1. admin@bwazarakatha.com : bwazarakatha com : bwazarakatha com
মঙ্গলবার, ২৮ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০৪:২২ পূর্বাহ্ন
ব্রেকিং নিউজ :

মুক্তিযুদ্ধের অন্যতম সংগঠক শাজাহান সিরাজের জীবনাবাসন

  • আপডেট সময় : বুধবার, ১৫ জুলাই, ২০২০
  • ৫০ বার পঠিত

সুলতান আহামেদ সোনা : মুক্তিযুদ্ধের অন্যতম সংগঠক ও স্বাধীনতার ইশতেহার পাঠকারী শাজাহান সিরাজ আর নেই (ইন্নাল্লিাহি .. … রাজিউন)। দীর্ঘদিন ক্যান্সারে ভুগে মঙ্গলবার রাজধানীর এভার কেয়ার (সাবেক অ্যাপোলো) হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তার মৃত্যু হয়। তার বয়স হয়েছিল ৭৮ বছর। শাজাহান সিরাজের মৃত্যুতে শোক প্রকাশ করেছেন রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ। ডায়াবেটিস, কিডনি জটিলতা, উচ্চ রক্তচাপ ছিল শাজাহান সিরাজের। ২০১২ সালে ফুসফুসে ধরা পড়ে ক্যান্সার। এর কয়েক বছর পর ক্যান্সার ধরা পড়ে মস্তিষ্কে ও। শাজাহান সিরাজ স্ত্রী রাবেয়া সিরাজ, মেয়ে শুক্লা সিরাজ ও ছেলে রাজীব সিরাজকে রেখে গেছেন। মঙ্গলবার সন্ধ্যায় তার মরদেহ নেওয়া হয় গুলশানের বাড়িতে। বুধবার সকালে নেয়া হয় টাঙ্গাইলের এলেঙ্গাতে। এলেঙ্গায় বেলা ১১টায় এবং কালিহাতীতে বাদ জোহর জানাজা হয়। এরপর কফিন ঢাকায় আনার পর এশার নামাজ শেষে গুলশান সোসাইটি জামে মসজিদে জানাজা শেষে বনানী কবরস্থানে দাফন করা হয়েছে। রাজনীতির শেষ জীবনে ‘৯০-এর দশকে বাম আদর্শের বিপরীতে হেঁটে বিএনপিতে ঠাঁই নিলেও জাসদ নেতা হিসেবেই মানুষ চেনে শাজাহান সিরাজকে। তিনি ২০০১ সালের বিএনপি সরকারের বন ও পরিবেশ মন্ত্রী ছিলেন এবং দলের ভাইস চেয়ারম্যানের দায়িত্বও পালন করেছেন। তবে অসুস্থতার কারণে ২০১৬ সালের পরে সক্রিয় রাজনীতিতে ছিলেন না। ১৯৪৩ সালের ১ মার্চ টাঙ্গাইলের কালিহাতীতে জন্ম গ্রহণ করেন শাজাহান সিরাজ। তার বাবা আবদুল গণি মিয়া ও মা রহিমা বেগম। ১৯৬২ সালে হামিদুর রহমান শিক্ষা কমিশন বিরোধী আন্দোলনে সম্পৃক্ত হওয়ার মধ্য দিয়ে শাজাহান সিরাজ ছাত্র রাজনীতিতে প্রবেশ করেন। ১৯৬৪-৬৫ এবং ১৯৬৬-৬৭ দুই মেয়াদে তিনি করটিয়া সা’দাত কলেজের ছাত্র সংসদের ভিপি নির্বাচিত হয়েছিলেন। একজন সক্রিয় ছাত্রনেতা হিসেবে তিনি ১১ দফা আন্দোলন এবং ১৯৬৯ সালের গণ অভ্যুত্থানে অংশ নেন। এরপর তিনি ১৯৭০-৭২ মেয়াদে অবিভক্ত ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন। তিনি ছিলেন স্বাধীন বাংলা বিপ্লবী পরিষদ, নিউক্লিয়াসের সক্রিয় কর্মী, ছাত্রসংগ্রাম পরিষদের নেতা। শাজাহান সিরাজ মুক্তিযুদ্ধের পর সর্বদলীয় সমাজতান্ত্রিক সরকার গঠনের পক্ষে অবস্থান নিয়ে জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দল (জাসদ) গঠনে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেন, যা ছিল স্বাধীন বাংলাদেশের প্রথম বিরোধী দল। জাসদের নানা ভাঙনের মধ্যে নিজে একটি অংশের নেতৃত্ব দেন। ছিলেন দলের প্রতিষ্ঠাতা সহকারী সাধারণ সম্পাদক। জাসদের মনোনয়নে ৩ বার তিনি টাঙ্গাইল-৪ আসন থেকে সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন। শাজাহান সিরাজ ১৯৯৫ সালে খালেদা জিয়ার নেতৃত্বাধীন বিএনপিতে যোগ দেন। তিনি বিএনপির