিন্তু এখানে বৃক্ষরোপন কর্মসূচীতে বনবিভাগের কোন উদ্যোগ দেখছি না, স্থানীয় প্রশাসনেরও কোন কর্মসূচী চোখে পড়ছেনা। তবে বাংলাদেশ আওয়ামীলীগের একটি অংশ ইঞ্জিনিয়ার সাঈদ রেজা শান্ত’র সহযোগিতায় কাঠ ও ফল জাতীয় গাছের চারা বিতরণ করছে। আমরা তাদেরকে এ জন্য ধন্যবাদ জানাচ্ছি। আমরা জানি ইউক্যালিপটাস বৃক্ষ পরিবেশের জন্য ক্ষতিকর, তার পরেও গত ১৫ বছরে ইউনিয়ন পর্যায়ে এই ক্ষতিকর বৃক্ষের চারা উৎপাদন ইউক্যালিপটাসের বাগান লাগানো হয়েছে। আমরা আশা করবো সচেতন মহল ফলজ বৃক্ষের পাশাপাশি দেশী জাতের বৃক্ষের চারা লাগানো এবং রক্ষায় মনযোগ দেবেন। আমরা লক্ষ্য করছি, বট, পাইকড়, কড়াই, কসি,কাটাকসি, তাল, তরুল, ছাতিম, কদম, ডুমুর, বেল, ওদরা, বিজল গোটা, ডেউয়া, তেতুল, জাম এই সব বৃক্ষ উজাড় হবার পথে। এই সব বৃক্ষ দেশের পাখ-পাখালীর আশ্রয়স্থল ছিল এবং খাদ্যের যোগান দিয়েছে। এ সব বৃক্ষে একসময় পাখিরা বাসা তৈরী করতো, ডিম পাড়তো, বাচ্চা ফোটাতো। বট, জাম, কদম, ডুমর পাখির খাদ্য। উচুবৃক্ষে চীল, শকুন, টিয়ারা বসত করতো। কী বলতে চাচ্ছি বুঝতে পেরেছেন নিশ্চয়। বুদ্ধিমানদের জন্য ইশারাই যথেষ্ট।

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এই রকম আরো সংবাদ
© সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © 2020-2022 বজ্রকথা।
ডিজাইন ও কারিগরি সহযোগিতায়: Hostitbd.Com