1. admin@bwazarakatha.com : bwazarakatha com : bwazarakatha com
শনিবার, ০৮ মে ২০২১, ০৬:৩২ পূর্বাহ্ন
ব্রেকিং নিউজ :
পীরগঞ্জের ভেন্ডাবাড়ীতে বজ্রপাতে শিশুর মৃত্যু উগ্রবাদীদের রুখে দিতে সবাইকে ঐক্যবদ্ধ থাকতে হবে -মনোরঞ্জন শীল গোপাল এমপি পার্বতীপুরে ট্রেনে কাটা মহিলার লাশ উদ্ধার কটিয়াদীতে অভ্যন্তরীণ বোরো ধান সংগ্রহের উদ্বোধন করলেন এমপি নুর মোহাম্মদ  সাড়ে ছয় কোটি টাকার প্রকল্পে অনিয়ম-দুর্নীতি: ইটনায় বিদ্যুৎ সাবস্টেশন নির্মাণ বন্ধ করে দিল এলাকাবাসী পীরগঞ্জের লালদিঘী ফতেপুরে জমি নিয়ে সংঘর্ষ আহত -৪ নলডাঙ্গার মাদক কারবারী সেই প্রধান শিক্ষক বরখাস্ত হাজার কৃষকের মুখে ফুটেছে হাসি: তিন হাজার বিঘা জমিতে ফলেছে সোনালী ধান নবাবগঞ্জে ত্রাণ কার্যের নগদ অর্থ বিতরণ নবাবগঞ্জে চুরি করে গাছ কাটতে গিয়ে এক জনের মৃত্যু: আটক-৫

মুক্তিযুদ্ধে নিখোঁজ একই পরিবারের ৪ জনের নাম শহীদের তালিকাভুক্তির দাবি

  • আপডেট সময় : সোমবার, ৫ অক্টোবর, ২০২০
  • ৪২ বার পঠিত
নবাবগঞ্জ (দিনাজপুর) থেকে সৈয়দ হারুনুর রশীদ।- ১৯৭১ সালে মহান স্বাধীনতা মুক্তিযুদ্ধকালীন সময়ে স্বাধীনতাকামীদের উপর অত্যাচার নির্যাতন নিপীড়ন চলেছে সারা বাংলায়। তেমনি চলেছে দিনাজপুরের নবাবগঞ্জ উপজেলার বেশ কয়েকটি স্থানে। এর মধ্যে উপজেলার পুটিমারা ইউনিয়নের মতিহারা গ্রামে মুক্তিযুদ্ধে সার্বিক সহযোগিতা করা একটি সম্ভ্রান্ত পরিবারের উপর চলেছে নির্মম অত্যাচার। তাদের বাড়ীঘরের সমস্ত মালামাল লুটপাট করা হয়েছে, তৎকালীন পাকিস্তানি বাহিনীর দোসর স্থানীয় শান্তি কমিটির চেয়ারম্যানের ইশারায়, পুড়ে দেয়া হয়েছে তাদের বাড়ী-ঘর। ধরে নিয়ে যাওয়া হয়েছে একই পরিবারের সম্ভাবনাময় ৪ জন সদস্যকে। যারা আর ফিরে আসে নাই।
ওই গ্রামের মৃত মনির উদ্দীন সরদারের ছেলে আইয়ুব আলী সরদার একজন সম্ভ্রাান্ত পরিবারের সন্তান। তার যেমন বিত্ত বৈভব ছিল তেমনি আধিপত্যও ছিল। এলাকার মানুষ তাকে যেমন সম্মান করতো তিনিও এলাকার মানুষকে ভালবাসতেন। তিনি ছিলেন মুক্তিযুদ্ধের স্বপক্ষে। বিভিন্নভাবে মুক্তিযোদ্ধাদের তিনি সহযোগিতা করে আসছিলেন। মানুষের ভালবাসা আর মুক্তিযোদ্ধাদের সহযোগিতার বিষয়টি নজরে পড়ে স্থানীয় পাকহানাদার বাহিনীর এক দোসরের। ৯ সেপ্টেম্বর’ ১৯৭১  বিকালে ওই দোসরের ইশারায় ও সহযোগিতায় পাক হানাদার বাহিনীর বিরামপুর ক্যাম্পের সদস্যরা মতিহারা গ্রামে অভিযান পরিচালনা করে বাড়ী ঘর আগুনে পুড়ে দিয়ে আইয়ুব আলী সরদার সহ তার বড় ছেলে আবুল কাশেম সরদার ও ২য় ছেলে মতিয়ার রহমান সরদারকে ধরে নিয়ে যায়। এর পরই ধরে নিয়ে যায় তার ভাই মৃত বনিজ উদ্দীন সরদারের ছেলে আলতাব হোসেন সরদার কে। যারা আর ফিরে আসে নাই বলে জানালেন, ওই স্বজনহারা পরিবারের সদস্য অবঃ সরকারী কর্মকর্তা মোঃ খায়রুল আনাম সরদার। তিনি জানান, তারা ১০ ভাই। যুদ্ধকালীন সময়ে খান সেনারা ধরে নিয়ে যায় তার বাবার সাথে ২ ভাইকে। ১ ভাই ২০০৫ সালে মারা গেছেন। বাকীরা সবাই প্রতিষ্ঠিত। কেউ ব্যবসায়ী কেউ চাকুরীজীবী। ইতিমধ্যে কেউ কেউ চাকুরী থেকে অবসর গ্রহন করেছেন। মোঃ দেলোয়ার হোসেন সরদার নামে তার এক ভাই বর্তমানে রাজউকের পরিচালক। আরেক ভাই রাশেদুর রেজা সরদার বর্তমানে দুদকের সহকারী পরিচালক। রাজউকের পরিচালক দেলোয়ার হোসেন সরদারের সাথে মোবাইল ফোনে যোগাযোগ করা হলে তিনি আবেগ জড়িত কণ্ঠে জানান সেদিনের যে ঘটনা তা কখনও ভ’লবার নয়। তিনি সহ তার পরিবারের সদস্যদের দাবী তাদের পরিবারের যে ৪ জন সদস্যকে হানাদার বাহিনী ধরে নিয়ে যাওয়ার পর আর ফিরে আসে নাই তাদের নাম শহীদের তালিকা ভুক্ত করা সহ তাদের স্মরণে ওই গ্রাম এলাকায় একটি স্মৃতি স্তম্ভ স্থাপন করা হোক।

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এই রকম আরো সংবাদ

© All rights reserved © 2020 Bwazarakatha.Com
Design & Development By Hostitbd.Com