মনোনয়নেও একবার একই আসন থেকে সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন। খালেদা জিয়া সরকারের শেষ পর্যায়ের দিকে নৌ পরিবহন মন্ত্রী হিসেবেও দায়িত্ব পালন করেন। শাজাহান সিরাজ বাংলাদেশের স্বাধীনতা সংগ্রাম ও মুক্তিযুদ্ধের অন্যতম সংগঠক ছিলেন। মুক্তিযুদ্ধের সময় যাদের ছাত্রলীগের ‘চার খলিফা’ বলা হতো শাজাহান সিরাজ ছিলেন তাদেরই একজন। অন্য তিনজন ছিলেন ডাকসুর তখনকার ভিপি আ স ম আবদুর রব, ছাত্রলীগের তৎকালীন সভাপতি নূরে আলম সিদ্দিকী এবং ডাকসুর তৎকালীন জিএস আবদুল কুদ্দুস মাখন (প্রয়াত)। স্বাধীনতার আগে ছাত্রলীগকে নেতৃত্ব দেওয়া শাজাহান সিরাজ ১৯৭১ সালের ৩ মার্চ ছাত্র সমাজের পক্ষে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের উপস্থিতিতে পল্টনের সমাবেশে স্বাধীনতার ইশতেহার পাঠ করেছিলেন। এরপর যুদ্ধ শুরু হলে শাজাহান সিরাজ সশস্ত্র যুদ্ধ চলাকালীন ‘বাংলাদেশ লিবারেশন ফোর্স’ (বিএলএফ) বা মুজিব বাহিনীর কমান্ডার হিসেবেও দায়িত্ব পালন করেন। ২০০৭ সালে জরুরি অবস্থা জারির পর সেনা নিয়ন্ত্রিত তত্ত¡াবধায়ক সরকার আমলে গ্রেপ্তার হন শাজাহান সিরাজ। এক সময়ের রাজনৈতিক সহকর্মী, সাবেক ছাত্রনেত্রী রাবেয়া সিরাজের সঙ্গে ১৯৭২ সালে বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ হন শাজাহান সিরাজ। রাবেয়া সিরাজ একজন শিক্ষিকা এবং রাজনীতিবিদ। তিনি সর্বশেষ বিএনপির তাঁতী বিষয়ক সম্পাদক ছিলেন। শাজাহান সিরাজের মৃত্যুতে গভীর শোক জানিয়েছেন বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। এ ছাড়া জাতীয় সমাজ তান্ত্রিক দল-জেএসডি সভাপতি আ স ম আবদুর রব, নাগরিক ঐক্যের আহŸায়ক মাহমুদুর রহমান মান্না, গণস্থাস্থ্যের ট্রাস্টি ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরী, গত নির্বাচনে ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনে মেয়র প্রার্থী তাবিথ আউয়াল ও দক্ষিণ সিটি করপোরেশনে মেয়র প্রার্থী প্রকৌশলী ইশরাক হোসেনসহ বিভিন্ন সামাজিক ও রাজনৈতিক সংগঠন।
বিএনপির শেষ শ্রদ্ধা : শাজাহান সিরাজের প্রতি শেষ শ্রদ্ধা জানিয়েছে বিএনপি। রাতে গুলশানের বাসায় লাশবাহী অ্যাম্বুলেন্সে রাখা মরদেহের সামনে দলটির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর তার প্রতি শ্রদ্ধা জানান। মির্জা ফখরুল প্রয়াত নেতার স্ত্রী রাবেয়া সিরাজের সঙ্গে কথা বলেন এবং পরিবারের সদস্যদের সান্তনা দেন। এ সময় শাজাহান সিরাজের মেয়ে ব্যারিস্টার শুক্লা সিরাজ ও জামাতা ওমর সাহাদাত উপস্থিত ছিলেন। পরে মির্জা ফখরুল সাংবাদিকদের বলেন, শাজাহান সিরাজের এই চলে যাওয়াটা দেশের রাজনীতিতে একটা বিরাট শূন্যতা সৃষ্টি করল। এ ছাড়া গুলশানের বাসায় গিয়ে অন্য নেতারাও শ্রদ্ধা জানান। এদের মধ্যে রয়েছেন বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান আবদুল আউয়াল মিন্টু, যুগ্ম মহাসচিব খায়রুল কবির খোকন, শামসুর রহমান শিমুল বিশ্বাস, শিরিন সুলতানা, শায়রুল কবির খান, আবেদ আহমেদ প্রমুখ।

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এই রকম আরো সংবাদ

© All rights reserved © 2020 Bwazarakatha.Com
Design & Development By Hostitbd.Com